free hit counter
আন্তর্জাতিক

সুনাক-পত্নী অক্ষতাকে নিয়ে যে কারণে সমালোচনা

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক ও তার স্ত্রী অক্ষতা মূর্তি। ফাইল ছবি

যুক্তরাজ্যের প্রথম অশ্বেতাঙ্গ প্রধানমন্ত্রী হয়ে ইতিহাস গড়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ঋষি সুনাক। তবে সুনাকের পাশাপাশি তার স্ত্রী অক্ষতা মূর্তিও হচ্ছেন সংবাদমাধ্যম ও সংবাদপত্রের শিরোনাম। ধনসম্পদের কারণে ভারতীয় নাগরিক অক্ষতা মূর্তি বেশ আলোচিত। ঋষি সুনাক যখন অর্থমন্ত্রী ছিলেন, তখন যুক্তরাজ্যে মওকুফ করা হয় তার আবাসিক কর। আর একে কেন্দ্র করেই সমালোচিত হয়েছিলেন এই দম্পতি।

অক্ষতার বাবা এন. নারায়ণ মূর্তি একজন ভারতীয় ধনকুবের। ‘ভারতের বিল গেটস’ নামে আখ্যায়িত হন তিনি। নারায়ণ মূর্তি প্রযুক্তি জায়ান্ট ইনফোসিসের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৮১ সালে স্ত্রীর কাছ থেকে ১৩০ ডলার ধার নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন তিনি। ইনফোসিসের সম্পদের পরিমাণ এখন ১০ হাজার কোটি ডলার ছাড়িয়েছে। ওয়াল স্ট্রিটে নাম লেখানো প্রথম ভারতীয় প্রতিষ্ঠান এটি। অক্ষতার মা সুধা মূর্তি ভারতীয় প্রতিষ্ঠান টাটা মোটরসের প্রথম নারী প্রকৌশলী ছিলেন। খবর বিবিসির।

প্রণয় থেকে পরিণয় সুনাক-অক্ষতার। যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে এমবিএ পড়ার সময় তাদের পরিচয়। সেখানেই প্রণয়ে জড়ান তাঁরা। ২০০৯ সালের আগস্টে ভারতে তাদের বিয়ে হয়। সেই বিয়েতে রাজনীতিক, শিল্পপতি, তারকাসহ হাজারখানেক অতিথি উপস্থিত ছিলেন। এই দম্পতির আনুশকা ও কৃষ্ণা নামে দুই মেয়ে রয়েছে।

৪২ বছর বয়সী অক্ষতা পেশায় ফ্যাশন ডিজাইনার। ২০১০ সালে নিজের ফ্যাশন ব্র্যান্ড ‘অক্ষতা ডিজাইন্স’ গড়ে তোলেন তিনি। বাবার কোম্পানি ইনফোসিসে তার নামে প্রায় ১০০ কোটি ডলারের শেয়ার রয়েছে। ‘কাতামারান ভেঞ্চার্স’ নামে একটি বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন অক্ষতা। ২০১৩ সালে সুনাকের সঙ্গে যৌথভাবে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলেন তিনি।

সানডে টাইমসের শীর্ষ ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় অক্ষতার নাম উঠেছে। সংবাদমাধ্যমটির তথ্য অনুযায়ী, প্রয়াত রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের চেয়ে অক্ষতার সম্পদের পরিমাণ বেশি। রানির মোট সম্পদের পরিমাণ ছিল প্রায় ৪৬ কোটি ডলার। আর অক্ষতার নামে শুধু ইনফোসিসেই ১০০ কোটি ডলার মূল্যমানের শেয়ার রয়েছে।

শুধু তাই নয়, ভারতে রেস্তোরাঁ ও ব্যায়ামাগার (জিম) ব্যবসায় বড় বিনিয়োগ করেছেন অক্ষতা। যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে একাধিক বিলাসবহুল ফ্ল্যাট ও বাড়ি রয়েছে সুনাক-অক্ষতা দম্পতির। এসব সম্পদের কারণে সানডে টাইমসের শীর্ষ ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় উঠেছে অক্ষতার নাম। সংবাদমাধ্যমটির তথ্য অনুযায়ী, প্রয়াত রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের চেয়ে অক্ষতার সম্পদের পরিমাণ অনেক গুণ বেশি। রানির মোট সম্পদের পরিমাণ ছিল প্রায় ৪৬ কোটি ডলার। আর অক্ষতার নামে শুধু ইনফোসিসেই ১০০ কোটি ডলার মূল্যমানের শেয়ার রয়েছে।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে বরিস জনসন সরকারের অর্থমন্ত্রী হন সুনাক। এর পর থেকে দেশটির রাজনীতিতে বেশ আলোচনায় আসে তার নাম। তবে অক্ষতা আলোচনায় উঠে আসেন চলতি বছরের শুরুর দিকে। ওই সময় যুক্তরাজ্য সরকারের কাছে আবাসিক কর মওকুফের আবেদন করেন ব্যবসায়ী অক্ষতা। যুক্তরাজ্য সরকার তাঁর আবেদনে সাড়া দিয়ে বলে, ইনফোসিস থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশের জন্য অক্ষতাকে কর দিতে হবে না।

প্রণয় থেকে পরিণয় সুনাক-অক্ষতার। যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে এমবিএ পড়ার সময় তাঁদের পরিচয়। সেখানেই প্রণয়ে জড়ান তারা। ২০০৯ সালের আগস্টে ভারতে তাঁদের বিয়ে হয়। সেই বিয়েতে রাজনীতিক, শিল্পপতি, তারকাসহ হাজারখানেক অতিথি উপস্থিত ছিলেন। এই দম্পতির আনুশকা ও কৃষ্ণা নামে দুই মেয়ে রয়েছে।

এ ঘটনায় তুমুল সমালোচিত হন সুনাক-অক্ষতা। সমালোচকেরা বলেন, এর মধ্য দিয়ে অর্থমন্ত্রীর স্ত্রীকে ২৮ কোটি পাউন্ডের আবাসিক কর দিতে হয়নি। যদিও তিনি স্বামী-সন্তান নিয়ে পাকাপাকিভাবে যুক্তরাজ্যেই বসবাস করছেন ও বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে তার আয়ের উৎস রয়েছে। করোনা-পরবর্তী সময়ে যুক্তরাজ্যের অর্থনীতি যখন ধুঁকছে, তখন প্রভাবশালী রাজনীতিকের স্ত্রীর এমন কর মওকুফের ঘটনা নজিরবিহীন।

এসব আলোচনা-সমালোচনা সুনাকের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌঁড়ে প্রভাব ফেলেছিলো।

বরিস জনসনের পদত্যাগের পর তুমুল লড়াই করেও চূড়ান্ত প্রার্থিতার দৌড়ে তিনি লিজ ট্রাসের কাছে হেরে যান। তবে বেশিদিন অপেক্ষা করতে হলো না সুনাককে। ক্ষমতা নেওয়ার দেড় মাসের মাথায় লিজ ট্রাসও ক্ষমতা ছেড়েছেন। কপাল খুলেছে সুনাকের।

মঙ্গলবার (২৫ অক্টোবর) ইতিহাস গড়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। আর গতকালই বিবিসি অক্ষতাকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে অক্ষতার জন্ম, বেড়ে ওঠা, পরিবার, ব্যবসায়িক জীবন, বিতর্ক-সমালোচনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

Source link

Bednet steunen 2023