free hit counter
খেলা

যেকোনো পরিস্থিতিতে জয় পেতে মরিয়া শ্রীলঙ্কা

সুপার ফোরে টানা দুই ম্যাচ জিতে এশিয়া কাপের ফাইনালে এক পা দিয়ে রেখেছে শ্রীলঙ্কা। লঙ্কানদের মাঠের পারফরম্যান্স বেশ নজরকাড়া। সুপার ফোরে আফগানিস্তান ও শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে যেভাবে জিতেছে, তাতে প্রশংসায় ভাসছে ক্রিকেটাররা। দলের সবাই এখন দারুন আত্মবিশ্বাসী বলেই এমন জয় সম্ভব হচ্ছে বলে জানালেন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দাসুন শানাকা।

গতরাতে ভারতের বিপক্ষে দারুন এক জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে লঙ্কান অধিনায়ক জানান, ছেলেরা এতটাই আত্মবিশ্বাসী যে, আমরা কঠিন ম্যাচেও জয় পাচ্ছি। এখন যেকোন পরিস্থিতিতে ছেলেরা জয় পেতে মরিয়া হয়ে রয়েছে।

টুর্নামেন্টের শুরুটা অবশ্য বেশ খারাপ হয়েছিলো শ্রীলঙ্কার। আফগানিস্তানে কাছে হার দিয়ে শুরু হওয়া ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে মাত্র ১০৫ রানে অলআউট হয় লঙ্কানরা। তবে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় নিয়ে সুপার ফোরে উঠে দাসুন শানাকার দল। বাংলাদেশের ছুড়ে দেয়া ১৮৪ রানের টার্গেট স্পর্শ করে ২ উইকেটে ম্যাচ জিতে শ্রীলঙ্কা।



সুপার ফোরের দুই ম্যাচও বড় টার্গেট স্পর্শ করেই জয়ের ধারা ধরে রাখে শ্রীলঙ্কা। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৭৬ ও ভারতের বিপক্ষে ১৭৪ রানের টার্গেটে জয় তুলে নিয়ে ফাইনাল প্রায় নিশ্চিত করে ফেলে এশিয়ার সিংহরা।

লঙ্কান অধিনায়ক শানাকার মতে ছেলেরা  সবাই অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী বলেই এমন জয় সম্ভব হয়েছে। গতরাতে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে শানাকা বলেন, ‘ড্রেসিংরুমে সকলের মধ্য অবিশ্বাস্য  আত্মবিশ্বাস, ছেলেরা অনেক বেশি চাঙ্গা হয়ে আছে। প্রথম ম্যাচের পর আমাদের মধ্যে ভালো আলোচনা হয়েছিল, আমরা জানি আমরা কী করতে পারি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আগের তুলনায়, ছেলেরা ম্যাচ জয়ের জন্য অনেক বেশি ক্ষুধার্ত হয়ে উঠেছে। যেকোন পরিস্থিতি সামলে নিয়ে ম্যাচ জিততে চায় সকলে। তাদের এমন ইচ্ছাই, আমাদের বড় টার্গেট পেরোতে সাহস দিচ্ছে।’

ভারতের বিপক্ষে জয় নিয়ে দলের ক্রিকেটারদের প্রশংসা করে অধিনায়ক বলেন, ‘বোলাররা কিছু সময় ভালো বল করেছিল। মাদুশাঙ্কা-থিকশানাকে কৃতিত্ব দিতে হবে। তারা সত্যিই ভালো বল করেছে। ব্যাটসম্যানরা খুবই আগ্রাসী হয়ে খেলেছে। এমন ম্যাচে এভাবেই খেলতে হয়।’

ভারতের বিপক্ষে ১৭৪ রানের টার্গেটে শ্রীলংকাকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই লঙ্কান ওপেনার কুশল মেন্ডিস ও পাথুম নিশাঙ্কা। ৬৭ বল খেলে ৯৭ রানের জুটি গড়েন দুজন মিলে। এমন উড়ন্ত সূচনা এনে দেয়ায় ওপেনারদের নিয়েও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে শানাকা বলেন, ‘শুরুতে পাথুম ও কুশল চমৎকার সূচনা এনে দিয়েছে। পরে রাজাপাকসে ভালো করেছে। আমার  ব্যাটিংও কাজে লেগেছে।’

Source link