Image default
বাংলাদেশ

মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশকে কৃষকের স্বপ্নভঙ্গ

বাগেরহাটে ডিলারের দেওয়া মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক ব্যবহার করে নষ্ট হয়ে গেছে চাষিদের আমন ধানের ক্ষেত। বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নের হেদায়েতপুর বিলের চাষিরা এই মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক ব্যবহার করে বিপাকে পড়েছেন। তবে কৃষি বিভাগ বলছে, মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক বিক্রি করা অপরাধ। বিষয়টির তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সরেজমিনে ভুক্তভোগী কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কেউ ব্যাংক থেকে, কেউবা বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে আমন ধানের চাষ করেছেন। কারণ, এই আমন ধানই তাদের একমাত্র ভরসা। সারা বছরের খাবার ছাড়াও উৎপাদিত ধান বিক্রি করে দায়দেনাসহ সব ধরনের প্রয়োজন মিটিয়ে থাকেন চাষিরা। তারা নিজের জমি ছাড়াও বর্গা বা নগদ টাকায় জমি লিজ নিয়ে চাষাবাদ করেছেন। কিন্তু এ বছর ডিলারের দেওয়া মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক ব্যবহার করে ভেস্তে গেছে বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নের হেদায়েতপুর গ্রামের চাষিদের স্বপ্ন।

তারা জানান, বীজতলা থেকে জমিতে চারা লাগানোর পর চাষিরা সন্তানের মতো যত্ন করে বড় করে তুলেছিলেন ধান গাছ। ফলন আসার আগেই জমিতে লেদা ও মাজরা পোকা আক্রমণ করে। কৃষকরা ডেমা ইউনিয়নের বিসিআইসি অনুমোদিত সার ডিলার ‘অমিও এন্টারপ্রাইজের’ স্বত্বাধিকারী আকুঞ্জি করিম হোসেনের কাছ থেকে ‘সিনজেনটা’ কোম্পানির ‘ভিরতাকো’ নামের একটি কীটনাশক ক্রয় করে ব্যবহার করেন। কিন্তু দিনের পর দিন এই কীটনাশক ব্যবহার করেও কোনও উপকার হয়নি তাদের। চোখের সামনেই শেষ হয়ে গেছে তাদের স্বপ্ন। পরে তারা দেখতে পান এই কীটনাশকের মেয়াদ অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে। এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তারা।

কৃষক গাজী বাবর আলী জানান, তিনি সাত লাখ টাকা খরচ করে ৬০ বিঘা জমিতে আমনের চাষ করেছেন। ফলন খুবই ভালো ছিল। লেদা পোকায় আক্রমণ করলে তিনি কাশিমপুর বাজারের করিমের নিকট থেকে ‘ভিরতাকো’ নামের কীটনাশক এনে ব্যবহার করেন। চারবার দিয়েও কোনও প্রতিকার না পেয়ে প্যাকেটের গায়ে দেখেন ওই কীটনাশকের মেয়াদ নেই।

কৃষক লোকমান শেখ বলেন, ‘এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে জমি লিজ নিয়ে আমন চাষ করি। মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশকের কারণে সবকিছু শেষ হয়ে গেছে।’

কৃষক নজরুল ইসলাম, ইব্রাহিম মোল্লা, শেখ জিল্লুর রহমান জানান, আমন ধানই তাদের একমাত্র ভরসা ছিল। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে জমিতে ধান লাগিয়েছিলেন। কিন্তু ডিলার করিমের কাছ থেকে নেওয়া মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক তাদের শেষ করে দিয়েছে। কীটনাশক বিক্রেতার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ ও তাদের ক্ষতিপূরণ দাবি করেন চাষিরা।

এ বিষয়ে জানতে ডিলার অমিও এন্টারপ্রাইজে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ পাওয়া গেছে। মোবাইলে প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী আকুঞ্জি করিম হোসেন নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন।

বাগেরহাট সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ তন্ময় দত্ত জানান, মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক বিক্রি করা অপরাধ। বিষয়টি জানার পরই তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

Source link

Related posts

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে নতুন উপায় খুঁজছে দুই সিটি করপোরেশন

News Desk

ঢাকার প্রবেশদ্বারে পুলিশের পাহারা

News Desk

লকডাউনে রাজধানী ছাড়ছেন লাখো মানুষ

News Desk

Leave a Comment