free hit counter
বাংলাদেশ

ট্রেনে তল্লাশির ছবি তোলায় দুই পুলিশকে পেটাল বিজিবি

খুলনা–কলকাতা রেলপথের ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ ট্রেনে তল্লাশি চালানোর ছবি তুলতে যাওয়া রেলওয়ে পুলিশের দুই সদস্যকে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে যশোরের বেনাপোল রেলস্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় একজন পুলিশ সদস্যকে বেনাপোল ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যান বিজিবি সদস্যরা। প্রায় আট ঘণ্টা আটকে রাখার পর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে রেলওয়ে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

 

মারধরের শিকার দুই পুলিশ সদস্য হলেন খুলনা জেলা রেলওয়ে পুলিশের বিশেষ শাখার কনস্টেবল মনিরুল ইসলাম (২৮) এবং বেনাপোল রেলওয়ে পুলিশ (জিআরপি) ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) সেফাতুর রহমান (৫৩)।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে খুলনা রেলওয়ের পুলিশ সুপার মো. রবিউল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, বিষয়টি তিনি জানেন না। এ বিষয়ে কথা বলতে যশোর ৪৯ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শাহেদ মিনহাজ ছিদ্দিকীর দাপ্তরিক মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি ধরেননি।

বেনাপোল রেলওয়ে সূত্র জানায়, কলকাতার চিৎপুর রেলস্টশন থেকে খুলনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি আজ সকাল ১০টা পাঁচ মিনিটে বেনাপোল স্টেশনে পৌঁছায়। যাত্রীদের ইমিগ্রেশন ও কাস্টমসের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেলা ১১টা ২০ মিনিটে ট্রেনটি খুলনার উদ্দেশে বেনাপোল রেলস্টেশন ছেড়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে খুলনা জিআরপি থানার এক কর্মকর্তা বলেন, সকালে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি বেনাপোল স্টেশনে পৌঁছানোর পর বিজিবির কয়েকজন সদস্য ট্রেনে তল্লাশি চালাতে ওঠেন। এ সময় রেলওয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে কাস্টমস কর্মকর্তা ছাড়া কেউ ট্রেনে যাত্রীদের লাগেজ তল্লাশি করতে পারবেন না বলে জানানো হয়। এরপরও বিজিবি সদস্যরা তল্লাশি চালাতে গেলে সাদাপোশাকে পাশে দাঁড়িয়ে মুঠোফোনে ছবি তুলছিলেন মনিরুল ইসলাম।

এ সময় বিজিবি সদস্যরা তাঁকে মারধর করেন এবং ক্যাম্পে কল করা হলে আরও বিজিবি সদস্য চলে আসেন। এরপর মনিরুলকে মারতে মারতে বিজিবির গাড়িতে তোলা হয়। এ সময় বাধা দিতে গেলে এসআই সেতাফুর রহমানকে মারধর করেন বিজিবি সদস্যরা।

এ বিষয়ে খুলনা জিআরপি থানার ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, আহত সেফাতুরকে উদ্ধার করে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে চিকিৎসা নিয়ে বিকেলে তিনি ফাঁড়িতে ফেরেন। ক্যাম্পে তুলে নিয়ে যাওয়া মনিরুল ইসলামকে সন্ধ্যা সাতটার দিকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr
adr