কাশ্মিরের শ্রীনগরের জবরওয়ান এলাকার গোপী তীর্থ মন্দির। গত ৬ বছর ধরে মন্দিরটি চলছে আহমেদ আলি ও নিসার আহমেদের তত্ত্বাবধানে। বৃদ্ধ বাবা আর ছেলে। দু’জন যত্ন করে হিন্দুদের এই মন্দিরটি রক্ষা করে চলেছে। আর তাদের অনেক স্থানীয় বাসিন্দাই এগিয়ে এসেছেন মন্দিরের কাজে। স্থানীয়দের বিশ্বাস, শিব মন্দিরটি গড়ে উঠেছে কাশ্মীরের ভ্রাতৃত্বের চিহ্ন হিসেবে।

প্রতিদিন সকালে বৃদ্ধ আহমেদ আলি তার ছেলে নিসারকে সঙ্গে নিয়ে চলে যান গোপী তীর্থ মন্দিরে। মন্দির চত্বর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে পূজোর জন্য প্রস্তুত করে দেন।

জবরওয়ানের বাসিন্দা ফিরদৌস বলেন, “বৃদ্ধ আহমেদ আলি ও তার ছেলে বহুদিন ধরে এই মন্দিরের কেয়ারটেকার হিসেবে কাজ করে চলেছেন। এটা আসলে কাশ্মিরবাসীর মধ্যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধনের প্রতীক আর তার দেখভাল করা আমাদের নৈতিক কর্তব্য।”

আরেক বাসিন্দা উমরের কথায়, “কাশ্মিরে এমন অনেক হিন্দু মন্দিরই আছে, যার দেখভাল করেন মুসলিম বাসিন্দারা। এটাই উপত্যকার আসল ছবি।”

কখনও যদি আহমেদ আলি ও নিসার মন্দিরটির দেখভাল করতে না পারেন, তাহলে এলাকার অন্যরা মন্দিরের দায়িত্ব নেন। এভাবেই গোপী তীর্থ মন্দিরের পুজোআচ্চা চলছে নিয়মিত। বজায় রয়েছে শান্তিও। এই ছবি হয়ত নতুন নয়। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে যেখানে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের পোশাক নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে, সেখানে আহমেদ পিতা-পুত্রের কাহিনী সম্প্রীতির প্রকৃত ছবি হয়েই উঠে আসে। দেখায় আশার আলো।

Related posts

অস্ট্রেলিয়ায় সাইবার হামলা, কোটি মানুষের তথ্য চুরি

News Desk

‘অক্সিজেন সংকটে’ দিল্লির হাসপাতালে ২০ করোনা রোগীর মৃত্যু

News Desk

ইসলামাবাদে জনসভায় ২০ লাখ লোক জড়ো করতে চান ইমরান

News Desk

Leave a Comment