Image default
বাংলাদেশ

এক খাল খননে ৯ বছর পার, প্রকল্পের ব্যয় বেড়েছে পাঁচ গুণ  

চট্টগ্রাম নগরী থেকে জলাবদ্ধতা দূর করতে ২০১৪ সালে একটি খাল খনন প্রকল্প হাতে নেয় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। নগরীর বহদ্দারহাট বাড়ইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত নতুন এই খাল খনন করা হচ্ছে। প্রকল্পটির শুরুতে ব্যয় ধরা হয় ২৮৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে শেষ হয়নি খাল খননের কাজ। এতে প্রকল্পের ব্যয় প্রায় পাঁচ গুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৩৬২ কোটি ৬২ লাখ টাকা। ৯ বছরে বর্তমানে কাজের অগ্রগতি ৫৮ শতাংশ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে নগরীর দুই হাজার ২৬৪ হেক্টর এলাকার পানি নিষ্কাশিত হয়ে কর্ণফুলী নদীতে প্রবাহিত হবে।  

বর্তমানে সামান্য বৃষ্টি হলেই ডুবে যায় চট্টগ্রাম নগরী। সড়ক অলি-গলি এবং বাড়িঘর ডুবে যাওয়ায় দুর্ভোগের শিকার হয় নগরবাসী। জলাবদ্ধতা নিরসনে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের এই খাল খননসহ নগরীতে ১০ হাজার ৯২১ কোটি ২২ লাখ টাকার মোট চারটি প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে।

এরমধ্যে পাঁচ হাজার ৬১৬ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে খাল পুনঃখনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন’ শীর্ষক চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) মেগা প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এক হাজার ৬২০ কোটি ৭৩ লাখ ৫০ হাজার টাকায় ‘চট্টগ্রাম মহানগরীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ, জলমগ্নতা বা জলাবদ্ধতা নিরসন ও নিষ্কাশন উন্নয়ন’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। দুই হাজার ৩১০ কোটি ২৪ লাখ ২০ টাকায় ‘কর্ণফুলী নদীর তীর বরাবর কালুরঘাট সেতু থেকে চাক্তাই খাল পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ’ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সিডিএ। এছাড়া এক হাজার ৩৬২ কোটি ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরের বহদ্দারহাট বাড়ইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত নতুন খাল খননের প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।

চসিক সূত্র জানায়, সিডিএ’র  ১৯৯৫ সালে করা ড্রেনেজ মাস্টারপ্ল্যানে নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত ২ দশমিক ৯ কিলোমিটার দৈর্ঘের খালটি খননের সুপারিশ করা হয়। ২০১১ সালের ২৯ ডিসেম্বর উন্নয়ন প্রকল্পের প্রস্তাবনাটি (ডিপিপি) স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে পাঠায় চসিক। এর প্রায় আড়াই বছর পর ২০১৪ সালের ২৪ জুন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভায় চট্টগ্রাম নগরীর জলাবদ্ধতা দূর করতে ২৮৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকার বহদ্দারহাট বারইপাড়া থেকে কর্ণফুলী নদী পর্যন্ত খাল খনন প্রকল্পটি অনুমোদন হয়। এর মেয়াদ ছিল ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত। তবে ওই সময়ের মধ্যে অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় এবং জমি অধিগ্রহণ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় এ প্রকল্পের কাজ থমকে যায়।

এরপর ২০১৭ সালের নভেম্বর একনেকে প্রকল্পটি পুনর্বিবেচনা করে আবারও অনুমোদন দেওয়া হয়। সংশোধনীতে প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২০ সালের জুনের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা ছিল। এ সময় এক লাফে ব্যয় বেড়ে হয় এক হাজার ২৫৬ কোটি টাকা। গত বছর ১৯ এপ্রিল সবশেষ সংশোধিত ব্যয় ৮ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়ে হয়েছে এক হাজার ৩৬২ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এরমধ্যে এক হাজার ১০৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকা ব্যয় হবে প্রায় ২৫ দশমিক ২৩৫ একর জমি অধিগ্রহণে। চার বছর মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করতে বলা হয়েছে।

প্রকল্প পরিচালক চসিক নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফরহাদুল আলম বলেন, ‘খাল খনন প্রকল্পের কাজ চলমান। সাম্প্রতিক রেকর্ড বৃষ্টিতে কাজ কিছুটা পিছিয়ে গেছে। এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কিছু জটিলতাও রয়েছে। বর্তমানে ৫৮ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি কাজ দ্রুত শেষ করতে দিন-রাত চেষ্টা চলছে।’

সামান্য বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম নগরীতে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা তিনি বলেন, ‘২ দশমিক ৯ কিলোমিটার দীর্ঘ খালটি হবে ৬৫ ফুট চওড়া। খালের দুই পাশে ২০ ফুট চওড়া সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ দুটি রাস্তা হবে এবং ছয় ফুট প্রস্থের দুটি করে ওয়াকওয়ে হবে। খালটি বারইপাড়া হাইজ্জারপুল থেকে শুরু হয়ে নূর নগর হাউজিং, ওয়াইজের পাড়া, বলিরহাটের বলি মসজিদের উত্তর পাশ দিয়ে কর্ণফুলী নদীতে গিয়ে মিশবে।’

নগরীর বহদ্দারহাট এলাকার বাসিন্দা মঈন উদ্দিন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সামান্য বৃষ্টি হলেই বহদ্দারহাটসহ নগরীর অধিকাংশ এলাকায় পানি জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এ সমস্যা বছরের পর বছর ধরে চলছে। অথচ জলাবদ্ধতা নিরসনে হাজার হাজার কোটি টাকার কাজ চলমান। এসব প্রকল্পের মেয়াদ আর টাকা বাড়ে। জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি মেলে না, বরং সমস্যা দিন দিন প্রকট হচ্ছে।’

চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মো. আলিউর রহমান বলেন, ‘১৯৬৮ সালে

সিডিএ গৃহীত বন্যা নিয়ন্ত্রণ পরিকল্পনা ম্যাপে নগরীতে খাল আছে ৭১টি। ওই ম্যাপে এসব খালের দৈর্ঘ, প্রস্থও রয়েছে। আরএস খতিয়ান অনুযায়ী, এসব খাল উদ্ধার করলে চট্টগ্রামে নতুন করে খাল খননের প্রয়োজন হতো না। দখল-দূষণের কারণে চট্টগ্রামের অনেকগুলো খাল অস্তিত্বহীন। সিডিএ জলাবদ্ধতা নিরসনে ৩৬টি খাল খনন ও সংস্কার করছে। বাকিগুলোর কী হবে? এসব খাল খনন-সংস্কার না হলে নগরীর জলাবদ্ধতা কখনও নিরসন হবে না।’

বৃষ্টিতে রাস্তা, অলি-গলি ডুবে বাড়ি-ঘরে ঢুকে পড়ে পানি তিনি আরও বলেন, ‘চট্টগ্রামে অনেক সংসদ সদস্য, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর, রাজনৈতিক নেতা খাল দখল করে রেখেছেন। অনেক খাল অস্তিত্ব হারিয়েছে। এ কারণে পানি প্রবাহের গতি পরিবর্তন হয়েছে। সিটি করপোরেশন খালগুলো উদ্ধার করছে না।’

এ প্রসঙ্গে চসিক মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘বাড়ইপাড়া খাল খনন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে জলাবদ্ধতার কষ্ট থেকে ১০ লাখ নগরবাসীর মুক্তি মিলবে। বিশেষ করে শুলকবহর, মোহরা, বহদ্দারহাট, বাকলিয়া ও চাক্তাইসহ ৮ ওয়ার্ডের বাসিন্দা জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাবে।’

ছবি: প্রতিবেদক

Source link

Related posts

চট্টগ্রামে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৩ জনের মৃত্যু

News Desk

আড়তে তরমুজের স্তূপ, ক্রেতা কম

News Desk

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে ফের অনিশ্চয়তা

News Desk

Leave a Comment