free hit counter
বাংলাদেশ

ছাত্রলীগকর্মী বাবলু হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রাম মজিদা আদর্শ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগকর্মী শামীম আশরাফ বাবলুর হত্যার প্রতিবাদ এবং হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। শনিবার (২ জুলাই) দুপুরে হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবিতে জেলার প্রত্যেক উপজেলায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেন সাধারণ শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

জেলা শহরের সরকারি কলেজের সামনে কুড়িগ্রাম-চিলমারী সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা বাবলু হত্যায় জড়িত এজাহারনামীয় আসামি সদরের বেলগাছা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লিটন মিয়াসহ সব আসামিকে গ্রেফতারের দাবি জানান। এ সময় বক্তব্য রাখেন- কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শরীফ আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক সোলায়মান গাদ্দাফি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাহিদুল ইসলাম, সাধারণ শিক্ষার্থী রেজওয়ানুল হক প্রমুখ।

একই দাবিতে শহরের ভোকেশনাল মোড়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন কুড়িগ্রাম পলিটেকনিক ইনিস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, বাবলু হত্যার বিচার ও অভিযুক্ত আসামিদের গ্রেফতারের দাবিতে জেলার ৯ উপজেলায় বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করে ছাত্রলীগ। উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে আবার কোথাও বিক্ষোভ মিছিল করে এই হত্যার বিচার দাবি করেন বিক্ষোভকারীরা।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘ বাবলু শুধু একজন ছাত্রলীগ কর্মী ছিলেন না, শিক্ষার্থীও ছিলেন। একজন ইউপি চেয়ারম্যানের সামনে তারই ইন্ধনে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। অথচ হত্যাকারীরা এখনও গ্রেফতার হয়নি। এমন হত্যাকাণ্ডে জেলার সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। আমরা অভিযুক্ত চেয়ারম্যানসহ সব আসামির গ্রেফতার ও বিচার চাই।’

প্রসঙ্গত, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নে ছাত্রলীগকর্মী বাবলুর বাবার সঙ্গে প্রতিবেশী এক নারীর বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ এনে গত ২৮ জুন রাতে সালিশ বৈঠক করেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লিটন মিয়া। বৈঠকে নিহত বাবলুর পরিবার উপস্থিত না হওয়ায় বাড়িতে ওই নারীকে জোর করে তুলে দেওয়ার চেষ্টা করে চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে একদল গ্রামবাসী। এ সময় বাবলু ও তার পরিবারের লোকজন ওই নারীকে তাদের ঘরে প্রবেশে বাধা দিলে চেয়ারম্যানের সামনেই অভিযুক্তরা বাবলু ও তার পরিবারের লোকজনের ওপর হামলা করে বলে অভিযোগ করে ভুক্তভোগীর পরিবার। হামলায় মাথায় ও বুকে আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হন। তাকে উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। পরদিন ২৯ জুন (বুধবার) সকালে সেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ছাত্রলীগকর্মী বাবলু হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল কুড়িগ্রাম

নিহতের বড় ভাই মশিউর রহমান বাবু বাদী হয়ে গত ২৯ জুন বেলগাছা ইউপি চেয়ারম্যান লিটন মিয়াসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫/৭ জনের বিরুদ্ধে কুড়িগ্রাম সদর থানায় মামলা করেন। এ ঘটনায় ওই নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

Source link