free hit counter
খেলা

আফগানিস্তানকে হারিয়ে শুভসূচনা ইংল্যান্ডের

টি-২০ বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভের উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। প্রথমে ব্যাট করে ইংলিশ বোলার স্যাম কুরানের ৫ উইকেট শিকারে মাত্র ১১২ রানে অলআউট হয় আফগানিস্তান। শনিবার (২২ অক্টোবর) পার্থ স্টেডিয়ামে টস জিতে আফগানদের ব্যাটিংয়ে পাঠায় ইংলিশ অধিনায়ক জস বাটলার।




ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় আফগানিস্তান। তৃতীয় ওভারে দলীয় মাত্র ১১ রানেই ৯ বলে ১০ রান করে মার্ক উডের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন রহমতুল্লাহ গুরবাজ। এরপর ইব্রাহিম জাদরান ও হজরতউল্লাহ জাজাই মিলে শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু দলীয় ৩৫ রানের মাথায় আবারও উইকেট হারায় আফগানরা। ১৭ বলে মাত্র ৭ রান করে বেন স্টোকসের বলে লিয়াম লিভিংস্টোনকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরের পথ ধরেন হজরতউল্লাহ জাজাই। এরপর উসামান ঘানিকে সঙ্গে নিয়ে রানের চাকা সচল রেখে বড় জুটি গড়ার চেষ্টা করেন ইব্রাহিম জাদরান। কিন্তু স্যাম কুরানের করা স্লোয়ার ডেলিভেরি বুঝতে না পেরে বড় শট খেলতে গিয়ে বল আকাশে তুলে মঈন আলির হাতে ধরা পড়েন ইব্রাহিম জাদরান। ৩২ বলে ৩২ রান করে আউট হন তিনি।




 

 এরপর ক্রিজে আসেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। তিনিও টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ। দলীয় ৮২ রানে ১১ বলে ১৩ রান করে আউট হন তিনি। নাজিবুল্লাহর পর দ্রুতই সাজঘরে ফিরে যান অধিনায়ক মোহাম্মদ নবি। ৫ বলে মাত্র ৩ রান করে মার্ক উডের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান তিনি। এক পাশে উসমান ঘানি টিকে থাকলেও তাকে যোগ্য সঙ্গ দিতে পারেনি কেউ। দলীয় ১০৯ রানে আজমাতুল্লাহ ওমরজাই, রশিদ খান ও ১১০ রানে আউট হন মুজিব উর রহমান। এরপর দলীয় ১১২ রানে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩০ বলে ৩০ রান করে আউট হন উসমান ঘানি। এরপর এর এক বলে পরেই আউট হন আফগানদের শেষ ব্যাটার ফজলহক ফারুকী।



আর তাকে আউট করার মাধ্যমে ৫ উইকেট তুলে নেন স্যাম কুরান। শেষ পর্যন্ত ১১২ রানে গুটিয়ে যায় আফগানরা। ইংল্যান্ডের পক্ষে স্যাম কুরান ১০ রান খরচায় নেন ৫ উইকেট। আর মার্ক উড ও বেন স্টোকস নেন ২টি করে উইকেট।

১১৩ রানের ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইংল্যান্ডকে ভালো শুরু এনে দেয় দুই ওপেনার জস বাটলার ও অ্যালেক্স হেলস। উদ্বোধনী জুটিতে ৩৫ রান তোলে এই দুই ব্যাটার।  দলীয় ৩৫ রানে আফগানদের ব্রেক থ্রু এনে দেন পেসার ফজলহক ফারুকী। ১৮ বলে ১৮ রান করে আউট হন বাটলার। এরপর দলীয় ৫২ রানে ২০ বলে ১৯ রান করে বিদায় নেন আরেক ওপেনার অ্যালেক্স হেলস। ফরিদ আলির বলে ফজলহক ফারুকীকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।



এরপর দ্রুত বেন স্টোকসকে ফেরান আফগান অধিনায়ক নবি। ৪ বলে মাত্র ২ রান করে বোল্ড হয়ে ফিরে যান তিনি। দলীয় ৮১ রানে ওয়ান ডাউনে নামা ডেভিড মালানকে ফিরিয়ে ম্যাচ কিছুটা জমিয়ে তোলে আফগানিস্তান। স্পিনার মুজিবের বলে দারুণ ক্যাচ নিয়ে মালানকে ফেরান অধিনায়ক নবি। এরপর ১৬তম ওভারে জয় থেকে ১৬ রান দূরে থাকতে আউট হন হ্যারি ব্রুক। ৬ বলে ৭ রান করে রশিদ খানের শিকার হন তিনি। ব্রুকের বিদায়ের পর ক্রিজে আসেন অলরাউন্ডার মঈন আলি। মঈন আলিকে সঙ্গে নিয়ে আর কোনো বিপদ না ঘটিয়ে ইংল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন লিয়াম লিভিংস্টোন।



লিভিংস্টোন ২১ বলে ২৯ ও মঈন আলি ১০ বলে ৮ রান করে অপরাজিত থাকেন। ৫ উইকেটের জয়ে নিয়ে মাঠে ছাড়ে এই দুই ব্যাটার। আফগানিস্তানে পক্ষে মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান, মুজিব উর রহমান, ফজল হক ফারুকী  ও ফরিদ মালিক নেন ১টি করে উইকেট।     

Source link

Bednet steunen 2023