free hit counter
আন্তর্জাতিক

দক্ষ শ্রমিক নেবে দক্ষিণ কোরিয়া, সংশোধন করছে ইপিএস সিস্টেম

বিদেশ থেকে উচ্চ-দক্ষতা সম্পন্ন আরও শ্রমিক নিতে চায় দক্ষিণ কোরিয়া। আর বিদেশি শ্রমিকদের আকৃষ্ট করার জন্য বর্তমান ইপিএস তথা এমপ্লয়মেন্ট পারমিট সিস্টেম সম্পূর্ণ সংশোধন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। দেশটিতে ক্রমহ্রাসমান জনসংখ্যা সমস্যা মোকাবিলা ও অর্থনীতির ভিত্তি আরও মজবুত করার লক্ষ্যে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) প্রেসিডেন্ট ইওন সুক-ইওল প্রশাসনের অর্থ মন্ত্রনালয়ের অধীনে একটি বৈঠকে এ পদক্ষেপের কথা জানানো হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্যসূত্রে জানা যায়, বিশেষ দক্ষতার বিদেশি পেশাজীবীদের জন্য জারি করা ই-৭ ভিসা, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান খাতে উচ্চ-দক্ষতা সম্পন্ন কর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এই ক্যাটাগরি আরও বৃদ্ধি করা হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম দ্য কোরিয়া টাইমস জানিয়েছে, বর্তমানে ই-৭ ভিসা শুধুমাত্র ৮৬টি পেশার সঙ্গে সম্পৃক্ত। যদিও এই ৮৬টি ক্যাটাগরি বহাল থাকবে। তবে ই-৭ ভিসা আরও উচ্চ-প্রযুক্তি শিল্পের বিভিন্ন পেশাদারদের জন্য অনুমোদন করা হবে।

আরও পড়ুন: ১৭০০ কর্মীকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাচ্ছে সৌদি কোম্পানি

এছাড়া সরকার বিদেশি কর্মীদের ভিসার ক্ষেত্রে বেতন স্তর কমানোর পরিকল্পনা করছে। যাতে ছোট আকারের কোম্পানিগুলো আরও কার্যকরভাবে দক্ষ বিদেশি কর্মী নিয়োগ করতে পারে। বর্তমান ভিসা ব্যবস্থা নিয়ে প্রায়ই সমালোচনা হয়। কারণ বর্তমান বেতন স্তর ছোট আকারের কোম্পানিগুলোর জন্য বোঝা হয়ে যায়। শুধুমাত্র বড় কোম্পানিগুলিই এত উচ্চ বেতন দিতে পারে।

এছাড়াও সরকার আঞ্চলিক উন্নয়নের প্রসার ও বিদেশিকর্মীদের এ ধরনের অঞ্চলে বসতি স্থাপনের জন্য উত্সাহিত করার বিশেষ উদ্দেশে একটি নতুন ভিসা চালু করার পরিকল্পনা করেছে। আঞ্চলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অধ্যয়নরত বিদেশি ছাত্রদের ভিসা দেওয়া হবে। দীর্ঘমেয়াদে অ-পেশাদার বিদেশি কর্মীর জন্য ভিসা কোটা বৃদ্ধিরও লক্ষ্য রয়েছে সরকারের।

ভিসা ব্যবস্থায় ধারাবাহিক পরিবর্তনগুলি হলে দেশের অর্থনৈতিকভাবে মজবুত হবে। বিদেশি যোগ্য কর্মীদের আকৃষ্ট করার মাধ্যমে করোনার পরবর্তী ধকল কাটিয়ে দেশের অর্থনীতি চাঙা করা বলে মনে করছেন দেশটির অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা।

আরও পড়ুন: সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসছে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স

সরকারের এক কর্মকর্তা বলেছেন, কোরিয়াতে অর্থনৈতিকভাবে সক্রিয় জনসংখ্যা ক্রমাগতভাবে হ্রাস পাচ্ছে। দেশের জ্যেষ্ঠ নাগরিক, নারী ও বিদেশিকর্মীর মধ্য থেকে দক্ষ কর্মচারীদের নিয়ে এ তিন শ্রেণির কর্মীদের নিয়ে সমস্যাটি সমাধান করার পরিকল্পনা করছে সরকার।

নতুন ভিসা নীতির সুনির্দিষ্ট বিবরণ, বিদেশি নাগরিকত্বের বাসিন্দাদের জন্য সরকারের নতুন নীতির বিস্তারিত জানা যাবে এ বছরের দ্বিতীয়ার্ধে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগামী পাঁচ বছরের জন্য পাঁচটি খাতে কাঠামোগত সংস্কার করা হবে। খাতগুলো হচ্ছে, আর্থিক বিষয় ও পেনশন, শ্রম, শিক্ষা, অর্থ ও পরিষেবা