সিলেটের পর ডুবলো সুনামগঞ্জ, লাখ মানুষ পানিবন্দি
বাংলাদেশ

সিলেটের পর ডুবলো সুনামগঞ্জ, লাখ মানুষ পানিবন্দি

পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলে ও বৃষ্টিতে সিলেটের পর এবার ডুবেছে সুনামগঞ্জ। পানি বেড়ে পুরো জেলার কয়েক লাখ মানুষ এখন পানিবন্দি অবস্থায় আছেন। মঙ্গলবার রাতে বৃষ্টি না হলেও বুধবার সকাল থেকে বৃষ্টি হওয়ায় আবারও বাড়ছে পানি। ঢলের পানিতে ডুবছে শহর ও লোকালয়। সুনামগঞ্জ শহরের সাত হাজার বসতঘরের নিচতলায় বানের পানি ঢুকেছে।

এদিকে, আগামী আরও ছয় দিন ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী। বুধবার সকালের ভারী বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে হু হু করে বাড়ছে নদী ও হাওরের পানি। গত ২৪ ঘণ্টায় ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করেছে পাউবো।

সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৪০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। দিরাই ও ছাতক পয়েন্টে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে রয়েছে।

দেখার হাওর ও সুরমা নদীর পানি বেড়ে সুনামগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড পানিতে নিমজ্জিত হয়ে আছে। সরকারি বেসরকারি অফিসের নিচতলা নিমজ্জিত হয়ে আছে। শহরের হাজীপাড়া এলাকায় পুলিশ সুপারের কার্যালয়, গণপূর্ত অধিদফতর বিএডিসি সেচ অফিস প্লাবিত হয়েছে। শহরের নুতনপাড়া, শান্তিবাগ, মরাটিলা, ষোলঘর, হাজিপাড়া, মল্লিকপুর কালীপুর বিলপাড়সহ পুরো শহরের নিম্নাঞ্চলের বাসাবাড়ি নিচতলায় পানিতে ডুবে আছে। বৃষ্টিপাত চলছে।

খাসিয়ামারা, চলতি পিয়াইন রক্তি, সোনালি চেলা, সোমেশ্বরী, পাটলাই নদীসহ আট সীমান্ত নদী দিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। ছোট বড় ১৩৭টি হাওর ও ২৬টি নদীর পানি উপচে পানিবন্দি অবস্থায় আছেন জেলার কয়েক লাখ মানুষ। ২০০০ পুকুরের মাছ মাছের পোনা ভেসে গেছে। পাঁচ কোটি টাকা শুধু মৎস্যখাতে ক্ষতি হয়েছে।

জেলার সুনামগঞ্জ সদর, দোয়ায়ারাবাজার, ছাতক, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক দোয়ারাবাজার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জেলায় ৫১৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। শুকনো খাবার ও রান্না করা খাবার বিতরণ করা হচ্ছে আশ্রয়কেন্দ্রে।

Source link

Related posts

ভাইরাসের আক্রমণে শুকিয়ে যাচ্ছে ভুট্টা গাছ

News Desk

ব্যাংক বন্ধ আজ

News Desk

ফেরিঘাটে ভিড় সংক্রমণের হার আবারও বাড়িয়ে দিতে পারে

News Desk

Leave a Comment