free hit counter
আন্তর্জাতিক

মাঝ আকাশে ১৮৫ যাত্রীবাহী উড়োজাহাজে আগুন

১৮৫ জন যাত্রী নিয়ে ভারতের দিল্লিগামী স্পাইসজেটের একটি উড়োজাহাজে উড্ডয়নের পর আগুন ধরে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে উড়োজাহাজটি পাটনায় জরুরি অবতরণ করেছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। স্থানীয়দের ধারণ করা ভিডিওতে দেখা গেছে, উড়োজাহাজটির বাম ইঞ্জিন থেকে স্ফুলিঙ্গ বের হচ্ছে। কর্মকর্তারা আরও জানান, সব যাত্রীকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে এবং কেউ আহত হয়নি।

ভারতের বিমান চলাচল নিয়ন্ত্রক সংস্থা ডিজিসিএ সূত্রের বরাত দিয়ে এনডিটিভি জানায়, উড়োজাহাজটি উড্ডয়নের সময় পাখির আঘাত লাগে বলে ধারণা করছেন পাইলটরা। তবে কোনো অস্বাভাবিকতা ধরা না পড়ায় বিমানটি উঠতে থাকে।

স্পাইসজেটের ফ্লাইট অপারেশনের প্রধান ক্যাপ্টেন গুরচরণ অরোরা এনডিটিভিকে বলেন, সরাসরি ইঞ্জিনে পাখির ধাক্কা লেগেছিল। তিনটি ফ্যানের ব্লেড ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর ফলে ধোঁয়া ও আগুনের সূত্রপাত ঘটে। কিন্তু ককপিটে এর কোনো সংকেত পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে পাইলটরা নিয়ম অনুযায়ী ইঞ্জিন বন্ধ করে দেন এবং জরুরি অবতরণের অনুরোধ জানান।

ক্যাপ্টেন অরোরা এটিকে ‘অবাক হওয়ার মতো ঘটনা’ বলতে অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, প্রতি বছর সারা বিশ্বে এ ধরনের কয়েকটি ঘটনা ঘটে। ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য পাইলটদের প্রশংসা করেন তিনি।

স্পাইসজেটের একজন মুখপাত্র বলেন, স্পাইসজেটের পাটনা-দিল্লি ফ্লাইটে উড্ডয়নের পরে ইঞ্জিন-১-এ আঘাত করে পাখিরা৷ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে ফ্লাইট ক্যাপ্টেন ক্ষতিগ্রস্ত ইঞ্জিন বন্ধ করে পাটনায় ফিরে আসেন। পরবর্তীতে তদন্ত করে দেখা যায় পাখির আঘাতে তিনটি ফ্যানের ব্লেড ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

কয়েকজন যাত্রী বলেন, অবতরণের পরপরই ভেতরে বিমানটিতে কম্পন অনুভূত হয় এবং লাইটগুলো বন্ধ হতে শুরু করে।

পাটনা বিমানবন্দরের পরিচালক বলেন, স্পাইসজেটের ওই যাত্রীদের জন্য একটি বিকল্প ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোনো যাত্রী আহত হননি। বিকল্প বিমানে তাদের দিল্লি যাওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কী কারণে আগুন লেগেছে তা তদন্তের বিষয়।