free hit counter
আন্তর্জাতিক

রানির মৃত্যু, যা কিছু বদলাবে যুক্তরাজ্যে

রানি এলিজাবেথ

সাত দশক রাজত্বে থাকার পর বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) ৯৬ বছর বয়সে মারা গেছেন ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। সেই সঙ্গে শেষ হয়েছে ইতিহাসের এক দীর্ঘ অধ্যায়ের। বিভিন্ন প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, রানির শেষকৃত্যানুষ্ঠান এবং পরবর্তীতে রাজা তৃতীয় চার্লসের রাজ্যাভিষেক প্রক্রিয়ায় আলাদা আলাদাভাবে আনুমানিক ছয় বিলিয়ন পাউন্ড খরচ হবে। কিন্তু এছাড়াও, রানির মৃত্যুতে ব্রিটেনে প্রাতিষ্ঠানিক খাতে যেসব পরিবর্তন আনতে হবে তা সহজেই এই ব্যয়কে ছাড়িয়ে যাবে।

১৯৫২ সালে ব্রিটিশ সিংহাসনে বসার পর থেকে বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত নারী হিসেবে পরিচিত হন রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। এতদিন দেশের কয়েন-নোট, স্ট্যাম্পে রানির প্রতিকৃতি এবং পোস্ট বক্স, ইউনিফর্ম ও সারা দেশে সরকারি প্রতীকগুলোতে রানির নামের আদ্যক্ষর অলংকৃত ছিল। তাই রানির মৃত্যুর পর এই সবকিছু পরিবর্তন করতে বহু বছর সময় লাগবে। চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক রানির মৃত্যুতে ব্রিটেনে কী কী বিষয়ে পরিবর্তন আনতে হবে।

পতাকা
যুক্তরাজ্যে ছড়িয়ে থাকা পুলিশ স্টেশনগুলো থেকে শুরু করে নৌবাহিনীর জাহাজে হাজার হাজার পতাকা বদলে ফেলতে হবে। ‘কুইন্স কালার্স’ পতাকা ব্যবহার করে দেশটির সামরিক রেজিমেন্ট, ফায়ার সার্ভিসের পতাকায় রয়েছে রানির আদ্যক্ষর, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও নিউজিল্যান্ডসহ যেসব দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ছিলেন রানি এলিজাবেথ সেসব দেশের পতাকাকে ‘ই ফ্ল্যাগস’ বলা হয়, এসব পরিবর্তন করা হবে। বদলাতে পারে রাজপ্রাসাদের পতাকাও। রানি এলিজাবেথ যে পতাকা ব্যবহার করতেন তাতে প্রতীকীভাবে স্কটল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসকে তুলে ধরা হয়েছে। এটি তৈরি করা হয়েছিল ওয়েলস নিজেদের পতাকা পাওয়ার আগেই। ১৯৫৯ সালে ওয়েলস নিজেদের পতাকা পায়। এতে পরিবর্তন আনতে পারেন নতুন রাজা।

ব্যাংক নোট ও মুদ্রা
বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা প্রায় ৪.৫ বিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড স্টার্লিং ব্যাংক নোটে রানি এলিজাবেথের মুখ ছাপা রয়েছে। এগুলোর মূল্যমান ৮০ বিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড। নতুন রাজার ছবিযুক্ত ব্যাংক নোট দিয়ে এগুলো স্থলাভিষিক্ত করতে অন্তত দুই বছর সময় লাগতে পারে। সর্বশেষ ৫০ পাউন্ডের সিনথেটিক নোট ছাপার প্রক্রিয়ার সম্পন্ন হতে সময় লেগেছিল ১৬ মাস।
কানাডার ২০ ডলারের নোট, নিউজিল্যান্ডের মুদ্রায় রানির ছবি রয়েছে। এছাড়া ইস্টার্ন ক্যারিবিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইস্যু করা সব মুদ্রা ও নোটে রয়েছে রানির ছবি। কমনওয়েলথভুক্ত কয়েকটি দেশের মুদ্রাতেও রয়েছে রানির ছবি।
ইতিহাসের ধারা মেনে চললে মুদ্রায় পরিবর্তন আসবে ধীরগতিতে।

জাতীয় সংগীত
তাত্ত্বিকভাবে সবচেয়ে সহজবোধ্য পরিবর্তন আসতে পারে জাতীয় সংগীতের কথায়। ‘গড সেভ আওয়ার গ্রেসিয়াস কুইন’ এর বদলে হতে পারে ‘গড সেভ আওয়ার গ্রেসিয়াস কিং’। বড় পরিসরে বা জমায়েতে সাবলীলভাবে নতুন জাতীয় সংগীত গাওয়া আত্মস্থ করতে হয়তো কিছু সময় লাগতে পারে। ১৭৪৫ সাল থেকে এই জাতীয় সংগীত গাওয়া হচ্ছে। যদিও এর আগের সংস্করণে ছিল ‘গড সেভ গ্রেট জর্জ আওয়ার কিং, লং লিভ আওয়ার নোবেল কিং, গড সেভ দ্য কিং’।

প্রার্থনা
রানি এলিজাবেথ ছিলেন চার্চ অব ইংল্যান্ডের ‘ডিফেন্ডার অব দ্য ফেইথ অ্যান্ড সুপ্রিম গভর্নর’ (ধর্মের রক্ষাকারী ও সর্বোচ্চ গভর্নর)। ‘বুক অব কমন প্রেয়ার’-এ যে কথাগুলো আছে সেগুলোতে রানির কথা বলা হয়েছে। প্রার্থনায় বলা হয়, ‘তাকে আপনার পবিত্র আত্মার অনুগ্রহে পূর্ণ করুন, যাতে সে সর্বদা আপনার ইচ্ছার প্রতি ঝুঁকে থাকে এবং আপনার পথে চলতে পারে’। নতুন রাজার জন্য প্রার্থনায় তাই পরিবর্তন আসবে। এটি আইন করে বা রাজ ডিক্রি জারির মাধ্যমে করা হতে পারে। সর্বশেষ রাজমাতার মৃত্যুর পর পরিবর্তন করা হয়েছিল। সাময়িক সময়ের জন্য যাজকরা প্রার্থনায় পরিবর্তন আনতে পারেন। ফলে রবিবারের প্রার্থনায় সাধারণভাবে যা বলা হয় তাতে নতুন রক্ষাকারীর নাম সহজে অন্তর্ভুক্ত করা যাবে।

র‍য়্যাল আর্মস
গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের মধ্যে থাকবে রয়্যাল আর্মস। এতে একটি সিংহ ও ঢালের বিরুদ্ধে আক্রমণে উদ্যত ইউনিকর্ন রয়েছে। সরকারি চত্বর এবং স্টেশনারিতে এটি ব্যাপক ব্যবহার রয়েছে। এগুলোর পরিবর্তন ব্যয়বহুল। তবু এগুলোর পরিবর্তন করা প্রয়োজন হতে পারে।

রয়্যাল ওয়ারেন্ট
রয়্যাল ওয়ারেন্টেও আসবে পরিবর্তন। ত্রিনিদাদ ও টোবাগো থেকে শুরু সাসেস্কের ৬ শতাধিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান রয়্যাল ওয়ারেন্ট ব্যবহার করে। মূলত রাজপরিবারের পণ্য সরবরাহে নিয়োজিতদের ক্ষেত্রে এটি কাজে লাগে। রানির মৃত্যুতে এসব প্রতিষ্ঠানের চুক্তি বাতিল হতে পারে। অবশ্য নতুন রাজা চাইলে বহাল রাখতে পারেন। এতে অবশ্য সময় লাগতে পারে। প্রিন্স ফিলিপ মারা যাওয়ার পর তার সরবরাহকারীদের দুই বছর সময় দেওয়া হয়েছিল।

বদলে ফেলা হতে পারে ডাকবাক্সে থাকা রানির প্রতীক।

ডাকবাক্স ও ডাকটিকিট
রয়্যাল মেইলের ডাকবাক্সগুলোতে রানি এলিজাবেথের রাজকীয় সংকেত সংবলিত প্রতীক (সাইফার) রয়েছে। এই প্রতীক বদলে ফেলা হতে পারে। অবশ্য মৃত্যুর ৭০ বছর পরও রাজা ষষ্ঠ জর্জের কিছু সাইফার এখনও ব্যবহৃত হয়। ডাকটিকিটে পরিবর্তন আনবে ডাকঘর। নতুন ডাকটিকিটে রাজার ছবি ব্যবহার করা হবে।

আনুগত্যের অঙ্গীকার
রাজমুকুটের প্রতি আনুগত্যের অঙ্গীকার ছাড়া ব্রিটিশ এমপিরা হাউজ অব কমন্স, বিতর্কে অংশগ্রহণ, ভোট বা বেতন পান না। ১৯৫২ সাল থেকে আনুগত্যের অঙ্গীকারে ‘মহামান্য রানি এলিজাবেথ’-এর প্রতি আনুগত্যের কথা বলা হয়েছে। এখন নতুন এমপিরা নতুন রাজা ও তার উত্তরাধিকারীদের প্রতি আনুগত্য জানাবেন।

কমনওয়েলথ

কমনওয়েলথভুক্ত ১৪টি দেশ রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। অনেক ক্ষেত্রে সাংবিধানিকভাবে রানিকে রাষ্ট্রের প্রধান হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। এসব দেশের সংবিধান পরিবর্তন করে রানির স্থলে নতুন রাজাকে রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে ঘোষণা করতে হবে।

পাপুয়া নিউগিনি, সলোমন আইল্যান্ডস, তুভালু, অ্যান্টিগা ও বারমুডা, বাহামা, গ্রেনাডা, সেন্ট কিটস ও নেভিস, সেন্ট লুসিয়া ও সেন্ট ভিনসেন্ট যদি তাদের সংবিধান পরিবর্তন না করে তাহলে রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে থেকে যাবেন প্রয়াত রানি।

সাংবিধানিক রাজতন্ত্র থাকা অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও নিউজিল্যান্ডে আইন রয়েছে, যাতে নতুন ব্রিটিশ রাজা স্বয়ংক্রিয়ভাবে রাষ্ট্রপ্রধান হয়ে যাবেন।

এনজে

Source link