free hit counter
বিনোদন

বুবলীর ইঙ্গিতপূর্ণ পোস্ট কার উদ্দেশে?

শাকিব খানের সঙ্গে বিয়ে, সন্তান গ্রহণ ইস্যুতে বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনার টেবিলে নায়িকা শবনম বুবলী। স্বামী-সন্তানের খবর তিনি নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ার বদৌলতে প্রকাশ করেছেন। তার পথ অনুসরণ করেছেন শাকিবও। একই ঘটনা ঘটেছিলো, অপু বিশ্বাসের ক্ষেত্রেও। তার সঙ্গেও শাকিবের বিয়ে হয়েছিলো, সন্তান এসেছে পৃথিবীতে। বহু বছর পর টিভি লাইভে এসে হাঁড়ি ভাঙেন নায়িকা।

বিয়ে-সন্তান বিষয়ক তথ্য বিস্ফোরণের পর গত কয়েকদিন কিছুটা চুপ ছিলেন বুবলী। হঠাত বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) তার ফেসবুক পেজে ব্যতিক্রম একটি পোস্ট দেখা গেলো। কাউকে ইঙ্গিত করে পোস্টটি দিয়েছেন তিনি।

বুবলী বলেছেন, ‘আপনি অনেক সিনিয়র একজন ব্যক্তিত্ব আমাদের এই মিডিয়া ইন্ডাস্ট্রিতে এবং আপনার দ্বায়বদ্ধতা অনেক। আপনাকে আমি সম্মান করি কিন্তু যখন কোনও পার্টিকুলার বিষয়ে যেটা একান্তই কারও ব্যক্তিগত, সে বিষয়ে পুরোটা না জেনে কোথাও বিচারকের মত কোনও বিচারমূলক কমেন্ট করেন, তখন আপনার কথার ভঙ্গিমা, শব্দের প্রয়োগ এবং একদিকে পক্ষপাতিত্বমূলক কমেন্টটা শুনলে বুঝতে আর বাকি থাকে না, আপনি সেই বিষয়ে বা যাকে নিয়ে বলছেন, সে ব্যক্তিকে প্রপারলি না জেনেই কমেন্ট করছেন।’

Capture
বুবলীর ফেসবুক পোস্ট
আক্ষেপ প্রকাশ করে বুবলী লিখেছেন, ‘আপনার এরকম আক্রমণাত্মক মনোভাব পোষণ করা কমেন্টটা দেখে অবাক হয়েছি যে, আমরা যাদের অভিভাবক ভাবছি, তারা তাদের সন্তানদের এক চোখে দেখেন না। দু:খজনক! এভাবেই আমরা বড়দের কাছ থেকে শিখি!’

প্রশ্ন হলো, বুবলীর এই তীর কাকে উদ্দেশ্য করে? ধারণা করা হচ্ছে, সাংবাদিক, অভিনেত্রী ও নাট্যকার ফাল্গুনী হামিদকে লক্ষ্য করেই এমন স্ট্যাটাস দিয়েছেন নায়িকা। কারণ বুধবার (১৯ অক্টোবর) এক রেডিও অনুষ্ঠানে গিয়ে শাকিব-বুবলী ইস্যুতে কথা বলেছেন তিনি। সেখানে বুবলীকে উদ্দেশ্য করে ফাল্গুনী হামিদ বলেন, ‘তুমি মাত্র এসেছো। এসেই শাকিবের প্রেমে পড়তে হবে। শাকিব কত বড় তোমার চেয়ে বয়সে। নাম-যশের কারণে তার প্রেমে পড়ে একেবারে তার সন্তান গর্ভে ধারণ করতে হবে।’

শাকিবের উদ্দেশ্যেও মন্তব্য করেছেন এই সাংবাদিক নেতা। বলেছেন, ‘একজন সুপারস্টারের গায়ে মেয়েরা পড়তেই পারে, কিন্তু আমি গ্রহণ করব কেন?’

উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই বুবলী জানিয়েছেন, ২০১৮ সালের ২০ জুলাই শাকিবের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছে। এরপর ২০২০ সালের ২১ মার্চ তিনি সন্তানের মা হয়েছেন। শাকিব-বুবলীর এই ছেলের নাম শেহজাদ খান বীর।

Bednet steunen 2023