free hit counter
লকডাউনে বন্ধ থাকবে গার্মেন্ট কারখানা
বাংলাদেশ

লকডাউনে বন্ধ থাকবে গার্মেন্ট কারখানা

ঈদের একদিন পর ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত টানা ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। ওই লকডাউনে রপ্তানিমুখী গার্মেন্টসসহ অন্য সব শিল্পকারখানাও বন্ধ থাকবে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে। কিন্তু গার্মেন্টস মালিকরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগের মতোই কারখানা খোলা রাখার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেন প্রধানমন্ত্রীকে। তবে গার্মেন্টস মালিকদের ওই অনুরোধ সরকার রাখছে না। অর্থাৎ ঘোষিত লকডাউনে গার্মেন্টস শিল্পকারখানা বন্ধই থাকছে। বিশ্বস্ত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ঈদের পর শুরু হওয়া লকডাউনে খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন কিংবা প্রক্রিয়াজাতকরণ, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহন, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াকরণ এবং ওষুধ অক্সিজেন ও কোভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প চালু থাকবে। গতকাল সোমবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। গতকাল সন্ধ্যায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত দেশের সব গার্মেন্টস কারখানাসহ অন্য শিল্পকারখানাগুলো ঈদের ছুটি দিয়েছে।

চলতি বছরের আগে লকডাউনগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিল্পকারখানা খোলা রাখা হয়েছিল। এবারও লকডাউনে কারখানা খোলা রাখতে প্রধানমন্ত্রীকে গত বৃহস্পতিবার চিঠি দেন মালিকরা। চিঠির বিষয়ে গত শনিবার সরকার সিদ্ধান্ত জানাবে বলে কয়েকটি সূত্র জানিয়েছিল। সর্বশেষ গতকাল এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী কারখানা খোলা রাখার বিষয়ে সম্মত হননি বলে জানিয়েছেন এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। ফলে লকডাউনে গার্মেন্টস কারখানা বন্ধ থাকছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই

কর্মকর্তা আরও বলেন, করোনা যেভাবে দিনকে দিন ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে, তাতে সব কিছু বন্ধই রাখতে হবে। গার্মেন্টস কারখানা খুললে পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেবে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরাও এ বিষয়ে সরকারকে সতর্ক করেছে। ফলে কোনো অবস্থাতেই গার্মেন্টস কারখানা চালু রাখতে দেবে না সরকার।

এ প্রসঙ্গে জানতে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামকে ফোন করলেও তিনি সাড়া দেননি। বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হোসেনকে ফোন করা হলে তিনি কোনো কথা বলেননি।

Related posts

শুক্রবার সকাল থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে ঢাকা, জিরো টলারেন্স

News Desk

‘লকডাউনে পেটের দায়ে রিকশা চালাচ্ছি’

News Desk

কঠোর লকডাউনের মেয়াদ বাড়ল আরো ৭ দিন

News Desk