free hit counter
আন্তর্জাতিক

ভাড়াটে যোদ্ধারা রাশিয়ার প্রধান লক্ষ্য!

ছবি: সংগৃহীত

রাশিয়ার নিরাপত্তা পরিষদের সচিব নিকোলাই পাতরুসেভ বলেছেন, ‘ইউক্রেনকে যেসব মারণাস্ত্র সরবরাহ করা হচ্ছে এবং কিয়েভের পক্ষে যেসব বিদেশি ভাড়াটে যোদ্ধা লড়ছেন, তারা রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর লক্ষ্যবস্তু হিসেবে অগ্রাধিকারে থাকবেন।’

রুশ বার্তা সংস্থা আরআইএ নভোস্তির বরাত দিয়ে আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) রাশিয়ার ব্রিয়ানস্ক শহরে এক বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন। মধ্য রাশিয়ায় নিরাপত্তাসংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ওই বৈঠকে আলোচনা করা হয়।

এদিকে ভাড়াটে যোদ্ধা সরবরাহকারী বেসরকারি রুশ প্রতিষ্ঠান ওয়াগনার গ্রুপের সদস্য ইয়েভজেনি নুজহিনকে হত্যার খবর গত সেপ্টেম্বরে সামনে আসে। তবে ওয়াগনার গ্রুপ জানিয়েছে, নিজ সদস্যদের হত্যার পেছনে তাদের কোনো হাত নেই।

তবে এর আগে গত রোববার অবশ্য ইয়েভজেনি নুজহিনকে হত্যার বিষয়ে ভিন্ন সুরে কথা বলেছিলেন ওয়াগনার গ্রুপের প্রধান ইয়েভজেনি প্রিগোঝিন। তিনি এই হত্যাকাণ্ডকে ‘চমৎকার একটি কাজ’ আখ্যায়িত করে বলেন, ‘একটি কুকুরের মৃত্যু কুকুরের মতোই হওয়া উচিত।’

তবে আজ প্রকাশিত একটি বিবৃতিতে ওই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নিজেদের জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন প্রিগোঝিন। তিনি বরং যুক্তরাষ্ট্রের দিকে আঙুল তুলে বলেন, ‘এ ধরনের কাজ যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো করে থাকে। তারা বিশ্বের সব জায়গায় লোকজনকে অপহরণ করে। রুশ নাগরিকেরাও বাদ পড়ে না।’

প্রসঙ্গত, ওয়াগনার গ্রুপের আত্মপ্রকাশ হয় ২০১৪ সালে, পূর্ব ইউক্রেনে। সে সময় দেশটির ডনবাস অঞ্চলে মস্কোপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদী ও ইউক্রেনীয় সেনাদের মধ্যে লড়াই শুরু হয়েছিল। এরপর থেকে সিরিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে লড়াইয়ে অংশ নিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির যোদ্ধারা।

এমকেএইচ

Source link

Bednet steunen 2023