free hit counter
বাংলাদেশ

জমিতে নষ্ট হচ্ছে পাকা ধান

টানা বৃষ্টিতে সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার মাঠগুলোতে পানি জমে পাকা ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টির কারণে মিলছে না ধান কাটা শ্রমিক। ডুবে যাওয়া ধান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন উপজেলার চাষিরা। 

তারা বলছেন, এ বছর এক বিঘা জমিতে বোরো ধান চাষ করতে সবমিলে খরচ হয়েছে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। বর্তমানে শ্রমিক খরচ আরও প্রায় সাত হাজার টাকা বেড়ে ৮ হাজারে দাঁড়িয়েছে। তাদের অভিযোগ, অপরিকল্পিতভাবে ব্রিজ-কালভাট খাল-নালা বন্ধ করে দেওয়ায় পানি নিষ্কাশন হয় না। তাই বৃষ্টি হলে পানি বের হতে পারে না। এতে ফসলি মাঠগুলো ডুবে কৃষকের সর্বনাশ হচ্ছে প্রতিবছর।

বারুহাস ইউনিয়নের বিনসাড়া গ্রামের শিক্ষক আজাদ হোসেন বলেন, ‌‘কৃষকের পাকা ধান পানির নিচে হাবুডুবু খাচ্ছে। এদিকে শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। পাবনা অঞ্চল থেকে কৃষি শ্রমিকরা তাড়াশ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ধান কাটতেন। কিন্তু এ বছর তারা অজ্ঞাত কারণে এখনও অধিকাংশ আসেননি।’

তাড়াশ পৌর সদরের কৃষি শ্রমিক বক্কার হোসেন বলেন, ‘হঠাৎ বৃষ্টি হওয়ায় মাঠের ধানগুলো পানিতে ডুবে গেছে। এখন প্রতি বিঘা জমিতে চার থেকে পাঁচজন শ্রমিক বেশি লাগবে। আগে যেখানে এক বিঘা জমিতে খরচ হতো তিন হাজার থেকে চার হাজার টাকা, সেখানে এখন অতিরিক্ত খরচসহ ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৯ হাজার টাকা।বৃষ্টিতে ভিজে কাজ করার মতো শ্রমিকও পাওয়া যাচ্ছে না।’

তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লুৎফুন নাহার লুনা বলেন, ‘চলতি মৌসুমে উপজেলায় বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২২ হাজার ৩১৫ হেক্টর। কিন্ত লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অর্জিত হয়েছে ২২ হাজার ৩৬০ হেক্টর।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘চলতি বোরো মৌসুমের শুরু থেকে কৃষি বিভাগের মাঠকর্মীসহ সকল স্তরের কর্মকর্তা কৃষকদের নানা দিক নির্দেশনা দিয়ে উৎসাহিত করেছেন। মাঠের শ্রমিক সংকটে ধান কাটা নিয়ে কৃষকরা একটু সমস্যায় পড়েছেন।’

Source link