free hit counter
অন্যান্য

ব্যাটারদের টেকনিকে সমস্যা দেখছেন দুর্জয়ও

টেস্ট ব্যাটারদের টেকনিক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন সাকিব আল হাসান। অধিনায়কের পরামর্শও ছিল টেকনিক নিয়ে কাজ করে ছন্দে ফেরার। সাকিবের মতো জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক নাঈমুর রহমান দুর্জয়ও মনে করেন, ব্যাটারদের টেকনিকে সমস্যা আছে।

বিসিবির এ পরিচালকও মনে করেন ভুলত্রুটি শুধরে টেকনিক্যালি নিখুঁত হবে টেস্ট ব্যাটারদের। দুর্জয়ের মতে, ‘সাকিব যেটা বলেছে ঠিকই বলেছে যে, ‘টেকনিক্যালি সাউন্ড ব্যাটার’ নেই। কিছু বিশেষ জায়গা আছে টেস্টে, সেটা স্পিনারদের ক্ষেত্রে বলেন আর ব্যাটারদের ক্ষেত্রে বলেন। পেস বোলারদের বল সুইং করাতে হবে, স্পিনারদের টার্ন করাতে হবে।’

কন্ডিশন এবং খেলার বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী বোলিং করতে হবে বলে মনে করেন দুর্জয়, ‘ওয়ানডে, টি২০’র মতো গৎবাঁধা প্রক্রিয়ায় বল করে গেলে সেটা টেস্টে তেমন ফল দেয় না। হয়তো হোমে আমরা যে ধরনের উইকেটে খেলি… একই বল এখানে যেরকম আচরণ করে, সেটা ওয়েস্ট ইন্ডিজ বা দক্ষিণ আফ্রিকার উইকেটে একই রকম আচরণ করবে না। ওই কন্ডিশনের জন্য আমাকে আলাদা ওয়ার্কআউট করতে হবে। আলাদা কৌশল নিতে হবে।

ব্যাটারদের ক্ষেত্রেও একই। কারণ, আমরা বললাম সিম বোলারদের বল সুইং করাতে হবে, সেটা কিন্তু প্রতিপক্ষ দলের পেসাররাও করবে। বল জোরে করার চেষ্টা করবে। সেটাকে ম্যানেজ করতে হলে আমার ব্যাটারের কিন্তু সেই গুণ থাকতে হবে। সুতরাং সবারই এই প্রস্তুতি থাকতে হবে।’

জাতীয় দলের সাবেক এ অধিনায়ক মনে করেন, টেস্টে আরও ভালো খেলা উচিত বাংলাদেশের।

দলীয় পারফরম্যান্সের ওপর জোর দেন তিনি, ‘আমাদের পাঁচ-ছয়জন খেলোয়াড় জ্বলে উঠছে। একসঙ্গে জ্বলছে না। টেস্টের প্রতি ঘণ্টায় পরিস্থিতি বদলে যাচ্ছে। আমরা হয়তো ৫০ করছি, কিন্তু ইনিংসটা ১০০ হওয়া উচিত। অনেক সময় নষ্ট করার জন্য যেভাবে খেলা দরকার, সেটা করতে পারছি না। আরেকটি বিকল্প ড্র করার চিন্তা হয়তো আমরা করিই না। ড্র করলে মাঝামাঝি একটা জায়গায় থাকা যায়। আমরা সবসময় জিততে গিয়ে হেরে যাচ্ছি। টেস্টে যে ড্রয়ের অপশন আছে, সেটা মাথায় রাখা উচিত।’