free hit counter
আন্তর্জাতিক

ইউক্রেন সংকট: শান্তি আলোচনায় ভারত

ইউক্রেন সংকট

নির্বাচনকে সামনে রেখে গত সপ্তাহে ওয়াশিংটন পোস্ট মার্কিন প্রশাসনের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সূত্রের বরাত দিয়ে হঠাৎ করেই পানি ঢেলে দিল ইউক্রেনের উত্তেজনায়। যদিও আন্তর্জাতিক গবেষকরা টের পাচ্ছিলেন ভেতরে ভেতরে মার্কিন-রাশিয়া আলোচনার পর্বটি বেশ গুছিয়ে আনা হয়েছিল। বিশেষ করে তুরস্ক প্রকাশ্যেই এই মধ্যস্থতায় কাজ করছিল। ফ্রান্স ন্যাটোর হয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে অংশ নিলেও অভ্যন্তরীণ চাপের কথা বলে বেশ নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখছিল।

ইতালি হাঙ্গেরিসহ অনেকগুলো ইইউভুক্ত দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার বিপরীতে আগেই অবস্থান নিয়েছিল। সবশেষ জার্মানির চ্যান্সেলর গত সপ্তাহে মার্কিন আপত্তি অমান্য করে চীন সফরের সময় পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল ভেতরে মার্কিন আয়োজনে প্রতিবন্ধকতা বেশ পোক্ত হয়েছে। ওয়াশিংটন পোস্টের প্রতিবেদন ছাপা হওয়ার পর সবকিছু খোলামেলা হয়ে গেছে ইউক্রেনের কাছে। আর তাই তো খেরসনে রাশিয়ার ফাঁদে পড়া সত্ত্বেও শর্তসাপেক্ষে আলোচনায় রাজি বলে বিবৃতি দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট। গতকাল ন্যাটো যখন বলল, জেলেনস্কিকে আলোচনার জন্য প্রস্তুত হতে- ঠিক তার আগেই রাশিয়ার মুখপাত্র জানিয়ে দিলেন, ভারতকে তারা মধ্যস্থতায় চান। এর আগে গত ৬ নভেম্বর ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাশিয়া সফর করেন।

নেপথ্যের আলোচনা সামনে: মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান সা¤প্রতিক মাসগুলোতে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতির সহযোগী ইউরি উশাকভ ও নিরাপত্তা পরিষদের সচিব নিকোলে পাত্রæশেভসহ সিনিয়র রুশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে ব্যক্তিগত আলোচনা করেছেন। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল লিখেছে, সুলিভান ইউক্রেনের ওপর বৃহত্তর সংঘাতের ঝুঁকি কমাতে এবং পারমাণবিক অস্ত্র বা গণবিধ্বংসী অন্যান্য অস্ত্র ব্যবহারের বিরুদ্ধে মস্কোকে সতর্ক করার চেষ্টা করছেন। এ কারণেই তিনি ইউক্রেনের সঙ্গেও আলোচনা করছেন। শুধু তাই নয়, দুই পরাশক্তির মধ্যে গোপন যোগাযোগের একটা চ্যানেল রাখাও গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন তিনি। ৪ নভেম্বর তিনি কিয়েভে একটি অঘোষিত সফর করেন, যেখানে ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির জেলেনস্কি এবং তার অফিসের প্রধান আন্দ্রে ইয়ারমাকের সঙ্গে দেখা করেন। সংবাদপত্রের মতে, মার্কিন প্রতিনিধি সংঘাত সমাধানে তাদের ইচ্ছার ইঙ্গিত দেয়ার জন্যই আহ্বান জানিয়েছেন।

রেড লাইন: এইচএসই ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর কমপ্রিহেনসিভ ইউরোপিয়ান এন্ড ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের ডেপুটি ডিরেক্টর দিমিত্রি সুসলোভের মতে, তিনি বিশ্বাস করেন, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে, রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উভয়েই বেশ কয়েকটি হুমকি উপলব্ধি করার পথে রয়েছে। মোটামুটিভাবে বলতে গেলে, তারা সবাই রেড লাইন অতিক্রম না করার পথেই রয়েছে।

সমঝোতা আলোচনায় ভারত: ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রহ্মণ্যম জয়শঙ্কর মঙ্গলবার মস্কোতে সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। রাশিয়ান একটি পত্রিকা নেজাভিসিমায়া গেজেটা বলছে, ইউক্রেনের সংঘাতে ভারত শান্তিরক্ষকের ভূমিকা নেবে কিনা তা নিয়ে বিশ্ববাসীর আগ্রহ রয়েছে। নেজাভিসিমায়া অনুসারে, রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সুসম্পর্ক থাকায় সম্ভাব্য যুদ্ধবিরতি বা শান্তিচুক্তির মধ্যস্থতাকারী হিসেবে ভারত একটি সুবিধাজনক অবস্থায় রয়েছে।

একই সঙ্গে নিউইয়র্ক টাইমস দাবি করেছে, ভারত একটি সম্ভাব্য বিপর্যয়ের সম্ভাবনা কমাতে পর্দার আড়ালে কূটনীতিকে উৎসাহিত করে যাচ্ছে। বিশেষ করে, ভারত দরিদ্র দেশগুলোতে কৃষি পণ্য এবং সার সরবরাহের বিষয়ে ইউক্রেনের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর জন্য মস্কোকে রাজি করিয়েছে। আন্তর্জাতিক ফোরামে রাশিয়ার সমালোচনা করতে অস্বীকার করে ভারত জাতিসংঘে একটি কূটনৈতিক নিষ্পত্তির আহ্বান জানিয়ে নিরপেক্ষ অবস্থান বজায় রেখেছে। এর আগে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ মোদির সঙ্গে আলোচনার কথা তুলে ধরে বলেন, ভারতকে উভয় পক্ষের অ্যাক্সেসসহ একটি সম্ভাব্য শান্তিরক্ষকের উদ্যোগ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

রুশ ও মার্কিন প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠকে বসাতে কাজ করছে এমন একটি সূত্র বলেছে, এজন্য একটি উপদেষ্টা কমিশন গঠন করা হচ্ছে। উপদেষ্টা কমিশনের আকার নির্ধারণ করাই প্রধান আলোচ্য বিষয়। ওয়াশিংটন যদি কোনো বাধা সৃষ্টি না করে, তাহলে শিগগিরই পক্ষগুলোর একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে পারে, সূত্র ইজভেস্টিয়াকে জানিয়েছে।

রাশিয়ার ফেডারেশন কাউন্সিল কমিটি ইজভেস্টিয়াকে বলেছে, এখানে ভারতের উপস্থিতি গ্রহণযোগ্য হতে পারে। এবং সেটাই অর্থবহ হবে।

ন্যাটোও বলছে অবশেষে: রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনার জন্য জেলেনস্কিকে প্রস্তুতি নিতে অবশেষে জানিয়েছে ন্যাটোও। অবশেষে, এমন কিছু ঘটেছে যা প্রত্যাশিত ছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান সংবাদমাধ্যমগুলো বেশ কয়েকদিন ধরে রিপোর্ট করছে, রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় ফিরে আসার জন্য ইউক্রেনের ওপর মার্কিন চাপ এসেছে। ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি জেলেনস্কি বলেছেন, তিনি আলোচনার জন্য উন্মুক্ত। এর জন্য বেশ কিছু শর্ত রেখেছেন। এর মধ্যেই গতকাল ন্যাটোর পক্ষ থেকে আলোচনার প্রস্তুতি নিতে আহ্বান জানানো হয়েছে জেলেনস্কিকে।

কিয়েভের নরম অবস্থান: কিয়েভ এবং ওয়াশিংটনের মধ্যে দীর্ঘ আলোচনার পর একটা পরিবর্তন এসেছে। হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভানের ইউক্রেন সফরের সময় সুষ্পষ্টভাবে ইউক্রেনের সুর নরম করে গেছেন।

Source link

Bednet steunen 2023