Image default
বাংলাদেশ

সত্যিকারের ‘সিঙ্গাপুর’ হবে বরিশাল নগরী

বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়র পদ থেকে সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর অব্যাহতি নেওয়ার তিন ঘণ্টার ব্যবধানে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ৭৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দে নগরীতে বইছে আনন্দের বন্যা। নগরবাসীর মধ্যে ধারণা জন্মেছে, আগের মেয়র আরও আগে অব্যাহতি নিলে প্রধানমন্ত্রী ওই টাকা আরও আগেই বরাদ্দ দিতেন। সেখানে বিশ্বাসের জায়গাটায় চলে এসেছে নবনির্বাচিত সিটি মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাতের ওপর।

নির্বাচনকালীন সময়ে তিনি যে ওয়াদা করেছিলেন দায়িত্ব নেওয়ার আগেই তা রক্ষা করায় নগরবাসীর কাছে অত্যন্ত আস্থাভাজন হয়ে উঠেছেন আবুল খায়ের। তবে সাধারণ নগরবাসী থেকে শুরু করে সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের দাবি, বরিশালের উন্নয়নে আরও বরাদ্দ আসবে। তা পরিকল্পনামাফিক খরচ করলে সত্যিকারের সিঙ্গাপুরের স্বপ্নে বিভোর থাকা নগরবাসীর স্বপ্নপূরণ হতে সময় লাগবে না।

গত বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে খবর আসে, বরিশালের উন্নয়নে ৭৯৮ কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে পাস হয়েছে। এ ছাড়া ভ্যাট-ট্যাক্সের জন্য প্রধানমন্ত্রী আরও ৮০ কোটি টাকা দেওয়ায় ৭৯৮ কোটি টাকা সম্পূর্ণ উন্নয়নে ব্যয় করতে পারবে সিটি করপোরেশন। ‘বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকায় বিভিন্ন সড়ক উন্নয়ন ও জলাবদ্ধতা নিরসন, বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন’ প্রকল্পের জন্য একনেকের সভার সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওই বরাদ্দ পাস করেন। বরিশাল সিটি করপোরেশনের উন্নয়নে এত বড় প্রকল্প আর কখনও পাস হয়নি বলে নিশ্চিত করেন বিসিসি’র একাধিক কর্মকর্তা।

অর্থ বরাদ্দের খবরে তাৎক্ষণিকভাবে নগরীতে মিষ্টি বিতরণ এবং আনন্দমিছিল করেছে মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহর অনুসারীরা। বরিশালবাসীকে এত বড় উপহার দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্লোগানে স্লোগানে ধন্যবাদ জানান তারা। নগরবাসীর মধ্যেও বইছে আনন্দের বন্যা। এ আনন্দ শুধু মিষ্টি বিতরণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। বিভিন্ন এলাকায় খিচুড়ি বিতরণের মাধ্যমেও আনন্দ উদযাপন করা হয়। এ বরাদ্দে নগরবাসী স্বপ্ন দেখা শুরু করেছেন সত্যিকারের সিঙ্গাপুরের।

মিছিলে অংশ নেওয়া মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহামুদুল হক খান মামুন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে নগরীতে কোনও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড না থাকায় নগরবাসী বিভিন্ন ধরনের সমস্যায় জর্জরিত ছিল। প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বরাদ্দে নগরবাসীর মধ্যেও প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে। একই সঙ্গে মেয়র খোকন সেরনিয়াবাতও নগরবাসীকে আশ্বাস দিয়েছিলেন তাকে নির্বাচিত করলে প্রধানমন্ত্রী নগরবাসীকে বড় একটি উপহার দেবেন। নগরীর ভোটাররা যেভাবে খোকন সেরনিয়াবাতের প্রতি বিশ্বাস রেখে তাকে নির্বাচিত করেছেন। একইভাবে প্রধানমন্ত্রীও তার দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলেন। এতে করে নগরবাসীর মধ্যে বিশ্বাস এসেছে নির্বাচনের আগে খোকন সেরনিয়াবাত এবং তার সহধর্মিণী যে সকল প্রস্তাবনা দিয়েছেন তা পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন হওয়ার।’

মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক দফতর সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাড. লস্কর নুরুল হক বলেন, ‘আগামী ১৪ নভেম্বর আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ সিটি মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই ১৩ কোটি টাকার সাতটি খাল সংস্কার কাজ শুরু হবে। একই সঙ্গে নগরীর সকল সড়ক এবং যে সকল স্থানে ড্রেনেজ ব্যবস্থা খারাপ রয়েছে তার উন্নয়ন হবে। গড়ে উঠবে আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা। সিঙ্গাপুর আর স্বপ্ন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দকৃত টাকায় সত্যিকারের সিঙ্গাপুর হবে বরিশাল নগরী।’

তিনি আরও বলেন, ‘৭৯৮ কোটি টাকার ভ্যাট-ট্যাক্সের জন্য প্রয়োজন ৮০ কোটি টাকা। সেই টাকাও প্রধানমন্ত্রী নগরবাসীকে উপহার দিয়েছেন। এতে করে ৭৯৮ কোটি টাকাই উন্নয়নের কাজে ব্যয় হবে।’

বরিশালের সাধারণ নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক কাজী মিজানুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এ বরাদ্দে আমরা খুব আশাবাদী। দেশের অন্যান্য সিটি করপোরেশনের উন্নয়ন থেকে আমরা ১০ বছরের বেশি পিছিয়ে ছিলাম। বরাদ্দে জরাজীর্ণ সড়ক, ড্রেনেজ এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় বড় ধরনের উন্নয়ন হবে। এর সঙ্গে যুক্ত হবে নাগরিক সুযোগ-সুবিধা।’

মেয়রের অনুসারীদের মিষ্টি বিতরণ

তিনি আরও বলেন, ‘এখানে আরও একটা বিষয় স্পষ্ট হয়েছে। আগের মেয়র যাওয়ার পরপরই এ ধরনের বরাদ্দের খবরে পুরো নগরীতে আনন্দের বন্যা বইছে। খেটে খাওয়া শ্রমিক থেকে শুরু করে প্রতিটি মানুষের মাঝে আস্থার জায়গায় চলে এসেছেন মেয়র আবুল খায়ের। সকলের ধারণা তার প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আস্থা থাকায় আগের মেয়র অব্যাহতি নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাকে এ বরাদ্দ দেওয়া হলো।’

সুশাসনের জন্য নাগরিক’র (সুজন) সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘নগরবাসীর যে প্রত্যাশা ছিল প্রধানমন্ত্রী তা পূরণ করেছেন। বিশেষ করে আগের মেয়র অব্যাহতি নেওয়ার পরপরই এমন খবর আসায় বোঝা যায় সিটি মেয়র আবুল খায়েরের জন্য প্রধানমন্ত্রী আরও বরাদ্দ দেবেন—এমনটাই প্রত্যাশা নগরবাসীর।’ আর এ বরাদ্দ পরিকল্পিতভাবে ব্যয় হলে নগরবাসীর সিঙ্গাপুরের যে স্বপ্ন দেখছিল তা পূরণ করা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

বরিশাল সিটি করপোরেশনের উন্নয়নে নগরবাসীকে ৭৯৮ কোটি টাকা উপহার দেওয়ায় নবনির্বাচিত মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

বাংলা ট্রিবিউনকে মেয়র বলেন, ‘নির্বাচনকালীন সময়ে প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের ঘোষণায় দলমত নির্বিশেষ ভোটাররা তাকে ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করেন। একইভাবে প্রধানমন্ত্রীও তার ঘোষণাকৃত পুরস্কার নগরবাসীকে উপহার দিয়েছেন। এ উপহার নগরবাসী কোনও দিন ভুলবে না।’ প্রধানমন্ত্রীর এ উপহার যথাযথ কাজে লাগানো হবে বলে জানান মেয়র।

আগামী ১৪ নভেম্বর সিটি মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করবেন আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ। এজন্য নগরীতে আলোকসজ্জা, তোরণ নির্মাণসহ নানা আয়োজনে ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়রের অনুসারী এবং সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

Source link

Related posts

শের-ই-বাংলা মেডিক্যালে ৪টি নতুন ইউনিট চালু

News Desk

নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি : শিক্ষামন্ত্রী

News Desk

যারা ইয়াবার সঙ্গে যুক্ত, আ.লীগে তাদের দরকার নেই: হাছান মাহমুদ

News Desk

Leave a Comment