free hit counter
খেলা

সেমির স্বপ্ন দেখে টাইগাররা তুললো ১২৭

অঘোষিত কোয়াটার ফাইনালে পাকিস্তানকে ১২৮ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ অ্যাডিলেড ওভালে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। 

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালোই করেছিলো বাংলাদেশ। প্রথম দুই ওভারে দেখেশুনে খেলার পাশাপাশি দুই বাউন্ডারিতে ১৩ রান তুলে ফেলে শান্ত-লিটন। তৃতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলেই শাহিন শাহ আফ্রিদিকে উড়িয়ে বাউন্ডারি ছাড়া করেন লিটন। তবে বিপদটা আসে তিন বল পরেই। ওভারের পঞ্চম বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে শান মাসুদের হাতে ধরা পড়েন লিটন। সাজঘরে ফেরার আগে লিটন করেন ৮ বলে ১০ রান।



পরের ওভারের প্রথম বলেই শান্তর ক্যাচ ফেলেন শাদাব খান। এরপরই অবশ্য সৌম্য-শান্ত মিলে চড়াও হয়েছেন মোহাম্মদ ওয়াসিমের ওপরে। শান্তর বাউন্ডারি আর সৌম্যর ওভার বাউন্ডারিতে এই ওভার থেকে আসে ১৩ রান।



পাওয়ার প্লে’র শেষ দুই ওভার দেখেশুনেই কাঁটিয়ে দেয় দুই টাইগার ব্যাটার মিলে। ৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সগ্রহ দাঁড়ায় ১ উইকেটে ৪০ রান। পাওয়ার প্লের পরেও রানের ধারা অব্যাহত রেখেছে এই দুই ব্যাটার। তাদের ব্যাটে ভর করে  প্রথম ১০ ওভার শেষে ১ উইকেট হারিয়ে ৭০ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। শান্ত ৩৭ বলে ৪১ ও সৌম্য ১৫ বলে ১৮ রান করে।

ইনিংসের ১১ তম ওভারের চতুর্থ বলে উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ৭৩ রানে শাদাব খানকে রিভার্স করতে গিয়ে শান মাসুদের হাতে ধরা পড়েন সৌম্য সরকার। ১৭ বলে ২০ রান করে আউট হন তিনি। ওভারের পরের বলেই আউট হন ক্রিজে আসা অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। পর পর দুই বলে দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। শাদাব খানের হ্যাট্রিকের সম্ভাবনা দেখা দিলেও টা রুখে দেন ক্রিজে আসা আফিফ হোসেন। ১১ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ৭৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। 



ইনিংসের ১২ তম ওভারে মাত্র ৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। পর পর দুই উইকেট হারানোই রানের গতি কিছুটা কমে যায় বাংলাদেশের। তবে ইনিংসের ১৩ তম ওভারের প্রথম বলে চার মারেন শান্ত। ওভারের চতুর্থ বলে ১ রান নিয়ে ৪৬ বলে নিজের অর্ধশতক পূরণ করেন নাজমুল শান্ত। এই ওভার থেকে ৯ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

এরপর ইনিংসের ১৪ তম ওভারের প্রথম বলে ৪ মারেন শান্ত। তবে পরের বলে মারতে গিয়ে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরে যান শান্ত। দলীয় ৯১ রানে ৪৮ বলে ৫৪ রান করে ফিরে যান শান্ত। শেষ পর্যন্ত ১৪ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ৯২ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। 

ইনিংসের ১৫ তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন মোহাম্মদ ওয়াসিম। এই ওভার থেকে ৭ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। ১৫ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ৯৭ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

এরপর ইনিংসের ১৭ তম ওভারে আরও দুই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ১০৭ রানেই ওভারের দ্বিতীয় বলে মোসাদ্দেক সৈকত ও পঞ্চম বলে নূরুল হাসান সোহানকে আউট করেন শাহিন আফ্রিদি। এরপর ইনিংসের ১৯ তম ওভারের প্রথম বলে পেসার তাসকিন আহমেদের উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ১০৯ রানে ৭ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ১৯ ওভার শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে ১১৬ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

ইনিংসের শেষ ওভারে দ্বিতীয় বলে চার মারেন আফিফ হোসেন। পরের বলে সিঙ্গেল নিয়ে নাসুমকে স্ট্রাইক দেন তিনি। ওভারের তৃতীয় বলে চার মারেন নাসুম। এরপর চতুর্থ বলে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মোহাম্মদ ওয়াসিমের হাতে ধরা পোরেন নাসুম। ৬ বলে ৭ রান করে আউট হন তিনি। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। 

পাকিস্তানের পক্ষে শাহিন আফ্রিদি ৪টি ও শাদাব খান নেন ২টি উইকেট।

 

Source link

Bednet steunen 2023