free hit counter
জানা অজানা

রংধনু কী? কেন রংধনু সৃষ্টি হয়?

রেইনবো সবচেয়ে আশ্চর্যজনক প্রাকৃতিক ঘটনা। রংধনু কী? তিনি কিভাবে প্রদর্শিত হবে? এই প্রশ্নগুলি সর্বদা আগ্রহী ব্যক্তিদের থাকে। এমনকি এরিস্টটল তার গোপনীয়তা সমাধান করার চেষ্টা করেছিলেন। এর সাথে সম্পর্কিত অনেক বিশ্বাস এবং কিংবদন্তী রয়েছে (অন্য বিশ্বের দিকে যাওয়ার রাস্তা, স্বর্গ ও পৃথিবীর মধ্যে সংযোগ, প্রাচুর্যের প্রতীক ইত্যাদি)। কিছু জাতি বিশ্বাস করেছিল যে যারা রংধনুর নীচে চলেন তারা তাদের লিঙ্গ পরিবর্তন করবেন।

তার সৌন্দর্য আশ্চর্যজনক এবং আকর্ষণীয়। এই বহু বর্ণের “যাদু ব্রিজ” দেখে আমি অলৌকিক বিষয়গুলিতে বিশ্বাস রাখতে চাই। আকাশে একটি রংধনুর উপস্থিতি সতর্ক করে যে খারাপ আবহাওয়া শেষ হয়েছে এবং একটি পরিষ্কার সৌর সময় এসেছে।

রংধনু

রংধনু কখন? এটি বৃষ্টির সময় বা বর্ষার পরেও লক্ষ্য করা যায়। তবে এর প্রকোপটির জন্য, যথেষ্ট বজ্রপাত এবং বজ্রপাত নেই। সূর্য মেঘের মধ্য দিয়ে ভেঙে গেলেই এটি প্রদর্শিত হয়। কিছু শর্ত লক্ষ্য করা প্রয়োজন। বৃষ্টি (এটি সামনে হওয়া উচিত) এবং সূর্যের (এটি পিছনে থাকা) এর মধ্যে হওয়া প্রয়োজন। আপনার চোখ, রামধনু এবং সূর্যের কেন্দ্র একই লাইনে হওয়া উচিত, অন্যথায় আপনি এই যাদু ব্রিজটি দেখতে পাবেন না! নিশ্চয় অনেকেই লক্ষ্য করেছেন যে যখন সাদা আলোর একটি রশ্মি সাবান বুদ্বুদে বা বেভেলড আয়নার প্রান্তে পড়ে তখন কী ঘটে। এটি বিভিন্ন রঙে বিভক্ত (সবুজ, নীল, লাল, হলুদ, বেগুনি ইত্যাদি)। কোনও উপাদান যা মরীচিটিকে তার উপাদানগুলির রঙগুলিতে ভেঙে দেয় তাকে প্রিজম বলা হয়। এবং গঠিত বহু বর্ণের লাইন – একটি বর্ণালী।

রংধনু কী?

এটি একটি বাঁকানো বর্ণালী, বৃষ্টিপাতের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় আলোর রশ্মির বিচ্ছিন্নতার ফলস্বরূপ গঠিত একটি রঙিন ব্যান্ড (তারা এই ক্ষেত্রে প্রিজম হয়)।

হরেক রকম রংধনু

সৌর বর্ণালীগুলির রঙগুলি একটি নির্দিষ্ট ক্রমে সাজানো হয়। একদিকে – লাল, তারপরে কমলা, পরের – হলুদ, সবুজ, নীল, নীল, বেগুনি। একটি রংধনু পরিষ্কারভাবে দৃশ্যমান হয়, যখন বৃষ্টিপাত সমান এবং প্রায়শই পড়ে যায় আরও প্রায়ই, এটি আরও উজ্জ্বল হয়। সুতরাং, তিনটি প্রক্রিয়া একযোগে বৃষ্টির মধ্যে ঘটে: প্রতিসরণ, প্রতিবিম্ব এবং আলোর পচন।
রেইনবো দেখতে কোথায়? ঝর্ণা, জলপ্রপাতগুলি, কোনও সেচ মেশিন দ্বারা স্প্রে করা ফোঁটাগুলির পটভূমি ইত্যাদির বিপরীতে আকাশে এর অবস্থান সূর্যের অবস্থানের উপর নির্ভর করে। আপনি যদি আকাশে উঁচুতে থাকেন তবে আপনি পুরো রংধনু বৃত্তের প্রশংসা করতে পারেন। দিগন্তের উপরে সূর্য যত বেশি ওঠে ততই ছোট বর্ণের অর্ধবৃত্ত হয়।

একটি রংধনু কী তা বোঝানোর প্রথম প্রচেষ্টা ১৬১১সালে অ্যান্টোনিও ডোমিনিস তৈরি করেছিলেন by তাঁর ব্যাখ্যা বাইবেলের একটি থেকে আলাদা ছিল, তাই তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। ১৬৩৭ সালে, ডেসকার্টস সূর্যালোকের প্রতিসরণ এবং প্রতিবিম্বের উপর ভিত্তি করে এই ঘটনার জন্য বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিয়েছিল। সেই সময়, তারা এখনও মরীচিটি একটি বর্ণালী, অর্থাৎ ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষয় সম্পর্কে জানতেন না। সুতরাং, ডেসকার্টসের রংধনু সাদা ছিল। 30 বছর পরে, নিউটন তাকে “রঙিন” করেছিলেন, তার সহকর্মীর তত্ত্বকে বৃষ্টিপাতের রঙিন রশ্মির প্রতিসরণের জন্য ব্যাখ্যার সাথে পরিপূরক করে। তত্ত্বটি 300 বছরেরও বেশি পুরানো হলেও এগুলি একটি রংধনু কী তা সঠিকভাবে সূত্রবদ্ধ করে, এর প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি (রঙের বিন্যাস, অর্কের অবস্থান, কৌণিক পরামিতি)।

রংধনুর সাথে আলোর বিচ্ছুরণ এর সম্পর্ক কী?

যখন সদ্য বৃষ্টি সমাপ্ত হয়,তখন জলকণা গুলো বায়ুমন্ডল এ প্রিজম এর ন্যায় কাজ করে, আর সূর্য এর সাদা বর্ন এই জলকনা তথা প্রিজম এর মধ্যে দিয়ে সাতটি ভিন্ন রঙ এর সৃষ্টি করে, যা আমরা রংধনু হিসেবে দেখি সূর্য এর বিপরীতে।

রংধনুর সাথে আলোর বিচ্ছুরণ এর সম্পর্ক

রংধনু কেন বাঁকা হয়?

আলোর ভিন্ন ভিন্ন বর্নের ভিন্ন ভিন্ন তরঙ্গদৈর্ঘ্য এর জন্য রংধনু বাকা হয়।

রংধনু কেন বাঁকা হয়

রংধনু বৃষ্টির পরে ই কেন হয়?

বৃষ্টির পরে স্বাভাবিক ভাবেই বায়ুমন্ডল এ আদ্রতা বেশি থাকে। ফলে জলকণার উপস্থিতিও থাকে। আর সূর্য এর সাদা বর্ন এর জলকণা কে প্রতিসারক মাধ্যম প্রিজম হিসেবে ব্যবহার করে,ফলে আলোর বিচ্ছুরণ ধর্মের বদৌলতে ভিন্ন ভিন্ন রঙ রংধনু হিসেবে আমরা সূর্য এর বিপরীতে আমরা দেখতে পাই।

রংধনুর রং কয়টি?

১৭ শতাব্দী পর্যন্ত মানুষ জানতো না যে, রংধনু কীভাবে হয় এবং কী দিয়ে হয়? স্যার আইজ্যাক নিউটন রংধনুর ৭টি রঙের বর্ণচ্ছটা আবিষ্কারের পূর্বে সবাই মনে করতো যে, রংধনুতে সাতটি রং ছিল না। আর নবজাগরণের আগে মানুষের ধারণা ছিল যে, রংধনুতে তিনটির বেশি রং নেই। এমনকি আজ অবধি চায়নার গড়পড়তা অধিবাসীরা দাবী করেন যে, রংধনুতে কেবল ৫টি রং রয়েছে।

বৃষ্টির ফোঁটায় পৃথক রংধনু-

আলো যখন বৃষ্টির ফোঁটা ভেদ করে যায়, তখন পৃথক রংধনু তৈরি হয়। তবে এটি এতো ছোট হয় যে, চোখে দেখা যায় না। তাই, আলো যখন হাজারো বৃষ্টির ফোঁটা ভেদ করে যায় তখন সম্মিলিতভাবে রংধনু দৃশ্যমান হয় যা আমরা খালি চোখে দেখতে পারি।

রংধনু বৃত্তাকার-

রংধনু আসলে সাতটি রঙের একটি পূর্ণ বৃত্ত হয়ে থাকে। তবে যেহেতু আমরা নিচ থেকে রংধনু দেখি, তাই এটি আমাদের কাছে দেখতে ধনুক বা অর্ধ গোলাকৃতির দেখায়। কিন্তু আবার উড়োজাহাজ থেকে দেখা গেলে দেখবেন যে পুরো গোলাকৃতির রংধনুই আপনি উপর থেকে দেখতে পাচ্ছেন।

রংধনু বৃত্তাকার

বৃষ্টি ছাড়াই রংধনু

বৃষ্টির পর যে রংধনু দেখা যায় তা সবারই জানা বিষয়। কিন্তু আপনি কি জানেন যে, বৃষ্টি ছাড়াও আপনি রংধনু দেখা যায়? পানির ফোঁটার কুয়াশায় আচ্ছন্ন কোন ঝর্নার কাছে গিয়ে এমন এক জায়গায় দাঁড়াবেন, যেখানে সূর্যটি আপনার পেছনে থাকবে। সেক্ষেত্রে ভাগ্য ভালো থাকলে বৃষ্টি ছাড়াই সেখানে রংধনুর দেখা মিলতে পারে।

দুপুরে দেখা মেলে না রংধনুর

রংধনু সাধারণত সকাল এবং সন্ধ্যায় দেখা যায়। তবে খুব কম ক্ষেত্রেই দুপুরের দিকে দেখায় যায়। কারণ রংধনু তৈরি হওয়ার জন্য আলোকে একেবারে ৪২ ডিগ্রী হিসেবে বৃষ্টির ফোঁটা ভেদ করে আসতে হয় যা দুপুরবেলায় সম্ভব নয়। কারণ দুপুরবেলায় সূর্যের তাপমাত্রা ৪২ ডিগ্রীর ওপরে থাকে।

রংধনুকে ঘিরে যত মিথ্যা

কোনো কোনো সংস্কৃতিতে রংধনুকে পৃথিবী ও স্বর্গের মধ্যকার সেতুবন্ধন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। পাশ্চাত্য সংস্কৃতিতে রংধনুর দিকে তাকিয়ে থাকাকে সৌভাগ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং একে নতুন আশার প্রতীক ধরা হয়। সাইবেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলের এক উপজাতি গোষ্ঠী রংধনুকে সূর্যের জিহ্বা মনে করে। আর যদি এই রংধনু সমুদ্রের ওপরে দেখা যায়, তাহলে দক্ষিন আমেরিকার আরাওয়াক ইন্ডিয়ানস একে সৌভাগ্যের চিহ্ন হিসেবে বিবেচনা করে থাকে।

দ্বিগুণ রংধনু!

অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে, দ্বিগুণ, তিনগুণ এমনকি চারগুণ রংধনুও হয়ে থাকে। যখন আলো বৃষ্টির ফোঁটার ভেতর দিয়ে দুইবার প্রতিফলিত হয়, তখন দ্বিগুণ রংধনু তৈরি হয়। ঠিক একইভাবে, যখন তিনবার হলে তিনগুণ আর চারবার হলে চারগুণ আলো প্রতিফলিত হয়ে রংধনু সৃষ্টি হয়। তবে এই ঘটনা বেশ বিরলই বলা চলে!

কেন দেখা যায় না একই রংধনু

এই বিষয়টি সত্যি যে, দুইজন মানুষ একই সাথে একই রকম রংধনু দেখতে পায় না। ব্যাপারটি শুনতে পৌরাণিক মনে হলেও এতে রয়েছে কিছু সজহ পদার্থবিদ্যা সম্পর্কিত বিষয়। একই বৃষ্টির ফোঁটা থেকে যে আলো প্রতিফলিত হয় তা আপনার দৃষ্টিকোণ পাশে দাঁড়ানো অন্যজনের দৃষ্টিকোণ থেকে ভিন্ন একটি কোণে থাকে। তাই আপনি যেই কোণ থেকে দেখতে পারবেন, পাশের জন কিন্তু তাঁর দৃষ্টিকোণ থেকে সেই রংধনু দেখতে পাবেন না। অতএব, দৃষ্টিকোণ ভিন্ন হওয়ার সাথে সাথে রংধনুর দেখা মিলে।

সমস্যার মূল যখন রংধনু

আপনার কি এই বিষয়টি বিশ্বাস হবে যে, রংধনুর মতো সুন্দর এই আলোকছটা কোনো ধরনের সমস্যার কারণ হতে পারে? বহু পুরাতন সংস্কৃতির বিশ্বাস মতে, রংধনু ভূত বা প্রেতাত্মার সাথে সম্পৃক্ত। কারণ রংধনুর জন্য মাঝেমাঝে বজ্রপাত এবং বিদ্যুৎ চমকানোর সাথে সাথে ঝড় হয়ে থাকে। আবার কোনো কোনো সংস্কৃতিতে এমনও বিশ্বাস রয়েছে যে, রংধনুর দিকে নির্দেশনা করা ঠিক নয়। কারণ এতে করে দুর্ভাগ্য বয়ে আসতে পারে। এমনকিও এও বিশ্বাস করা হয় যে, রংধনু পুংলিঙ্গকে স্ত্রীলিঙ্গে পরিবর্তন করে ফেলতে পারে।