free hit counter
আন্তর্জাতিক

জি-২০ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র-চীন মুখোমুখি

বাইডেন ও সি চিন পিং। ছবি: বিবিসির

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর বিশ্ব পরিস্থিতি বদলে গেছে। এই যুদ্ধের প্রভাবে বড় বড় দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানরা মুখ দেখাদেখিও বন্ধ করে দিয়েছেন, এমনটাই ভিন্ন ভিন্ন সময় দেখা গেছে। তবে এবারই প্রথম রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতির মধ্যে মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং।

১৪ থেকে ১৬ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ায় অনুষ্ঠেয় জি-২০ সম্মেলনে যোগ দেবেন এই পরাশক্তি দেশ দুটির রাষ্ট্রনায়করা। বাইডেন প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। খবর-বিবিসির।

এই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, জি-২০ সম্মেলনে সি চিন পিংয়ের সঙ্গে মুখোমুখি হবার পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েছেন জো বাইডেন। সেখানে তাইওয়ান প্রসঙ্গ তুলবেন প্রেসিডেন্ট। এছাড়া মিত্রদের সঙ্গে ইউক্রেনে হামলা চালানোর জন্য রাশিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ নিয়েও কথা বলবেন তিনি। আলোচনায় উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণের বিষয়টিও থাকবে।

মধ্যবর্তী নির্বাচনে আশাতীত ভালো ফল করে উজ্জীবিত বাইডেন সপ্তাহখানিকের জন্য জলবায়ু সম্মেলন, আসিয়ান সম্মেলন ও জি-২০ সম্মেলনে যোগ দিতে মিসর ও এশিয়া সফর শুরু করেছেন।

বৃহস্পতিবার তিনি মিসরের উদ্দেশে রওনা হন। এ সফরে পররাষ্ট্রনীতির বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা চালাবেন তিনি। ১৪ থেকে ১৬ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে জি-২০ সম্মেলন।

এশিয়া সফরের আগে যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তার লক্ষ্য হচ্ছে সি চিন পিংয়ের অগ্রাধিকার ও উদ্বেগের বিষয়গুলো গভীরভাবে বোঝা। ইন্দোনেশিয়ার বালিতে জি-২০ সম্মেলনের এক ফাঁকে তারা একান্তে কথা বলবেন। তিনি বলেন, সি চিন পিংকে তিনি প্রত্যেকের ‘রেড লাইন’ কত দূর, তা জানিয়ে দেবেন। যুক্তরাষ্ট্র ও চীন যাতে পরস্পরের সঙ্গে সংঘর্ষে না জড়ায়, সে জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের স্বার্থের বিষয়গুলো নিয়ে তারা কথা বলবেন।

জলবায়ু সম্মেলনে আজ বাইডেন যোগ দেবেন

মিসরে চলছে বিশ্ব জলবায়ু সম্মেলন (কপ–২৭)। শুক্রবার (১১ নভেম্বর) যোগ দেবেন বাইডেন। এ ছাড়া তিনি ১২ ও ১৩ নভেম্বর কম্বোডিয়ায় আসিয়ানের সম্মেলন ও পূর্ব এশিয়া সম্মেলনেও যোগ দেবেন। গতকাল জলবায়ু সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের নেতারা ভবিষ্যৎ জলবায়ু অর্থায়ন নিয়ে আলোচনা করেন। এতে অর্থায়ন নিয়ে মতভেদ দেখা দেয়। এর আগে গত বুধবার সম্মেলনে মালদ্বীপের কর্মকর্তা বলেছেন, ‘আমাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে, “অর্থায়ন” অবশ্যই অনুদানভিত্তিক ও সহজলভ্য হতে হবে।’

জি-২০ সম্মেলনে সশরীরে যোগ দিচ্ছেন না পুতিন

এবারের জি-২০ সম্মেলনে সশরীর আসবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন পুতিন। তবে তিনি ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত থাকবেন এই রুশ নেতা। ইন্দোনেশিয়ার পক্ষ থেকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তিনি বলেছিলেন, পুতিন গেলে তিনি যাবেন না। তিনিও ভার্চ্যুয়ালি যোগ দিতে পারেন।

এমকে

Source link

Bednet steunen 2023