ইসলামাবাদের জনসভায় ২০ লাখ লোক জড়ো করতে চান পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খান। বুধবার (২৭ এপ্রিল) দলের কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

. . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . . .

ক্ষমতা হারানোর পর থেকেই পাকিস্তানের বড় বড় শহরে মহাসমাবেশ করছেন ইমরান খান। সবশেষ গত বৃহস্পতিবার লাহোরে ব্যাপক জনসমাগমের মধ্য দিয়ে আরও একবার দলের শক্তি প্রদর্শন করে পিটিআই। ওই সমাবেশ থেকেই ইসলামাবাদে সমাবেশের ডাক দেয়া হয়। শিগগিরই এর তারিখ নির্ধারণ করা হবে।

লাহোরের জনসভায় হাজার হাজার নেতাকর্মীর উদ্দেশে ইমরান বলেন, “ইসলামাবাদে আমি ২০ লাখ মানুষের উপস্থিতি দেখতে চাই। আপনারা দেশের সব মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়ে পাকিস্তানের ‘সত্যিকার মুক্তি’র লক্ষ্যে আমাদের আন্দোলন সম্পর্কে অবহিত করুন।”

চলতি মাসেই পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে বিরোধী জোটের আনা অনাস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতাচ্যুত হন ইমরান খান। এ অনাস্থা প্রস্তাবের নেপথ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে অভিযোগ করে আসছেন তিনি।

এর প্রতিবাদে দেশজুড়ে ধারাবাহিক জনসভার কর্মসূচি শুরু করেন ইমরান খান। গত ১৩ এপ্রিল খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের রাজধানী পেশোয়ারে সমাবেশের মধ্য দিয়ে দেশব্যাপী কর্মসূচির শুরু হয়। পেশোয়ারে জনসভা থেকে ইমরান ‘সত্যিকারের স্বাধীনতা’ আন্দোলনের ডাক দেন।

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) ইমরান খান বলেন, তিনি পুরো জাতিকে রাস্তায় নিয়ে আসবেন এবং পাকিস্তান যে একটি ‘স্বাধীন ও মুক্ত দেশ’౼আমেরিকাকে এ বার্তা দিতে ইসলামাবাদে জনসমাবেশ করবেন।

ইমরানের ভাষায়: ‘আমরা রাস্তায় নামব, ইসলামাবাদে মিছিল করব এবং আমেরিকাকে বার্তা দেব যে, আমরা একটি স্বাধীন দেশ। আমরা তাদের এই বার্তা দেব যে, আমরা একটি সম্মানিত দেশ, যেটি কারও পুতুলে পরিণত হবে না। আমরা তাদের বলব, এই আমদানি করা সরকারকে আমরা কোনোভাবেই মেনে নেব না।’

ইমরান আরও বলেন, পিটিআই আগামী ২৭ রমজান শব-ই-দুয়ার (প্রার্থনার জন্য একটি সন্ধ্যা) আয়োজন করবে। তার ভাষায়: ‘আমি মাওলানা তারিক জামিলের সঙ্গে থাকব এবং আমরা প্রতিটি শহরে পর্দার ব্যবস্থা করব। আমরা সবাই দেশের নিরাপত্তা, সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতার জন্য দোয়া করব।’

ইমরান দাবি করেন, নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফকে ‘ষড়যন্ত্রের’ মাধ্যমে ক্ষমতায় আনা হয়েছে। পিটিআই চেয়ারম্যান বলেন, ‘তাদের সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু আমাদের আমেরিকান রাষ্ট্রদূতের কাছে এসে তাকে হুমকি দিয়েছিলেন যে, ইমরান খানকে অপসারণ না করলে পাকিস্তানের অসুবিধা হবে।’ তিনি আরও বলেছিলেন, ‘ইমরান খানকে অনাস্থা ভোটে সরিয়ে দিলে পাকিস্তানকে ক্ষমা করা হবে।’

Related posts

বিশ্ববাজারে কমল জ্বালানি তেলের দাম

News Desk

ভারতীয় ধরন ঠেকাতে সক্ষম ফাইজার ও মডার্নার টিকা: ফাউসি

News Desk

জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় শেখ হাসিনার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রদান

News Desk

Leave a Comment