Image default
জানা অজানা

পৃথিবীর 10 টি সুন্দর পাখি

পাখির রূপে মুগ্ধ হয় না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। দেশ হোক বা বিদেশ, পাখির রূপ নিয়ে চর্চা চলে সর্বত্র। পৃথিবীতে দশ হাজারের বেশি প্রজাতির পাখির খোঁজ মিলেছে এখনও পর্যন্ত। চারপাশে উড়তে থাকা এবং কিচিরমিচির করা পাখি দেখে চাপমুক্ত হয় না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। ভারত-সহ প্রায় সব দেশেই পাখির সমাহার দেখা যায়।

পোষ্য থেকে পরিযায়ী, পাখির ধরন বিভিন্ন। পাখিদের মধ্যে বিশেষত পরিযায়ীরা বছরের নির্দিষ্ট সময়ে এরা বিশাল দূরত্ব অতিক্রম করে একস্থান থেকে অন্য স্থানে যায়। এই ধরনের স্থানান্তর থেকে বেশি দেখা যায় স্বল্পদৈর্ঘ্যের অনিয়মিত গতিবিধি। বেশিরভাগ পাখিই সামাজিক জীব। এরা দৃষ্টিগ্রাহ্য সংকেত এবং ডাক বা শিষের মাধ্যমে একজন আরেকজনের সাথে যোগাযোগ করে। পাখির অর্থনৈতিক গুরুত্ব অনেক বেশি। খাদ্য হিসেবে এদের গুরুত্ব অপরিসীম। মাংসের জন্য এদের বহু প্রজাতিকে শিকার করা হয় আর কিছু প্রজাতিকে বাণিজ্যিকভাবে পালন করা হয়। কিন্তু পাখির রূপ নিয়ে সবচেয়ে বেশি চর্চা হয়ে থাকে। পৃথিবীতে এমন কিছু পাখি আছে যাঁদের দৈহিক গঠন, জমকালো রং এবং অসাধারণ কিছু গুণের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরতম পাখি হিসেবে তারা স্বীকৃতি পায়।

১. কিল-বিল্ড টুকান

কীল-বিল্ড টুকান
কীল-বিল্ড টুকান ; ছবি : belize

বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর পাখিদের মধ্যে কিল-বিল্ড টৌকানের নামও রয়েছে। এই সুন্দর পাখি সাধারণত দক্ষিণ আমেরিকার বনাঞ্চলে দেখতে পাওয়া যায়। এই পাখির দৈর্ঘ্য ২০ সেন্টিমিটার এবং ওজন ৪ কেজি হতে পারে। এই পাখির বিশেষ বৈশিষ্ট্য তাদের সেন্টিমিটার লম্বা সুন্দর ঠোট। এই পাখি সাধারণ বিভিন্ন বর্ণের হয়। এবং এর ঠোটের রং সবুজ, লাল এবং হলুদ মিশ্রণ। সাধারণত ওজন ভারি হওয়ায় এই পাখি বেশিদূর পর্যন্ত উড়তে পারেনা।

২. ক্রেন জু

ক্রেন জু
ক্রেন জু ; ছবি : sandiegozoo

ক্রেন জু বিশ্বের উড়ন্ত পাখি গুলির মধ্যে একটি। এই পাখির দৈর্ঘ্য প্রায় ৭০ থেকে ১৫০ সেন্টিমিটার। এই পাখি গুলি বিশ্বের প্রায় সব মহাদেশেই দেখতে পাওয়া যায়। এই পাখির গলা লম্বা আকারের, মাথার রং কালো সাদা এবং হলুদ। এছাড়া এই পাখির ধানের শিশের মতো সুন্দর ঝুটি দৃষ্টি আকর্ষন করে। এদের শরীরের পালক বিভিন্ন রঙের হয় যা অবস্থান অনুযায়ী পরিবর্তন হয়।

৩. আটলান্টিক পাফিন

আটলান্টিক পাফিন
আটলান্টিক পাফিন ; ছবি : Audubon projectpuffin

এই পাখিটিও বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর পাখির মধ্যে একটি। আটলান্টিক পাফিন একটি ছোটো সামুদ্রিক পাখি যা আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র এবং পূর্ব কানাডার উপকূলে দেখা যায়। এই সুন্দর পাখি গুলি দেখতে বহু বর্ণের এবং রঙিনপেঙ্গুইনের মতো এরা বেশিরভাগ সময় সাগরেই কাটায় সেই কারণে এদের সমুদ্রের তোতা বল হয়। আটলান্টিক পাফিন প্রতি গ্রীষ্মে আটলান্টিক মহাসাগরের দ্বীপ গুলিতে প্রজনন করে।

৪. ময়ূর

ময়ূর
ময়ূর ; ছবি : bengaliessays

ময়ুর সাধারণত ভারতবর্ষের বেশি দেখতে পাওয়া যায়। এটি ভারতের জাতীয় পাখি। ময়ুর তার লেজের সুন্দর প্রদর্শনের জন্য বিশ্ব বিখ্যাত। সাধারণত বর্ষাকালে এদের লেজের বর্ণময় প্রদর্শন দেখা যায়। এই প্রদর্শন করা অবস্থায় ময়ুর দেখতে বেশি সুন্দর হয় এবং মহিলা অনেকটা মুরগির মতো দেখতে হয়।

৫. অস্ট্রেলিয়ান রাজা তোতা

অস্ট্রেলিয়ান রাজা তোতা
অস্ট্রেলিয়ান রাজা তোতা ; ছবি : birdforum

এটি সুন্দর ধরণের একটি তোতা পাখি যা সাধারণত অস্ট্রেলিয়ায় দেখা যায়। এই তোতা পাখির দৈর্ঘ্য প্রায় ৪০ থেকে ৫০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়। এই পাখি পাহাড়ি অঞ্চলের গাছ গুলিতে বেশি দেখা যায়। এই পাখির মাথার রং গভীর লাল এবং বাকি পালক এবং লেজ গভীর সবুজ।

৬. রেইনবো লরিকিট

রেইনবো লরিকিট
রেইনবো লরিকিট ; ছবি : educalingo

রেইনবো লরিকিট একটি মাঝারি আকারের তোতা যা সাধারণত অস্ট্রেলিয়ায় বেশি দেখা যায়। আর দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫ থেকে ৩০ সেন্টিমিটার এবং ওজন প্রায় ৭০ থেকে ১৫০ গ্রাম। এই পাখির মাথার রং গভীর নীল এবং বাকি অংশ সবুজ। রেইনবো লরিকিট বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর পাখিদের মধ্যে একটি সুন্দর পাখি।

৭. গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ

গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ
গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ ; ছবি : singing wings aviary

গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ চড়াই জাতীয় পাখি যা অস্ট্রেলিয়ায় সাধারণত বেশি দেখা যায়। গোল্ডিয়ান ফিঞ্চ খুব ছোটো আকারের পাখি। এই পাখির দৈর্ঘ্য প্রায় ১২০ থেকে ১৪০ মিলিমিটার। এই পাখির মাথার রং লাল, কালো এবং হলুদ হয় এবং পালকের রং সবুজ, নীল এবং হলুদ। এরা ঝাঁক বেধে থাকতে বেশি পছন্দ করে।

৮. কাঠের হাঁস

কাঠের হাঁস
কাঠের হাঁস ; ছবি : animalreader

এই পাখি সাধারতন আমেরিকার জলাভূমিতে দেখা যায়। এই পাখির দৈর্ঘ‍্য প্রায় ৪৬ থেকে ৫৩ সেন্টিমিটার। এই পাখি সাধারণত স্রোত বহুল জলে বাস করে এবং গাছের মধ্যে ছিদ্র করে বাসা বাঁধে। এই পাখির মধ্যে পুরুষ পাখি বেশি সুন্দর হয় তাদের গলার নীচে সাদা শিখা, লাল চোখ এবং বিভিন্ন বর্ণের পালক দেখা যায়। এবং মহিলা পাখি পুরুষ পাখির তুলনায় কম সুন্দর। তাদের পালক কম রঙিন, চোখে সাদা রিং এবং সাদা গলা আছে।

৯. হায়াসিন্হ ম্যাকাও

হায়াসিন্হ ম্যাকাও
হায়াসিন্হ ম্যাকাও ; ছবি : bdview24

এটি বিশ্বের সমস্ত উড়ন্ত তোতা পাখিদের মধ্যে বৃহত্তম। এই পাখি সাধারণ উত্তর ব্রাজিলে দেখা যায়। এদের চোখের চারপাশে হলুদ রঙের রিং এবং নীল সুন্দর পালক এবং সুন্দর দীর্ঘ লেজের জন্য এই পাখি বিখ্যাত।মাথার ঝুটি থেকে পা পর্যন্ত এই পাখির দৈর্ঘ‍্য প্রায় ১ মিটার। সারা বিশ্বে এই পাখির সংখ্যা খুবই কম। সাধারণত তৃনভূমীতেই এই পাখি দেখা যায়।

১০. বোহেমিয়ান ওয়াক্সউইং

বোহেমিয়ান ওয়াক্সউইং
বোহেমিয়ান ওয়াক্সউইং ; ছবি : newart74

বোহেমিয়ান ওয়াক্সউইং বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর চড়াই জাতীয় পাখির মধ্যে একটি। এই পাখি সাধারণত উত্তর আমেরিকা এবং ইউরেশিয়াতে বেশির ভাগ দেখা যায়। শীতকালে তারা পাল ধরে আমেরিকা উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে চলে যায়। এই পাখির মাথায় ঝুটি ধুসর-বাদামী ডানা এবং হলুদ রঙের সুন্দর লেজ আছে এবং এই পাখির দৈর্ঘ‍্য ১৫ থেকে ২০ সেন্টিমিটার। এই পাখি তার সুন্দর কণ্ঠের জন্য বিখ্যাত।

Related posts

সাপ এবং নেউলের মধ্যে সংঘাতের কারন কী? কেন হয়?

News Desk

দ্য গ্রেট ব্যানিয়ন ট্রি যার রহস্য আজও পর্যটকদের হাতছানি দেয়

News Desk

পদ্ম গোখরা: চেনার উপায়, বাসস্থান, লক্ষণ,চিকিৎসা ও সাবধানতা

News Desk

Leave a Comment