free hit counter
জীবনী

কোটি ছাড়াল মডেল নিবিড়ের সংগীতচিত্রের ভিউ

দেশের প্রথম সারির মডেলদের ভেতর শুরুর দিকেই থাকবে নিবিড় আদনানের নাম। মডেলিংয়ের পাশাপাশি অভিনয়টাও তাঁর টানে। তাই তিনি বলেন, ‘আমি পেশার মডেল, নেশার অভিনয়শিল্পী।’ সম্প্রতি একটি মিউজিক ভিডিওতে দেখা দিয়েছেন তিনি। ‘যেও না চলে’ শিরোনামের ওই গান ২১ জানুয়ারি সংগীত প্রযোজক তাপস তাঁর ফেসবুক পেজ থেকে প্রকাশ করেন। তিন দিন হতে না হতেই গানটি দেখা হয়েছে ১ কোটির বেশিবার।

সংগীতচিত্রটির শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে আদনান বলেন, ‘মালদ্বীপে পাঁচ দিন ধরে শুটিং হয়েছে। স্পিডবোট, ইয়টে…মুভিং স্পিডবোটের ওপর শুটিং করার সময় মাঝেমধ্যে কাত হয়ে গেছে। আমার সহশিল্পীর আবার পানি নিয়ে ফোবিয়া আছে। সব মিলিয়ে খুব অ্যাডভেঞ্চারাস অভিজ্ঞতা। অনেক খরচ করে বানানো। বাংলাদেশ আর ভারতের দল কাজ করেছে। লোকেশন আর নিরাপত্তার জন্য মালদ্বীপের একটা দলও ছিল।’

এখন যখন সংগীতচিত্রটি মানুষ পছন্দ করছেন, কোটি ভিউ ছাড়িয়ে গেছে, কেমন সাড়া পাচ্ছেন? উত্তরে এই মডেল বলেন, ‘টিএম রেকর্ডসের আগে ব্যাক টু ব্যাক কয়েকটি গানের মিউজিক ভিডিও প্রকাশ করেছে। সানি লিওনকে নিয়ে “দুষ্টু পোলাপান”, নিরব হোসেনকে নিয়ে “এমনই এক ধাঁধা”, নুসরাতকে নিয়ে “নাচ ময়ূরী নাচ” গানের সংগীতচিত্র মুক্তি পেয়েছে। তবে আমারটাই অল্প সময়ে সবচেয়ে বেশি সাড়া পেয়েছে। আমার সব সময়ই ইচ্ছা ছিল স্থিরচিত্র থেকে অডিও ভিজ্যুয়ালে আসতে। এখন অনেকেই ফোন করে বলছে, আমি যেন অভিনয় করি। পর্দায় নিয়মিত হই। ঢালিউডে আমার সুযোগ আছে। তাঁরা বলছে যে আমি বড় পর্দায়ও আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার যোগ্যতা রাখি। এসব শুনে খুব ভালো লাগছে। অনুপ্রাণিত বোধ করছি।’

তাপসের লেখা, সুর ও সংগীতে গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন হামিন আহমেদ। নিবিড় আদনানের সঙ্গে এই গানের সংগীতচিত্রে অংশ নিয়েছেন দেশের আরেক মডেল আফরিনা রাজিয়া। সংগীতচিত্রটি পরিচালনা করেছেন ‘ন ডরাই’খ্যাত জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া নির্মাতা তানিম রহমান।

মডেলিংও চলছে সমানতালে। ৬৯ বছর বয়সী ফরাসি ফ্যাশন ডিজাইনার জ্যঁ পল গলতিয়ারের ফ্যাশন ব্র্যান্ড থেকে বাজারে আসতে চলেছে নতুন একটি পারফিউম। পুরুষদের এই পারফিউমের নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্ক্যান্ডাল’। এই পারফিউমের বাংলাদেশের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে সম্প্রতি চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন তিনি।

পেশাদার মডেল হিসেবে নিবিড়ের ক্যারিয়ার প্রায় ১০ বছরের। বাংলাদেশের প্রথম সারির প্রায় সব ব্র্যান্ডের সঙ্গেই কাজ করেছেন। দীর্ঘ সময় কাজ করেছেন ভারতের মুম্বাইয়ে। আমাজন ইন্ডিয়া, রেমন্ড, স্পাইকার ছাড়াও অনেক ভারতীয় ব্র্যান্ডের পণ্যের মুখ হিসেবে দেখা গেছে তাঁকে। সম্প্রতি বুলগারির পারফিউমের সঙ্গে চুক্তি নিবিড়ের মডেলিং ক্যারিয়ারের সবচেয়ে মূল্যবান পালকগুলোর অন্যতম।

ছয় ফুট উচ্চতার নিবিড় বাংলাদেশে এক্সট্যাসি, জেন্টল পার্ক, র নেশন, লা রিভসহ অনেক ফ্যাশন হাউসের সঙ্গে কাজ করেছেন। ঢাকা ও মুম্বাইয়ের বাইরে লন্ডন ও দুবাইভিত্তিক ব্র্যান্ডের মডেল হিসেবেও কাজ করেছেন নিবিড়।