free hit counter
পারভীন ববির শেষযাত্রায় হাজির ছিলেন তিন প্রেমিক
বিনোদন

পারভীন ববির শেষযাত্রায় হাজির ছিলেন তিন প্রেমিক

১৯৮০ এর দশকে বলিউডের অতিচর্চিত নায়িকা ছিলেন পারভীন ববি। গ্ল্যামার-অভিনয়ের পাশাপাশি তার ব্যক্তি জীবন বরাবরই পত্রিকার শিরোনাম হতো। এ নায়িকার সঙ্গে নিজের সম্পর্কের কথা আত্মজীবনীতে খোলাখুলি প্রকাশ করলেন অভিনেতা কবীর বেদী। ‘স্টোরিজ আই মাস্ট টেল’ শিরোনামের ওই বইয়ে একাধিক বিয়ে ও সম্পর্কের কথা সামনে এনেছেন বর্ষীয়ান অভিনেতা। সেখানে পারভীন ববির সঙ্গে সম্পর্ক থেকে শুরু করে, মৃত্যুর পর শেষযাত্রায় সঙ্গী হওয়া— বাদ যায়নি কোনো কিছুই।

প্রথম স্ত্রী প্রতিমার সঙ্গে বিবাহিত জীবন চলাকালেই পারভীনের প্রেমে পড়েন কবীর। ‘স্টোরিজ আই মাস্ট টেল’-এ অভিনেতা লেখন, “আমার কারণেই সেই বিয়ে ভাঙে। আমাদের মধ্যে ভালোবাসা হারিয়ে গিয়েছিল, পুরোনো ম্যাজিকটাও খুঁজে পাচ্ছিলাম না।” তখনই কবীর বেদীর জীবনে প্রবেশ করেন পারভীন। কবীরের কথায়, “পারভীনের লম্বা চুল, ফর্সা চেহারা আমার মন কেড়েছিল। যদিও তখন ও ছিল ড্যানি ডেনজংপার বান্ধবী। ওর ছেঁড়া জিন্স, প্রকাশ্যে ধূমপান সবটাই আমাকে মারাত্মক আকৃষ্ট করত।”

ক্যারিয়ারের শেষের দিকে সিজোফ্রেনিয়া নামক মানসিক রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন পারভীন। ততদিন কবীরকে ছেড়ে মহেশ ভাটের সঙ্গে প্রেম করছিলেন তিনি। ১৯৮০ সালে ‘শান’ ছবির শুটিং চলাকালে পারভীন অভিযোগ করেন, অমিতাভ বচ্চন নাকি ঝাড়বাতি ফেলে তাকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন। এই বিস্ফোরক বয়ানে কেঁপে উঠেছিল সিনে ইন্ডাস্ট্রি। চিকিৎসকের কাছে নায়িকাকে নিয়ে যাওয়া হলে জানতে পারা যায়, তিনি মানসিক রোগে আক্রান্ত। যার ফলে, সবসময় মনে করতেন কেউ তাকে মারতে আসছে। পারভীনের এই সমস্যা জানতে পেরে তাকে ছেড়ে চলে যান মহেশ ভাট।

মহেশ ভাট-পারভীন ববি

২০০৫ সালের ২০ জানুয়ারি মারা যান পারভীন। কবীর ‘স্টোরিজ আই মাস্ট টেল’-এ লিখেছেন, “মারা যাওয়ার চারদিন পর জানা যায় পারভীনের মৃত্যুর খবর। ওর জুহুর ফ্ল্যাট থেকেই উদ্ধার হয় দেহ। মৃতদেহ উদ্ধার হলে দেখা যায় একটা পায়ে পচন ধরেছে। একসময়ের সেনসেশনের এভাবে মারা যাওয়া সত্যিই কষ্টের!… শেষযাত্রায় ওর পরিবারের পাশাপাশি হাজির ছিলাম আমি, ড্যানি ও মহেশ, যারা একসময় ওকে ভালোবাসত। আমরা তিনজনই ওকে যতটা জানতাম তা আর কেউ জানত না! তিনজনই নিজের মতো করে ভালোবেসেছি পারভিনকে।”

আরও জানান, তৃতীয় অর্থাৎ বর্তমান স্ত্রী পারভীন দোসাঞ্জকে নাকি নাম বদল করার অনুরোধ করেছিলেন অভিনেতা। অভিনেত্রীর পারভীন ববির সঙ্গে ‘গাঢ়’ ও ‘অস্থির’ সম্পর্ক মনে করেই এ কথা বলেছিলেন। তবে কবীরের তখনকার প্রেমিকা ও বর্তমান স্ত্রী সেই অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। তাই স্ত্রীকে ‘ভি’ বলে ডাকেন।

কবীর পারভীন ববি

কবীরের ভাষ্যে, “আমি বলেছিলাম আমার জীবনে আগে থেকে একটা পারভীন আছে। যদি তুমি কিছু মনে না করো, তুমি কি তোমার নাম বদল করতে পারবে, কারণ মানুষ বিভ্রান্ত হতে পারে। যদিও সে ব্রিটিশ ভঙ্গিমায় উত্তর দিয়েছিল, তোমার সাহস কী করে হয় আমাকে আমার নাম পরিবর্তন করতে বলার জন্য?”

“যখন সবকিছু আরও এগোতে শুরু করল, ও ভারতে আসতেই বুঝতে পারল পারভীন (ববি) আমার জীবনে একটা বড় অংশ জুড়ে ছিল, সবার সামনে আমি ওকে ‘ভি’ বলে ডাকতে শুরু করি। আমার সবচেয়ে দীর্ঘ সম্পর্ক রয়েছে পারভিন (দোসাঞ্জ-এর সঙ্গে। আমরা একসঙ্গে ১৫ বছর ধরে রয়েছি। গত ছয় বছর ধরে বিবাহিত। এবং এটা আমার জীবনের একটা সুন্দর, গুছিয়ে নেওয়ার মতো বিষয়।”

পারভীন ববিকে নিয়ে কবীর বলেন, তিনি ভালোবাসার জন্য একেবার সঠিক মানুষ ছিলেন। তবে সবচেয়ে বড় সমস্যা ছিল ও মানসিক সমস্যায় ভুগছিল। আমার ওর প্রতি যে ভালোবাসার অনুভূতি, তা ছিল অসাধারণ এবং তীব্র। পারভীন ববিকে মানসিক সমস্যায় ভুগতে দেখে আমি নিজেও আবেগের দিক থেকে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম।

Related posts

ছবির পোস্টার নকল! বিপাকে একতা কপুর

News Desk

বাড়ছে করোনার সংক্ৰমণ, বন্ধ হল ‘পাঠান’ এর শ্যুটিং!

News Desk

এবার ইন্দিরা গান্ধী চরিত্রে কঙ্গনা

News Desk