free hit counter
স্বাস্থ্য

পুরুষের ব্রেস্ট ক্যান্সারের কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা

স্তন ক্যানসার সচেতনতার প্রতীক যদিও ‘গোলাপী রিবন’ কিন্তু তাই বলে আপনি নিশ্চিন্তে থাকবেন না। ‘ব্রেস্ট ক্যান্সার’ শব্দটি শুনলেই আমাদের চোখে নারী-মুখ ভেসে উঠে। কিন্তু সত্য কথা হল শুধু নারীই নয়, ব্রেস্ট ক্যান্সারে পুরুষরাও আক্রান্ত হতে পারে।

তবে মেয়েদের ক্ষেত্রে ব্রেস্ট ক্যান্সার যত বেশি দেখা যায়, পুরুষদের জন্য এটি খুব বিরল একটি রোগ। ব্রেস্ট ক্যান্সার সাধারণত বয়স্ক পুরুষদের আক্রান্ত করে বেশি।

কারণ

ছেলেদের মধ্যে ব্রেস্ট ক্যান্সারের আসল কারণ কী তা নিয়ে গবেষকরা একমত হতে পারেন নি। প্রাথমিকভাবে তারা মনে করেন, পুরুষের স্তনের কয়েকটি বিশেষ কোষ যখন অন্য কোষগুলোর চেয়ে বেশি দ্রুত বিভাজিত হতে থাকে তখন সেগুলো তার পার্শ্ববর্তী কোষগুলোকেও আক্রান্ত করে ফেলে।

মানুষ হিসেবে আমাদের সবারই ব্রেস্ট টিস্যু রয়েছে। কিন্তু যৌবনে মেয়েদের শরীরে ব্রেস্ট টিস্যুর পরিমাণ বাড়তে থাকে আর ছেলেদের বাড়ে না। তেমনি মেয়েদের মতো ছেলেদের স্তনেও দুগ্ধ গ্রন্থি রয়েছে ও স্তনের বোঁটায় ‘ডাক্ট’ রয়েছে যা দুধ বোঁটায় বয়ে আনে।

এই ৩টি অংশের কোনো একটির মধ্যে অস্বাভাবিকতা দেখা দিলে ব্রেস্ট ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

পুরুষদের যে যে ধরনের ব্রেস্ট ক্যান্সার দেখা দেয়-

ডাক্টাল কার্সিনোমা- স্তনের ডাক্ট অংশে যে ক্যান্সার হয়
লবিউলার কার্সিনোমা- দুগ্ধ গ্রন্থিগুলোতে যে ক্যান্সার হয়
বোঁটার প্যাজেট ডিজিজ বা বোঁটার অংশে অস্বাভাবিক ত্বক দেখা দেওয়া, বোঁটায় জ্বালাপোড়া অনুভব থেকে ক্যান্সার হতে পারে

লক্ষণ

স্তনের বোঁটায় একটি ব্যথাহীন মাংসপিণ্ড অনুভূত হওয়া
বোঁটার আশেপাশের ত্বকের রঙ ও ধরন বদলে যেতে থাকা যেমন টেপ পড়া, দাগ, লালচে হয়ে থাকা
বোঁটা লালচে হয়ে যাওয়া বা বোঁটার মাথা ভিতর দিকে বেঁকে যেতে থাকা
বোঁটা থেকে পুজ বা অন্য পানি বের হওয়া
এই সবের কোনো একটি লক্ষণও যদি ৩ মাসের অধিক সময় ধরে অনুভব করেন, তাহলে দেরি না করে শীঘ্রই ডাক্তারের শরণাপন্ন হন।

চিকিৎসা

সাধারণ ক্যান্সারের মতোই ব্রেস্ট ক্যান্সার নিরাময়ে ক্যামোথেরাপি, রেডিয়েশন থেরাপি দেয়া যেতে পারে। যাদের খুব প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার ধরা পড়ে তাদের এই রোগ থেকে মুক্তি লাভের সম্ভাবনা অনেক বেশি।

রোগীর অবস্থা ও ক্যান্সারের স্টেজ বুঝে ডাক্তার সিদ্ধান্ত নিবেন তার জন্য কী ধরনের চিকিৎসা হতে পারে। তবে একটি কমন চিকিৎসা হল, সার্জারির মাধ্যমে ঐ আক্রান্ত ব্রেস্ট টিস্যু সরিয়ে ফেলা।