free hit counter
বাংলাদেশ

সরকারি আবাসিক ভবনে আলোকসজ্জা

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য সারাদেশে দিনে একঘণ্টা এলাকাভিত্তিক শিডিউল করে লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সারা দেশে চলছে লোডশেডিং। এ অবস্থায় রাঙামাটিতে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট নদী উপকেন্দ্রের আবাসিক ভবনের চারপাশে আলোকসজ্জার বিষয়টি সবার নজরে এসেছে। এ নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

বুধবার (২০ জুলাই) সন্ধ্যা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দেয়ালে ২৫-৩০টি শোভাবর্ধন এবং ভবনের ভেতরের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য বাতি জ্বলছিল।

ছবি তুলতে গেলে নাম না জানিয়ে মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের এক কর্মচারী জানান, আবাসিক এলাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছয়টি বাসা রয়েছে। তবে প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এখনও বাসায় উঠেননি। কয়েকদিনের মধ্যে ওঠার কথা রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট রাঙামাটি নদী উপকেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. রবিউল আওয়াল হোসেন বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের কথা বিভিন্ন মাধ্যমে শুনেছি। কিন্তু এ বিষয়ে এখনও কোনও চিঠি পাইনি আমরা। তবে বিষয়টি আপনি যখন বলেছেন, বৃহস্পতিবার থেকে খেয়াল রাখবো, যাতে আলোকসজ্জা না হয়।’

এদিকে, রাঙামাটিতে সরকারি নির্দেশনা না মেনে রাত ১০টা পর্যন্ত শহরের বাণিজ্যিক কেন্দ্র বনরূপার প্রায় সব দোকানপাট খোলা ছিল। শহরের উন্নয়ন বোর্ড এলাকায় হোটেল রাজমহল ইন্টারন্যাশনালের পাঁচতলা ভবনে মধ্যরাত পর্যন্ত আলোকসজ্জা দেখা গেছে।

হোটেল রাজমহলের ম্যানেজার মো. বাবুল মিয়া বলেন, ‘বুধবার রাতে গায়ে হলুদের একটি অনুষ্ঠানের জন্য জেনারেটর দিয়ে আলোকসজ্জা করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার থেকে আর করা হবে না।’

বনরূপা বিএম শপিং কমপ্লেক্সের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জুয়েল বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য সরকারের নির্দেশনা মেনে মার্কেটের মূল ফটক বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে রাত ১০টা পর্যন্ত দোকানপাট খোলা ছিল।’

রাঙামাটি বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাইফুর রহমান বলেন, ‘রাঙামাটিতে প্রতিদিন ১৮ থেকে ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা আছে। আমরা ১২ থেকে ১৫ মেগাওয়াট পাচ্ছি। একঘণ্টা করে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং দিয়ে যাচ্ছি।’

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আমরা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। প্রতিদিন রাত ৮টার মধ্যে সব দোকানপাট বন্ধ করতে বলেছি। তারা সহযোগিতা করবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। তারা যদি আইন না মানেন তাহলে আমরা আইন প্রয়োগ করবো।’

Source link