free hit counter
বাংলাদেশ

প্রয়োজনে আরও রাস্তা কাটা হবে: তাজুল ইসলাম

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, সিলেট এলাকায় বন্যার পানি যাতে দ্রুত সরে যেতে পারে, সে জন্য কয়েকটি রাস্তা কেটে ফেলা হয়েছে। কিছু রাস্তা কাটার প্রয়োজন পড়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার মেয়র। এতে পানি সহজে নেমে যাচ্ছে। বাংলাদেশের আর কোথাও প্রয়োজন হলে আরও রাস্তা কেটে ফেলা হবে।

রোববার (১৯ জুন) সচিবালয়ে ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর এবং চট্টগ্রাম সিটির জলাবদ্ধতা নিরসন ও ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে এক সভার শুরুতে সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রশ্নের জবাবে তাজুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

এর আগে শনিবার (১৮ জুন) এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী বলেছিলেন, সিলেট অঞ্চলে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো সড়ক বাধা হয়ে থাকলে, তা কেটে পানি চলাচল নির্বিঘ্ন করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

তাজুল ইসলাম বলেন, ‘মাঝেমধ্যে আমরা দুর্যোগ মোকাবিলা করি। এবারও আমাদের কিছু কিছু অঞ্চল জলমগ্ন হয়েছে। এ কারণে মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী তাৎক্ষণিক সব প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা দিয়েছেন। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড, পুলিশ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনসহ সবাই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দুর্যোগে আক্রান্ত এলাকায় মানুষের পাশে সর্বাত্মকভাবে অবস্থান করছেন।’

তাজুল ইসলাম বলেন, ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সিটি করপোরেশনের সবচেয়ে বড় সমস্যা জলাবদ্ধতা। জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য ঢাকায় যত খাল আছে, সেগুলো সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তরের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বেশ কিছু হস্তান্তরও করা হয়েছে। যার সুফল ইতোমধ্যে ভোগ করা যাচ্ছে। যদিও এসব খালের অনেক অংশ অনেকেই দখল করে নিয়েছেন, যা দখলমুক্ত করা কঠিন।’

তাজুল ইসলাম আরও বলেন, ‘আমি যখন শুরুতে মন্ত্রণালয়ে আসছিলাম, তখন জলাবদ্ধতার জন্য গাড়ি আসছিল না, আটকে গিয়েছিল। এখানে এত পরিমাণ পানি জমে গিয়েছিল। আমাদের তেজগাঁও, শান্তিনগরসহ অনেক এলাকায় পানি জমে যেত। আমরা মনে করি, খাল হস্তান্তরের ফলে কিছুটা সুফল আমরা উপভোগ করছি।’

এখন পর্যন্ত কটি খাল উদ্ধার করা হয়েছে, তা জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন, সিটি করপোরেশনে মোট ২৬টি খাল হস্তান্তর করা হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন সাড়ে ছয় একর জমি দখলমুক্ত করেছে। উত্তর সিটি করপোরেশন ২৫ একর দখলমুক্ত করেছে। এই কাজগুলো চলমান।

জলাবদ্ধতা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তাজুল ইসলাম বলেন, নিম্নাঞ্চল দ্রুত প্লাবিত হয়। এখন সব কাজ করে ফেলেছি, তা নয়। কিছু খাল দখলমুক্ত করা হয়েছে। উদ্ধারের কাজ চলমান। সিটি করপোরেশনে নতুন অন্তর্ভুক্ত ওয়ার্ডগুলো বেশিরভাগ নিম্নাঞ্চল। সেখানে অবকাঠামোগত সমস্যাও আছে, যা নিরসনের জন্য চার হাজার কোটি টাকার বেশি একটি প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। কাজ চলমান, কাজ শেষ হলে সেখানকার অনেক উন্নতি হবে।