এটিএম বুথে টাকা নয়, এবার মিলবে পানি। এটিএম বুথে কার্ড দিলেই পাওয়া যাবে নিরাপদ খাবার পানি। সঙ্গে থাকছে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। রাজশাহী মহানগরীতে এমন নিরাপদ খাবার পানির এটিএম ও হাত ধোয়ার বুথের উদ্বোধন করা হয়েছে। 

শনিবার (২ এপ্রিল) বিকালে হজরত শাহ মখদুম দরগার সামনে স্থাপিত বুথটির উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। উদ্বোধনের পর বুথটি ঘুরে দেখেন সিটি মেয়র। এরপর দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জামিয়া ইমলামিয়া শাহ মখদুম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা শাহাদাত আলী।

উদ্বোধনকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ইকলি ও কয়েকটি সংস্থার সহযোগিতায় নগরীতে চারটি নিরাপদ পানির এটিএম বুথ স্থাপন করা হচ্ছে। আজকে একটির উদ্বোধন করা হলো। এই চারটি পানির এটিএম বুথে সফলতা পাওয়া গেলে নগরীতে আরও ১০ থেকে ১৫টি স্থানে এরকম পানির বুথ স্থাপন করা হবে।

মেয়র আরও বলেন, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে নয়, নামমাত্র মূল্যে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করাই আমাদের লক্ষ্য। নগরবাসীর জন্য নিরাপদ খাবার পানি নিশ্চিত করা এবং হাত ধোয়া বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তোলার কাজটি বাস্তবায়নে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

উদ্বোধনকালে রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, এফবিসিসিআই’র পরিচালক মো. শামসুজ্জামান আওয়াল, ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাসেল জামান, নগর আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম ও ইকলির প্রকল্প কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল কাফি উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, জিআইজেডের অর্থায়নে রাজশাহী সিটি করপোরেশন ও ইকলি এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে। নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়, এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান, চিড়িয়াখানার মোড় ও বহরমপুর মোড়ে বিশুদ্ধ পানির এটিএম বুথ স্থাপন করা হবে। 

নির্ধারিত বুথে এটিএম কার্ডের মাধ্যমে এক লিটার বিশুদ্ধ পানির মূল্য পড়বে ৮০ পয়সা। সেই সঙ্গে হাত ধোয়ার বুথও থাকবে। বুথের সঙ্গে লাগোয়া একটি কক্ষে সবার সামনেই পানি বিশুদ্ধকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি এই এটিএম বুথের মাধ্যমে সরবরাহকৃত পানির মান বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত অন্য যেকোনো পানির চেয়ে বিশুদ্ধ হবে। রাজশাহী ওয়াসা অথবা ভূগর্ভস্থ পানির স্তর থেকে সরাসরি সংগ্রহকৃত পানি অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তিনটি স্তরে ফিল্টারিংয়ের মাধ্যমে বিশুদ্ধ করা হবে। তারপর তা এটিএম বুথের ভোক্তাদের কাছে সরবরাহ করা হবে। 

এই পানি সংগ্রহ করতে আগে থেকেই নিতে হবে কার্ড। এটিএম কার্ডের মতই সেই কার্ডের রেজিস্ট্রেশনে খরচ পড়বে ৫০ টাকা। এরপর শুধু রিচার্জ করতে হবে। বুথের কর্মীর কাছ থেকেই অনলাইনে কার্ড রিচার্জ করে নেওয়া যাবে। পানি নিতে এটিএম কার্ডের পাশাপাশি ভোক্তাকে আনতে হবে পাত্র। 

নগরীর বিভিন্ন অফিসে ২০ লিটার জারের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে সরবরাহকৃত পানিতে ভোক্তাদের যেখানে খরচ হয় ৫০ টাকা, সেখানে এই বুথ থেকে পানি নিলে খরচ পড়বে ১৬ টাকা। সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে বুথ। চারটি বুথে চার জন সার্বক্ষণিক কর্মরত থাকবেন।

Source link

Related posts

কুষ্টিয়ায় তেলবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত

News Desk

বিমানের আন্তর্জাতিক রুট সম্প্রসারণে পরিকল্পনা গ্রহণ

News Desk

ধুঁকতে থাকা দরিদ্র নারীদের আশার আলো যে হাসপাতাল

News Desk

Leave a Comment