free hit counter
আন্তর্জাতিক

শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ না হওয়ায় মমতার ক্ষোভ

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফরে ছিলেন চারদিন। আজ এই সফরের শেষ দিন ছিল। আজ (বৃহস্পতিবার) রাত ৮টায় দেশে ফিরেছেন বাংলাদেশের সরকারপ্রধান।

তবে এবার শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কোনো আমন্ত্রণ জানায়নি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। এতে ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আমন্ত্রণ না জানানো প্রসঙ্গে মমতা বলেছেন, আমি দেশের পররাষ্ট্র নীতি সম্পর্কে বলতে চাই না। হাসিনা জি এসেছেন। ওদের সবার সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুবই ভালো। সেটা আজকে নয়, চিরকাল। পূজার সময় আমি উনাকে চিঠি দিই। উনি আমাকে শাড়ি পাঠান। আমিও পাঠাই ঈদের সময়। উনি আম পাঠান, ইলিশ মাছ পাঠান। আমরাও যতটা পারি করি। উনি নিজেই (সাক্ষাতের) ইচ্ছে প্রকাশ করলেন। আমি এই প্রথম দেখলাম বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এসেছেন (কিন্তু) বাংলা বাদ। আমি কৃতজ্ঞ যে উনি দেখা করতে চেয়েছিলেন। আমি সংবাদমাধ্যমে দেখেছি। তবুও এটা দেশের ব্যাপার, আমি (তাই কিছু) বলছি না। তবুও (আমার প্রতি কেন্দ্রের) এত রাগটা কিসের?

আজ বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কলকাতার নেতাজি ইনডোর স্টেডিয়ামে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের বিশেষ অধিবেশনে বক্তব্যকালে তিনি এই মন্তব্য করেন।

এরপর তিনি হিন্দিতে বলেন, বড় লোকেদের এত ভয়ের কী আছে? শিকাগো থেকে আমন্ত্রণ এসেছিল কিন্তু আটকে দিয়েছে, আমাকে যেতে দেওয়া হয়নি। দিল্লির স্টিফেন্স কলেজ থেকে আমন্ত্রণ এসেছিল, আটকে দিয়েছে, যেতে দেওয়া হয়নি। চীন থেকে আমন্ত্রণ এসেছিল, সেখানেও আটকে দেওয়া হয়েছে, যেতে দেওয়া হয়নি। তার অভিমত, বাংলায় ঘুরলেই সারা বিশ্ব ভ্রমণ হয়ে যায়। বাইরে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই।

এর আগে সকালে কলকাতার ধর্মতলায় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর মূর্তিতে মাল্যদান করেন মমতা। সে সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরেও তাকে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার আমন্ত্রণ না জানানোয় কেন্দ্র সরকারের প্রতি ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটান মমতা। তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তো এই কয়দিন ছিলেন। কিন্তু আমাদের কাউকে তো বলেনি। আজকে পর্যন্ত তো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী থাকার কথা।

উল্লেখ্য, চার দিনের ভারত সফরে গত সোমবার দিল্লিতে এসে পৌঁছান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনার এই সফরে একাধিক চুক্তি ও সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে।

এমকে

Source link