free hit counter
প্রযুক্তি

তিন বন্ধুর ইউটিউব প্রতিষ্ঠার গল্প

কিভাবে জন্ম হলো ইউটিউবের/ ইউটিউব – ব্যর্থ প্রকল্প থেকে জন্ম নেওয়া বিলিয়ন ডলার ওয়েবসাইট / একটি ব্যর্থ ডেটিং সাইট থেকে যেভাবে জন্ম নিলো ইউটিউব

বর্তমানে ইউটিউব ছাড়া আমরা একটা দিনও কল্পনা করতে পারি না। এখন গুগলের পণ্য ইউটিউব হলেও, শুরুতে কিন্তু তা ছিলো না। বরং ইউটিউবের জন্ম নিয়ে আছে মজার সব গল্প। আজকে আমরা সেইসব গল্পই শুনবো।

২০০৫ সাল। আমেরিকার বিখ্যাত পেপাল কোম্পানিতে চাকরি করেন তিন তরুণ। চ্যাড হার্লি, স্টিভ চেন এবং জাওয়াদ করিম। তারা পেপ্যালে চাকরি করলেও, নিজেদের কিছু তৈরি করার চেষ্টা করতেন। সেই লক্ষ্যেই তারা ১৪ই ফেব্রুয়ারী ইউটিউব নামে একটা ডোমেইন কিনেন। একটি ডেটিং ওয়েবসাইট বানানোই ছিলো তাদের লক্ষ্য। নিজেদের ভিডিও দেওয়ার সুবিধা নিয়ে ২৩শে এপ্রিল, এটা চালু হয়। কিন্তু তাদের এই আইডিয়াটি ব্যর্থ হয়।

এর মধ্যে ঘটে এক মজার ঘটনা। আমেরিকায় সবচেয়ে জনপ্রিয় স্পোর্টস ইভেন্, এনএফএল। এর ফাইনাল খেলার মাঝ বিরতির সময় কনসার্ট আয়োজন করা হয়। ২০০৪ সালে এমনই এক কনসার্টে ঘটে দুর্ঘটনা। গান গাওয়ার সময় শিল্পী জ্যানেট জ্যাকসনের জ্যাকেট, আধ সেকেন্ডের জন্য খুলে যায়। এই ঘটনাটি সে সময় তুমুল আলোচিত হয়। হার্লি, চেন এবং করিম আবিষ্কার করলেন এই ঘটনার কোনও ভিডিও ইন্টারনেটে পাওয়া যায় না।

এখান থেকেই তারা ব্যতিক্রমী চিন্তা করলেন। ভাবলেন, এমন একটা প্ল্যাটফর্ম তৈরি করার যেখানে সবাই নিজেদের ভিডিও আপলোড করতে পারবে। কেউ প্রফেশনাল না হলেও বাসায় তৈরি ভিডিও দিতে পারবে যেকোনও সময়। এই চিন্তাধারা থেকেই জাওয়াদ করিম প্রথম ভিডিও আপলোড করেন। শিরোনাম দেন, ” মি আট দ্যা জু”। করিমের চিড়িয়াখানায় বেড়াতে যাওয়ার ভিডিও ছিলো এটি।

২০০৫ সালের মে মাসে পরীক্ষামুলকভাবে ইউটিউব চালু হয়। এরপর এটি দ্রুত জনপ্রিয়তা লাভ করে। অবশেষে ১৫ই ডিসেম্বর এটি অফিশিয়ালি আত্মপ্রকাশ করে। এরপরে এর জনপ্রিয়তা অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বাড়তে থাকে। ২০০৬ এর মাঝামাঝি এসে প্রতিদিন এই সাইটে, ১০০ মিলিয়ন ভিডিও আপলোড হতে থাকে। এই বিশাল ভিডিও এর চাপ নিতে একের পর এক কম্পিউটার এবং ব্রডব্যান্ড কানেকশন নিতে থাকেন ইউটিউবের প্রতিষ্ঠাতারা। কিন্তু কিছুতেই কুলিয়ে উঠতে পারছিলেন না। তাই শেষে তারা ইউটিউব বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন। এমন কারও কাছে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন, যারা এই বিশাল কর্মযজ্ঞ চালিয়ে নিতে পারবে।

ওদিকে ২০০৫ সালেই গুগল তাদের ভিডিও সার্ভিস নিয়ে আসে। নাম রাখে, গুগল ভিডিও। কিন্তু তাদের এই সার্ভিস ব্যর্থ হয়। তাই তারা যখন জানতে পারে ইউটিউব নির্মাতারা, তাদের ওয়েবসাইট বিক্রি করতে চাচ্ছেন, তখন গুগল সে সুযোগ লুফে নেয়। এক দশমিক ছয় বিলিয়ন ডলারে গুগল, ইউটিউব কিনে নেয়। সেটি ছিলো ২০০৬ সালের নভেম্বর মাসের ঘটনা। গুগলের অধীনে ইউটিউব পরিণত হয় বিশ্বের সেরা তিন সাইটের একটিতে।

আর এভাবেই ব্যর্থ ডেটিং সাইট থেকে ইউটিউব হয়ে উঠলো আমাদের দৈনন্দিন জীবনেরই একটা অংশ।

Bednet steunen 2023