Image default
বাংলাদেশ

‘শুধু চাল দিয়ে পেট ভরে না, সঙ্গে অন্য কিছুও লাগে’

বিকালে আশ্রয়কেন্দ্রের পাশে খালি মাঠে একটি বন্ধ দোকানের সামনে গালে হাত রেখে বসে আছেন চিন্তামগ্ন মাহমুদ আলী (৪৫)। কাছে গিয়ে জানতে চাইলে বলেন, ‘সরকার চাল দেওয়ার ঘোষণা দিছে ২৫ কেজি। আর পরিষদ থেকে পাইছি ২৩ কেজি। শুধু চাল দিলে কি পেট ভরবে? সঙ্গে অন্য কিছুও লাগবে। ঘরে কোনও তরকারি নাই। বাজারে আগুন (দ্রব্যমূল্যের দাম ঊর্ধ্বগতি)। চিন্তা করতেছিলাম স্ত্রী ও তিন মেয়ে নিয়ে কীভাবে আরও আট দিন চলবো।’

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার ঘাসিয়ার চরের বাসিন্দা হাসান সর্দারের বড় ছেলে মোহাম্মদ আলী পেশায় জেলে। সরকারি নিষেধাজ্ঞার কারণে মাছ ধরা বন্ধ থাকায় তার আয়ও বন্ধ। সরকারি বরাদ্দের চাল পেলেও ঘরে বাজার নেই। গত ১৮ দিন ধরে তিনি বেকার। ট্রলারমালিকরাও কোনও সহযোগিতা দিতে রাজি হচ্ছেন না।

১২ অক্টোবর মধ্যরাত থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত টানা ২২ দিন মেঘনা নদীতে মাছ ধরা বন্ধ। এ সময়ে ইলিশ আহরণ, বেচাকেনা, পরিবহন, বাজারজাত ও বিনিময় সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। উপজেলার নিবন্ধিত ছয় হাজার সাতশ জন সরকারি বরাদ্দের ২৫ কেজি করে চাল পান। যারা চাল পেয়েছেন, তারাও সন্তুষ্ট নন। চাহিদার তুলনায় এ চাল সামান্য বলে জানান জেলেরা।

রায়পুরের খাসেরহাট বাজারের পাশে বেড়িবাঁধ ফিশারিঘাট এলাকার আবদুল মাঝি জানান, তাদের বাড়িতে সাত জেলে পরিবার রয়েছে। নদীতে প্রতিদিন মাছ ধরেই তাদের সংসার চলে। অন্য কাজ তারা জানেন না। মাছ ধরা বন্ধ রাখলেও সরকারিভাবে কোনও বরাদ্দ পাননি এখনও। এ কারণে গত সোমবার থেকে তাদের অনেকের ঘরে চুলা জ্বলেনি। পরিবার নিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাচ্ছে জেলে পরিবার।

রায়পুর উপজেলার মেঘনা নদীর হাজীমারা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, নদীতে নোঙর করে আছে ট্রলার ও নৌকা। সেগুলো পাহারা দিচ্ছেন একজন করে জেলে। এক ট্রলারের জেলে করিমুল হক (৩২) জানান, সব মাছ ধরা পড়ছে বরিশালের ভোলা ও মেহেদিগঞ্জ এবং চাঁদপুরের হাইমচর ও চরভৈরবী নদী এলাকায়। রায়পুরে ১২ কিলোমিটার সীমানায় কয়েক মাস ধরে মাছ নেই। এতে জেলে পরিবারগুলো অভাব-অনটনে রয়েছেন। এখন ইলিশ ধরার মৌসুমে টানা ২২ দিন নিষেধাজ্ঞা জেলেদের দুঃখ শতগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। যে চাল পেয়েছে তা দিয়ে কয় দিন চলবে, ঘরে বাজারও নেই—সেই চিন্তায় দিন কাটছে তাদের।

জেলা মৎস্য অফিস সূত্র জানায়, এ বছর জেলেদের জন্য মোট ৯৯৩ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। ৪৬ হাজার ৪৯ জন নিবন্ধিত জেলের মধ্যে সরকারি পুনর্বাসনের ২৫ কেজি চাল সহযোগিতা পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৭৫০ জেলে। আর ৬ হাজার ২৯৯ জন জেলে সম্পূর্ণ সুবিধাবঞ্চিত।

এ বিষয়ে রায়পুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এমদাদুল হক বলেন, ‘জেলেদের মাছ শিকারে বিরত রাখতে তালিকাভুক্তদের জন্য ২৫ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সহায়তার চাল বিতরণ করা হয়েছে। মাছ ধরা বন্ধে নদীতে সার্বক্ষণিক নজরদারি রয়েছে।’ কোস্টগার্ডের সহযোগিতা ছাড়াই দুই ফাঁড়ির পুলিশ নিয়ে কাজ চলছে বলেও জানান তিনি।

Source link

Related posts

‘কাজী শাহেদ আহমেদ ছিলেন আলোর রশ্মি, আমরা তার আলোতেই আলোকিত’

News Desk

ঢামেকে ৩ মাসে মশক নিধন ওষুধ ছিটাতে দেখেনি কেউ

News Desk

বরিশালে ঘর পাচ্ছে ১৩ হাজার ৭১৫ গৃহহীন পরিবার

News Desk

Leave a Comment