free hit counter
খেলা

ইরানকে উড়িয়ে দিয়ে শুভসূচনা ইংল্যান্ডের

কাতার বিশ্বকাপের দ্বিতীয় ম্যাচে ইরানকে ৬-২ গোলে হারিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করলো ইংল্যান্ড। সোমবার (২১ নভেম্বর) লিফা ইন্টারন্যশনাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায় ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে মাঠে নামে ইংল্যান্ড ও ইরান।




ম্যাচের ১৮ মিনিটে ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়েন ইরানের গোলরক্ষক আলিরেজা বেইরানভান্দ। তার পরিবর্তে মাঠে নামেন বদলি গোলরক্ষক। ম্যাচের ৩১ মিনিটে কর্নার পায় ইংল্যান্ড। কর্নার থেকে বাড়ানো বলে হেড করেন ইংলিশ ডিফেন্ডার হ্যারি ম্যাগুইর। তবে ক্রস বারে বল লেগে ফিরে আসে। ফলে গোল থেকে বঞ্চিত হয় ইংল্যান্ড।




 

এরপর ম্যাচের ৩৫ মিনিটে গোলের দেখা পায় ইংল্যান্ড। বাম প্রান্ত থেকে বাড়ানো বলে হেড করে ইরানের জালে বল জড়ান জুড বেলিংহাম। গোলের দেখা পেয়ে আরও আক্রমণাত্নক খেলতে থাকে ইংল্যান্ড।



ম্যাচের ৪৩ মিনিটে আবারও গোলের দেখা পায় ইংল্যান্ড। ডি বক্সে পাওয়া বলে ভলি করে বল ইরানের জালে জড়ান বিশ্বকাপের অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা বুকায়ো সাকা। 



এরপর প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে গোল করে ইংল্যান্ডকে ৩-০ গোলের লিড এনে দেন রহিম স্টারলিং। শেষ পর্যন্ত ৩ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ইংল্যান্ড।

বিরতি থেকে ফিরেও ইরানের ওপর চড়াও হয়ে খেলতে থাকে ইংল্যান্ড। ইরানের ওপর একের পর এক আক্রমণ চালাতে থাকে ইংল্যান্ড। ম্যাচের ৬২ মিনিটে অসাধারণ এক গোল করে ইংল্যান্ডের লিড বাড়িয়ে দেন বুকায়ো সাকা। ম্যাচে এটি তার দ্বিতীয় গোল।




 

শ্রোতের বিপরীতে চার নম্বর গোলের পর ম্যাচের ৬৫ মিনিটে গোল করে ইরান। ডান প্রান্ত ধরে সাজানো আক্রমণে গোল করে ইরানের ব্যবধান কমান মেহেদী তারেমি। ম্যাচের ফেরার চেষ্টা করে ইরান।



কিন্তু ম্যাচের ৭১ মিনিটে ফের গোলের দেখা পায় ইংল্যান্ড। এবার গোল করেন বদলি নামা রাশফোর্ড। একক প্রচেষ্টায় ডি বক্সে ঢুকে প্লেসিং শটে গোল করেন তিনি। 



এই গোলে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় ইরান। চার গোলের লিড নিয়ে খেলতে থাকে ইংল্যান্ড। ইরানের ডি বক্সে বেশ কয়েকটি আক্রমণ চালায় ইংল্যান্ড। ম্যাচের শেষ দিকে ৯০ মিনিটে আবারও গোলের দেখা পায় ইংল্যান্ড।



কাউন্টার অ্যাটাক থেকে থেকে গোল করেন গ্রিলিশ। ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে পেনাল্টি পায় ইরান।পেনাল্টি থেকে গোল করে হারের ব্যবধান কমান মেহেদী তারেমি।



এরপর খেলা শেষের বাশি বাজান রেফারি। সেইসঙ্গে ৬-২ গোলের বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইংল্যান্ড। 

Source link

Bednet steunen 2023