Image default
বিনোদন

দেখছি আর নরকের অতলে নেমে যাচ্ছি : জয়া আহসান

ফিলিস্তিনের গাজা দখলককে কেন্দ্রে করে ইসরায়েলের সামরিক বাহিনীর হামলায় এ পর্যন্ত ২১৮ জন ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। প্রতিদিনই প্রাণ হারাচ্ছেন নিষ্পাপ ফিলিস্তিনিরা। এই হামলায় এখন পর্যন্ত ২১৮ জন ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৬৩ জনই শিশু। বর্বরোচিত এসব হামলার ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। হামলা বন্ধের আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।

জয়া বলেন, ফিলিস্তিনের ছবি দেখছি খবরের কাগজে, টেলিভিশনের পর্দায়। দেখছি আর নরকের অতলে নেমে যাচ্ছি মনে হয়। ভেঙে ঝুরঝুরে হয়ে যাওয়া বাড়িঘর। তার ওপরে ভাসছে পাক খাওয়া আগুন। আর সারিবাঁধা তরতাজা লাশ। একটু আগেই তারা হাসছিল, খাচ্ছিল, শিশুটি নিচ্ছিল মায়ের আদর। যারা বেঁচে আছে, তারা রক্তমাখা। আগুনের লেলিহান শিখার নিচে ছুটোছুটি করছে। নিজের জীবন বাঁচাতে নয়। ধংসস্তুপের ঝাঁঝরা ইঁট সরিয়ে সরিয়ে তারা বের করে আনছে চাপা পড়ে থাকা শিশুদের। ওই কচি বাচ্চাগুলো ডুবে ছিল আলো-বাতাসহীন বিভীষিকার তলায়।

দেখছি আর নরকের অতলে নেমে যাচ্ছি : জয়া আহসানএকটি শিশুকে উদ্ধার করা হলো, ওর পুরো পরিবার পাঁচ মিনিট আগেও মমতায় ঘিরে রেখেছিল ওকে। পৃথিবীতে এখন সে একেবারে একা। ছোট্ট একো খুকি। এখনই তার পরিবার নেই, দেশ তো ছিলই না।

খবরের কাগজে পড়লাম, গত এক সপ্তাহে ইসরায়েলের নির্মম হামলায় ২০০ জনের বেশি ফিলিস্তিনি মারা গেছেন। এর চার ভাগের এক ভাগেরও বেশি নাকি শিশু। এ কোন নরক এই পৃথিবীতে! তাদের অসহায়তা আর হাহাকারে কণ্ঠ বুঁজে আসে।

এই যুদ্ধ থামুক। শিশুরা খেলা করুক রোদেলা মাঠে, খেজুর গাছের নিচে। নিজের দেশে দেশ ছাড়া এই মানুষগুলো নিজেদের এক চিলতে ঘরে ফিরুক। এক জীবনে কি এটা খুব বড় প্রত্যাশা?

Related posts

বক্স অফিসে শাহরুখের ‘জওয়ান’ সুনামি, প্রথম দিনের আয় ১৫০ কোটি ছাড়িয়েছে

News Desk

ঢাকার পর চট্টগ্রামে ‘গোয়িং হোম’

News Desk

নুসরাতের জন্য বিতর্কের মুখে যশ দাশগুপ্ত

News Desk

Leave a Comment