Image default
খেলা

বিশ্বাস ছিল শেষ পর্যন্ত থাকলে আমি জেতাতে পারব : আফিফ

সাহস আছে, ভয়ডর কম। জানা হয়ে গেছে, তিনি শটস খেলতে পারেন। বাহারি ও নয়নজুড়ানো স্ট্রোক খেলার সামর্থ্য আছে আফিফ হোসেন ধ্রুব‘র। নিজের নাগালের ভেতরে বল পেলে উইকেটের যে কোনো দিক দিয়ে সীমানাছাড়া করতে পারেন। বারবার এ তরুণ বাঁহাতি তা করে দেখিয়েছেন।

তবে ম্যাচ শেষ করে দল জিতিয়ে বিজয়ীর বেশে সাজঘরে ফেরার আগ্রহ, ইচ্ছে আর দৃঢ় সংকল্পটায় ঘাটতি ছিল। তার চেয়ে একটু রঙচঙে ও চটকদার মার মারতেই বেশি উৎসাহী ছিলেন। অমন বাহারি স্ট্রোক প্লে‘ করতে গিয়ে আউট হয়ে যেতেন আফিফ। কিন্তু হঠাৎই সেই রূপ পাল্টে ফেলেছেন এ তরুণ।

এখন তার লক্ষ্য, দলের জন্য অবদান রাখা। দলকে জয়ের পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আর সম্ভব হলে ম্যাচ শেষ করে বিজয়ীর বেশে ফেরা। সেই মানসিকতা ও ইচ্ছেটাই বদলে দিয়েছে আফিফকে। সেই বাহারি স্ট্রোক মেকার এখন ম্যাচ উইনারে রূপান্তরিত হয়েছেন।

অবশ্য অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ তিন তরুণ আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান আর শামীম পাটোয়ারীর কথা বলেছেন আগেই। তারা ম্যাচ শেষ করে আসতে পারেন, এই আস্থাটা আছে জানিয়েছিলেন অধিনায়ক। আজও ব্যাটিংয়ে নামার আগে ঠিক সেই বার্তাই দিয়েছিলেন রিয়াদ।

খেলা শেষে আফিফ শোনালেন, ‘নামার সময় রিয়াদ ভাইয়ের কাছ থেকে একটা বার্তা ছিল যে যেয়ে যেন দুই-তিন ওভার নরমাল খেলি। কিন্তু আমার পরিকল্পনা ছিল শেষ পর্যন্ত টিকে থাকা, ম্যাচটা শেষ করে আসা। ব্যাটিংয়ে নেমে আমি উইকেট বোঝার চেষ্টা করেছি। আমার বিশ্বাস ছিল যতই লাগুক, উইকেটে শেষ পর্যন্ত টিকতে পারলে আমি ম্যাচটা ভালোভাবে শেষ করতে পারব।’

হোক ১২২ রানের ছোট্ট টার্গেট। তারপরও অসি বোলারদের তোপে ৬৭ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর হারের শঙ্কা ঠিকই পেয়ে বসেছিল বাংলাদেশকে। সেখান থেকে ৩১ বলে ৩৭ রানের হার না মানা ইনিংস উপহার দিয়ে ম্যাচসেরা আফিফ।

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে প্রথম ম্যাচ জেতানো ভূমিকা নিয়েও সহযোগীদের কৃতিত্ব দিতে ভুল হয়নি। অবিচ্ছিন্ন জুটিতে সঙ্গ দেয়া সোহানের ভূমিকার আলাদা প্রশংসা করেছেন। বোলারদের জয়ের রূপকার হিসেবে অভিহিত করেছেন আফিফ।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘সোহান ভাই দারুণ ব্যাটিং করেছে। তার সঙ্গে ব্যাটিংয়ের সময় পরিকল্পনা ছিল, উইকেট না দিয়ে কিভাবে রান করা যায়। সেই চেষ্টা করছিলাম। তার সাইড থেকে ভালো সমর্থন পাওয়ায় আমার ওপর তেমন চাপ পড়েনি।

দেশের মাটিতে যে তার দলের বোলাররা বাড়তি সুবিধা পান, সেটাও মনে করিয়ে দিলেন আফিফ। তার কথা, ‘আসলে এখানে হোম কন্ডিশনে অবশ্যই বোলিংয়ের একটা সুবিধা থাকে। আমাদের বোলাররা সেই হোম কন্ডিশনের সুবিধাটা ভালোভাবে কাজে লাগাচ্ছে।

সঙ্গে যোগ করেন, ‘মোস্তাফিজ ভাই ও শরিফুল, উইকেটের যে কন্ডিশন তার সঙ্গে খুব ভালো অ্যাসেস করতে পেরেছে। উইকেটের কন্ডিশন অনুযায়ী বোলিং করায় তারা খুব ভালো করেছে। পুরো টিম এফোর্ট হচ্ছে। দুই ম্যাচ টানা জেতার পর এখন টিম বাংলাদেশের লক্ষ্য সিরিজ। আফিফ বলেন, ‘এখন সামনের ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করছি। ওই ম্যাচ জিতলে সিরিজটাও আমাদের পক্ষে আসবে। ইনশাআল্লাহ চেষ্টা থাকবে সামনের ম্যাচও জেতার।

Related posts

‘পয়লাতে পয়লা, এইতো চাই’

News Desk

“মহিলা বিশ্বকাপে দলের সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল।”

News Desk

ম্যান সিটির মালিক নিজ খরচে ছয় হাজার দর্শককে ফাইনাল দেখাবেন

News Desk

Leave a Comment