free hit counter
জীবনী

জিয়াউল ফারুক অপূর্বর জীবনী, উচ্চতা, বয়স, ফটো, ফ্যামিলি, দাম্পত্য সঙ্গী, এবং সম্পূর্ণ প্রোফাইল

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব (অপূর্ব নামে পরিচিত) (জন্ম ২৭ জুন) হলেন একজন বাংলাদেশী অভিনেতা ও মডেল। অপূর্ব টেলিভিশন নাটকে অভিনয় দিয়ে তার কর্মজীবন শুরু করেন, ২০১৪ সালে গ্যাংস্টার রিটার্নস চলচ্চিত্র দিয়ে তার বড় পর্দায় অভিষেক হয়। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি সঙ্গীতেরও চর্চা করেন।

২০১৭ সালে তার অভিনীত বড় ছেলে নাটকটি প্রশংসিত হয় এবং তিনি তারকা জরিপে শ্রেষ্ঠ টিভি অভিনেতা বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার লাভ করেন।

অপূর্বর প্রাথমিক জীবন

অপূর্ব ২৭ জুন ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার মা ফিরোজা আহমেদ রাজশাহী বেতারের একজন শিল্পী ছিলেন। তার নানা রাজশাহী বেতারের একজন উপস্থাপক ছিলেন। বাল্যকাল থেকেই অপূর্বর শোবিজে আগ্রহ ছিল। তিনি ২০০২ সালে “ইউ গট দ্য লুকস” অনুষ্ঠানে “মিঃ বাংলাদেশ” খ্যাতি লাভ করেন।

অপূর্বর কর্মজীবন

অপূর্বর কর্মজীবন শুরু হয় অমিতাভ রেজা চৌধুরী নির্দেশিত নেসক্যাফের বিজ্ঞাপনে মডেলিংয়ের মাধ্যমে। তার ল্যাব এইডের বিজ্ঞাপনও জনপ্রিয়তা লাভ করে।

২০০৬ সালে গাজী রাকায়েত পরিচালিত বৈবাহিক নাটক দিয়ে অভিনয়ে যাত্রা শুরু করেন।

অপূর্ব নিজের প্রযোজনা সংস্থা “এএসআই ক্রিয়েশন লিমিটেড” প্রতিষ্ঠা করেন এবং ২০১২ সালে ব্যাকডেটেড নামক টেলি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন।[১০] তিনি শিহাব শাহীন নির্দেশিত ভালোবাসার চতুষ্কোণ ধারাবাহিক নাটকের শিরোনাম গানে কণ্ঠ দেন।

অপূর্বর চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় আশিকুর রহমান পরিচালিত গ্যাংস্টার রিটার্নস চলচ্চিত্র দিয়ে। ছবিটি ২০১৫ সালে ২৭ নভেম্বর মুক্তি পায়। এছাড়া তিনি মোরশেদুল ইসলামের পরিচালনায় বৃষ্টির দিন শিরোনামের একটি চলচ্চিত্রের অভিনয় করেন, কিন্তু কয়েকদিন চিত্রধারনের কাজ করার পর ছবিটি বাতিল করা হয়।

২০১৮ সালে তিনি মিজানুর রহমান আরিয়ান পরিচালিত প্রথম ধারাবাহিক নাটক গল্পগুলো আমাদের-এ অভিনয় করেন। এই বছর ঈদুল ফিতরে তার অভিনীত শিহাব শাহীন পরিচালিত শেষ পর্যন্ত, হিমি পরিচালিত আনমনে তুমি, মাহিদুল মাহিম পরিচালিত খেয়ালি আমি হেঁয়ালি তুমি, জাকারিয়া শৌখিন পরিচালিত জলসাঘর টেলিভিশন নাটকগুলো প্রচারিত হয়।

অপূর্বর পূর্ণ জীবনী:
পুরো নাম: জিয়াউল ফারুক অপূর্ব
ডাক নাম অপূর্ব
পেশা বাংলাদেশর অভিনেতা ও মডেল
বয়স ৩৪ বছর
জন্মতারিখ ২৭ শে জুলাই, ১৯৮৫
জন্মস্থান ঢাকা, বাংলাদেশ
জাতীয় বাংলাদেশ
রাশিচক্র কর্কটরাশি
জাতি ইসলাম
শহর ঢাকা
ডেবিউ টিভি (বৈবাহিক), ফিল্ম (গ্যাংস্টার রিটার্নস)
পিতা পরিচিত না
মা ফিরোজা আহমেদ
ভাই পরিচিত না
বোন পরিচিত না
সেন্টিমিটারে উচ্চতা ১৭৮ সেন্টিমিটার
মিটার উচ্চতা ১.৭৮ মিটার
ওজন ৭৫ কেজি
শারীরিক পরিমাপ ৪০-৩৪-১৩ ইঞ্চি
বুকের আকার ৪০ ইঞ্চি
কোমরের মাপ ৩৪ ইঞ্চি
বাইসেপ সাইজ ১৩ ইঞ্চি
চোখের রঙ ডার্ক ব্রাউন
চুলের রঙ কালো
বৈবাহিক অবস্থা বিবাহিত
প্রেমিকা পরিচিত না
স্ত্রী নাজিয়া হাসান অদিতি
পুত্র জায়ান ফারুক আয়াশ
শিক্ষাগত যোগ্যতা বিবিএ
বিদ্যালয় পরিচিত না
কলেজ নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি
প্রিয় রঙ কালো
অপূর্বর ব্যক্তিগত জীবন

অপূর্ব ২০১০ সালের ১৮ আগস্ট ভালোবেসে বিয়ে করে মডেল-অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে।অপূর্ব প্রভার প্রাক্তন প্রেমিক রাজিবের সাথে তার সম্পর্কের কথা জানতে পেরে ২০১১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভার সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ করেন। প্রভার সাথে বিবাহবিচ্ছেদের পর অপূর্ব ২০১১ সালের ২১ ডিসেম্বর নাজিয়া হাসান অদিতিকে বিয়ে করেন। অপূর্ব-অদিতি দম্পতির একমাত্র সন্তান জায়ান ফারুক আয়াশ। অদিতির সাথে ১৭ মে ২০২০ তারিখে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। পিতা ও পুত্রের জন্মদিন একই দিনে। তিনি ব্রাজিল ফুটবল দলের সমর্থক।

অপূর্বর চলচ্চিত্রের তালিকা
বছর শিরোনাম ভূমিকা পরিচালক
২০১৫ গ্যাংস্টার রিটার্নস শাওন আশিকুর রহমান

অপূর্বর নাটক টেলিভিশন
বছর নাটক পরিচালক
২০০৬ বৈবাহিক গাজী রাকায়েত
২০০৬ কথা ছিল অন্যরকম চয়নিকা চৌধুরী
২০০৬ মান অভিমান চয়নিকা চৌধুরী
২০০৬ ঘর ছাড়া গাজী রাকায়েত
২০০৬ চোখের বাইরে ফারুক শ্রাবণ
২০০৬ যা কিছু চাই এ জীবনে চয়নিকা চৌধুরী
২০০৬ কথা ছিল চয়নিকা চৌধুরী
২০০৬ মেয়েটির নাম কথা চয়নিকা চৌধুরী
২০০৬ কফি হাউজ
২০০৭ মহানগর ফেরদৌস হাসান
২০০৭ সুরে ও বানীর মালা দিয়ে ফেরদৌস হাসান
২০০৭ যেতে পারি কিন্তু কেন যাবো চয়নিকা চৌধুরী
২০০৭ অস্তিত্ব অনুভবে বিইউ শুভ
২০০৭ চেনা চেনা লাগে বিইউ শুভ
২০০৭ রমিজের আয়না তাহের শিপন
২০০৮ স্বপ্নের নীল পরী চয়নিকা চৌধুরী
২০০৮ ভালোবাসার শুরু চয়নিকা চৌধুরী
২০০৮ খুঁজে পাওয়া চয়নিকা চৌধুরী
২০০৮ এক্স ফ্যাক্টর শিহাব শাহীন
২০০৯ এই শহরে দুজন মানুষ সাজ্জাদ সুমন
২০০৯ খুনসুটিকে দিলাম ছুটি দিতি
২০০৯ এক্স ফ্যাক্টর ২ শিহাব শাহীন
২০১০ সায়াহ্নে চয়নিকা চৌধুরী
২০১০ চোখে আমার তৃষ্ণা চয়নিকা চৌধুরী
২০১০ আলোকের এই ঝর্ণাধারা চয়নিকা চৌধুরী
২০১০ পাখির ডানায় ভোর চয়নিকা চৌধুরী
২০১১ পথ জানা নাই ফখরুল আলম
2012 নূপুর চয়নিকা চৌধুরী
2012 বাসবই ভালো এস এ হক অলিক
2012 ব্যাকডেটেড জিয়াউল ফারুক অপূর্ব
২০১৩ এই মায়া চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ ভালোবাসার চতুষ্কোণ শিহাব শাহীন
২০১৩ ভোর হল দোর খোল চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ অভিমান চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ সময়ের গল্প অসময়ে স্বপ্ন বিইউ শুভ
২০১৩ বিয়ের বয়স বারো ফেরদৌস হাসান
২০১৩ সরিষায় ভূত ফেরদৌস হাসান
২০১৩ উত্তম কুমার-সুচিত্রা সেন চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ অপরাহ্ণ চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ মায়া ঘর চয়নিকা চৌধুরী
২০১৩ অবশেষে অন্যরকম নাহিদ জামান
২০১৪ সুখের ব্যাথা চয়নিকা চৌধুরী
২০১৪ বসন্তে এসো চয়নিকা চৌধুরী
২০১৪ মেঘ মা এস এ হক অলিক
২০১৪ উত্তরের বারান্দায় দখিনের হাওয়া সানি চৌধুরী
২০১৪ যে জলে আগুন জ্বলে নাহিদ জামান
২০১৪ বাইক ম্যান বিইউ শুভ
২০১৪ ব্ল্যাক কফি সাখাওয়াত হোসেন মানিক
২০১৪ আমাকে দিয়ে কিছু হবে না রাশেদ রানা
২০১৪ ইজ ইট ইকুয়াল রাশেদ রানা
২০১৪ রাজা রানীর খেলা কৌশিক শংকর দাস
২০১৪ স্বপ্ন ঘুড়ি চয়নিকা চৌধুরী
২০১৪ বিহ্ববল দিশেহারা সাগর জাহান
২০১৫ বন্যা তোমার জন্য চয়নিকা চৌধুরী
২০১৫ মেহের নিগার
২০১৫ সবার উপরে মা দিতি
২০১৫ বন্ধু তুমি বন্ধু আমার এস এ হক অলিক
২০১৫ ভালোবাসার ফাঁদ কৌশিক শংকর দাস
২০১৫ জোছনায় অজানা পথ চলা মমিনুল হক
২০১৫ এখনো আমি মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৫ লেক ড্রাইভ লেন নজরুল ইসলাম রাজু
২০১৫ লাইফ ইন মেট্রো
২০১৫ দাগ
২০১৫ এয়ারবেন্ডার তানিম রহমান অংশু
২০১৫ মাইজার মেহেদি হাসান জনি
২০১৫ কাঠঠুকরার প্রেম মেহেদি হাসান জনি
২০১৫ রিস্টার্ট
২০১৫ জার্মোফোবিক ম্যান
২০১৫ অপেক্ষার শেষ দিনে মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৫ পয়েন্ট ব্ল্যাংক তানিম রহমান অংশু
২০১৫ আপনার অনুভূতি কি তানিম রহমান অংশু
২০১৫ সেই ছেলেটা মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৫ উৎসর্গ মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৫ ডিস্ক ফরহাদ আহমেদ
২০১৫ ফোর্থ নোট তানিম রহমান অংশু
২০১৫ ফ্যান পেজ মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৫ নিশ্চিত প্রেমের সাতটি উপায় শিহাব শাহীন
২০১৫ মন জানালা নজরুল ইসলাম রাজু
২০১৬ প্রেম তুমি মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৬ এতটা ভালোবাসি তানিম রহমান অংশু
২০১৭ বড় ছেলে মিজানুর রহমান আরিয়ান
২০১৭ ব্যাচ ২৭ – দ্য লাস্ট পেজ
২০১৭ চেয়েছি তোমায়
২০১৭ ইচ্ছে তাই
২০১৭ বলা হলো না
২০১৭ দ্য হিরো
২০১৭ গল্পটা তোমারই
২০১৭ না বলা ডায়রি
২০১৭ জলে তার ছায়া
২০১৭ ওয়ান্স
২০১৮ শেষ পর্যন্তআস্থা
২০২১ ২১ বছর পরে মাহমুদুর রহমান হিমি
২০২১ রুনু ভাই শিহাব শাহীন
২০২১ না হবে না কিছুতেই সোহেল আরমান

অপূর্বর টেলিভিশন অনুষ্ঠান
বছর অনুষ্ঠান উপস্থাপক
২০১৪ লেট নাইট কফি নুসরাত ফারিয়া মাজহার ও আবির

অপূর্বর পুরস্কার ও মনোনয়ন
পুরস্কাত বছর পুরস্কারের বিভাগ মনোনীত কাজ ফলাফল
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার
২০০৯
শ্রেষ্ঠ টিভি অভিনেতা
ইট কাঠের কাঁচা মনোনীত
২০১০ এক্স ফ্যাক্টর মনোনীত
২০১৬ ভালোবাসার পংক্তিমালা মনোনীত
২০১৭ বড় ছেলে বিজয়ী
অপূর্বর সামাজিক মাধ্যম
আয় $5 Million (Approx.)
টুইটার Twitter.com/
ফেসবুক facebook.com/
ইন্সটাগ্রাম Instagram.com/
অপূর্বর পারিবারিক জীবন

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব বাংলাদেশের একজন ফ্যাশনেবল, স্মার্ট, ও জনপ্রিয় মুখ। তিনি বাংলাদেশের একজন খ্যাতনামা অভিনেতা এবং মডেল। তার অভিনয়ের প্রতিভা তাকে ক্যারিয়ার গড়ে দেয়। অভিনয় জগতের পাশাপাশি তিনি একজন ভালো সুরকার। বৈবাহিক নাটক দিয়ে তারা বাংলা চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু। এবং খুব অল্প সময়ের মধ্যে প্রচুর সফলতা অর্জন করে নিয়েছেন। ২০০২ সালে “ইউ গট দ্য লুকস” শোতে তাকে “মি বাংলাদেশ” খ্যাতি লাভ করেন।

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ১৯৮৫ সালের, ২৭ শে জুলাই বাংলাদেশে ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর মা ফিরোজা আহমেদ রাজশাহী বেতারের শিল্পী ছিলেন এবং নানা ছিলেন রাজশাহী বেতারের একজন সুপরিচিত উপস্থাপিকা। তার মা শোবিজ এরিনার একজন ভক্ত ছিলেন। পরিবারের সদস্যরা তাকে বাড়িতে অপু বলে ডাকতেন। অপূর্ব তার শৈশবকাল থেকেই শোবিজ জগতের প্রতি খুব আগ্রহী ছিলেন। অপূর্ব পড়াশুনো বিবিএ ডিগ্রি অর্জন করে নেসক্যাফের বিজ্ঞাপনে মডেলিং শুরু করেন এবং বিজ্ঞাপনও তিনি ভালো জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। অপূর্ব একজন প্রতিভাবান অভিনেতা, যিনি নিজের জনপ্রিয়তাকে ছাপিয়ে যান। তিনি সাধারণত টিভি সিরিয়ালের অভিনেতা এবং গায়ক। অভিনেত্রী তারিনের সাথে অভিনয় করা তার নাটকের বেশিরভাগই সাফল্য পেয়েছে। তিনি একজন সফল টিভি বাণিজ্যিক অভিনেতা। তিনি একের পর এক প্রচুর টিভি সিরিয়াল এবং নাটক করেছেন। তাঁর অভিনয় দক্ষতা এত ভাল এবং প্রতিটি দর্শক তাকে এত পছন্দ করে।

টেলিভিশন নাটক বৈবাহিক (২০০৬) এর মাধ্যমে তিনি ডেবিউ করেন। আর তিনি এখন বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় বাংলা নাটক হিরো। ২০১৭ সালে অপূর্ব একটি নাটক ‘বড় ছেলে’ খুব খ্যাতি পায় এবং ইউটিউবে এক কোটি ভিউ হয়। এবং তিনি নিজের এএসআই ক্রিয়েশন লিমিটেড নামে সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন এবং সেখানে কডেটেড নামক টেলি চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন। ২০১৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবি আশিকুর রহমান পরিচালিত অ্যাকশন বাংলা ফিল্ম গ্যাংস্টার রিটার্নস তার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। অপূর্বও একজন গায়ক এবং তিনি কয়েকটি গানে গেয়েছিলেন। ভালোবাসার চতুষ্কোণ ধারাবাহিক নাটকের তিনি গানের কণ্ঠ দেয়। তাঁর জনপ্রিয় টিভি নাটকগুলি হল কথা ছিল অন্যরকম, মান অভিমান, চোখের বাইরে, যা কিছু চাই এ জীবনে, মেয়েটির নাম কথা, মহানগর, চেনা চেনা লাগে, এক্স ফ্যাক্টর, খুনসুটিকে দিলাম ছুটি, চোখে আমার তৃষ্ণা, অভিমান, অপরাহ্ণ, বসন্তে এসো, ইজ ইট ইকুয়াল, ভালোবাসার ফাঁদ, সেই ছেলেটা, নিশ্চিত প্রেমের সাতটি উপায়, না বলা ডায়রি ইত্যাদি। এছাড়াও অপূর্ব কয়েকটি টিভিসি যেমন নেসক্যাফের, ল্যাব এইডের ভালো পারফরমেন্স করে। বাংলাদেশের অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব দেশের জনপ্রিয় মডেল সাদিয়া জাহান প্রভাকে ২০১০ সালে ১৮ই আগস্ট বিয়ে করেন। তবে তাদের বৈবাহিক সম্পর্ক দীর্ঘস্থায়ী ছিল না।

সাদিয়া জাহান প্রভার প্রাক্তন প্রেমিক রাজিবের সাথে তার অবৈধ সম্পর্ক ছিল। অপূর্ব সেই কথা জানতে পেরে যান। ২০১১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভার সাথে তালাক হয়ে যায়। ২০১১ সালে ২১ ডিসেম্বর তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন নাজিয়া হাসান অদিতিকে। তাদের জায়ান ফারুক আয়াশ নামে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।