free hit counter
সেমিফাইনালের পর মাঠের বাইরে বাগযুদ্ধে জড়ালেন রিয়াল-চেলসি তারকা
খেলা

সেমিফাইনালের পর মাঠের বাইরে বাগযুদ্ধে জড়ালেন রিয়াল-চেলসি তারকা

তাঁর ঝুলিতে রয়েছে চার-চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের নজির। বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে একটি এবং রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে তিনটি। এহেন টনি ক্রুজ বুধবার স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে নামার আগে প্রছন্ন হুমকি ছুঁড়ে দিয়েছিলেন বিপক্ষ চেলসিকে। কিন্তু ম্যাচে ০-২ এবং এগ্রিগেটে ১-৩ গোলে পরাজিত হয়ে এবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অভিযানে দাড়ি পড়ে যায় লস ব্ল্যাঙ্কোসদের। স্বাভাবিকভাবেই ম্যাচ জিতে রিয়াল তারকা টনি ক্রুসকে তাঁর মন্তব্যের পালটা দিতে ভুললেন না ম্যাচে চেলসির গোলদাতা ম্যাসন মাউন্ট।

চেলসির তরুণ তুর্কিকে ফের পালটা দিলেন ক্রুস। সবমিলিয়ে মাঠের বাইরে ক্রুস-মাউন্টের মন্তব্য-পালটা মন্তব্যে সরগরম ইউরোপিয়ান ফুটবল। সেমিফাইনালের প্রথম লেগে ঘরের মাঠে ১-১ ড্র করে কিছুটা ব্যাকফুটেই ছিল জিনেদিন জিদানের রিয়াল। তাই ফিরতি লেগের আগে জার্মান মিডফিল্ডারকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, চেলসির এমন একজন দক্ষ ফুটবলারের নাম বলুন যাকে আপনার ধুরন্ধর বলে মনে হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে ক্রুস উত্তরে বলেছিলেন, তাঁর ১৫ বছরের ফুটবল কেরিয়ারে কোনও চেলসি ফুটবলার নাকি রাতের ঘুম কাড়তে পারেনি। দল হিসেবে চেলসিকে ভালো বললেও নির্দিষ্ট কোনও ফুটবলারের নাম তিনি করতে চাননি।

আর এই ঘটনাই বোধহয় ভিতর ভিতর উদ্দীপ্ত করে তুলেছিল থমাস টাচেলের ছেলেদের। ব্লুজ’দের উজ্জীবিত ফুটবলের সামনে সেদিন একেবারেই বিবর্ণ ছিল ১৩ বারের চ্যাম্পিয়নরা। ঘরের মাঠে আধিপত্য নিয়ে ফুটবল খেলেই বাজিমাত করে ২০১১-১২ চ্যাম্পিয়নরা। দুই অর্ধে চেলসির হয়ে দু’টি গোল করেন টিমো ওয়ের্নার এবং ম্যাসন মাউন্ট। আর ফাইনালে উঠে সাংবাদিক সম্মেলনে ক্রুসকে পালটা দিয়ে মাউন্ট বলেন, ‘আমি শুনেছিলান ওদের একজন ফুটবলার বলেছিল আমাদের কোনও ফুটবলারই নাকি তাঁর রাতের ঘুম কাড়তে পারেনি। আশা করি এবার থেকে পারবে। আমরা পাঁচেরও বেশি গোলে জিততাম আজকের ম্যাচ।’

বয়সে অনেকটাই ছোট মাউন্টের এই মন্তব্যের পর মৌন থাকেননি ক্রুস। বৃহস্পতিবার তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় ফের পালটা দেন। ক্রুস এবারে লেখেন, ‘না ভাই আমি এখনও ভালোই ঘুমোচ্ছি। গতকালের জন্য অভিনন্দন। কেরিয়ারের প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের জন্য শুভেচ্ছা রইল।’ সবমিলিয়ে দু’পক্ষের উত্যক্ত বাক্য বিনিময়ে সেমিফাইনাল পরবর্তী অধ্যায় জমজমাট।

উল্লেখ্য, আগামী ২৯ মে ইস্তানবুলের আতাতুর্ক স্টেডিয়ামে মেগা ফাইনালে ম্যান সিটির মুখোমুখি হবে চেলসি। পেপ গুয়ার্দিওলা বনাম থমাস টাচেলের মগজাস্ত্রের লড়াই দেখতে মুখিয়ে অনুরাগীরা। যদিও তার আগে চলতি সপ্তাহান্তে প্রিমিয়র লিগে মুখোমুখি দুই দল। ওই ম্যাচে চেলসিকে হারালেই খেতাব পাকা স্কাই ব্লুজ’দের।

Related posts

অনুশীলনে ফিরলেও দলে জায়গা হয়নি রামোসের

News Desk

ভিয়ারিয়ালকে হারিয়ে সুপার কাপের শিরোপা চেলসির

News Desk

চেলসি নয়, গার্দিওলাই সিটির বড় প্রতিপক্ষ

News Desk