free hit counter
জানা অজানা

ঢাকার সেরা ১০ কলেজ

১. ঢাকা কলেজ

ঢাকা কলেজ বাংলাদেশের একটি শীর্ষস্থানীয় ও ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এটি ঢাকা শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। এই কলেজটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ।

ঢাকা-কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৮৪১ সাল
ঠিকানা-
মিরপুর রোড, নিউমার্কেট, ধানমন্ডি, ঢাকা ১২০৫.
নীতিবাক্য- নিজেকে জানো
ধরন- সরকারি
শিক্ষাঙ্গন-
শহুরে (১৮.৫৭ একর)
অধিভুক্তি-
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি)
ওয়েবসাইট-
ইমেইল-
ফোন নাম্বার-
০২-৮৬১৮৩৫০, ৮৬১৮৭০৭, ৮৬৫২২২৩,৮৫১১৩৫৪
কারা পড়তে পারবে- শুধু ছেলেরা।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পড়াশুনা হয়। এখানে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, পদার্থ, রসায়ন, প্রাণিবিজ্ঞান, উদ্ভিদবিজ্ঞান, ইতিহাস, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ইসলামের ইতিহাস,ভূগোল, পরিবেশবিজ্ঞান, অর্থনীতি, দর্শন ইত্যাদি বিষয়ে পড়ানো হয়।

ভর্তির যোগ্যতা- উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তি হতে হলে মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগের জন্য জিপিএ ৫.০০ থাকতে হবে। বাণিজ্য বিভাগে ৪.৭৫ এবং মানবিক বিভাগে ৪.৫০ থাকতে হবে।

স্নাতকে ভর্তি হতে চাইলে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে চতুর্থ বিষয়সহ ৭ থাকতে হবে জিপিএ। বাণিজ্য বিভাগের জন্য ৬.৫ এবং মানবিক বিভাগে ৬ থাকতে হবে।

২. নটরডেম কলেজ

নটর ডেম কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘের ধর্মযাজকদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত একটি উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। ভারত বিভাগের পর কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য পূর্ব পাকিস্তানে সরকারের আমন্ত্রণ পেয়ে তৎকালীন আর্চবিশপ লরেন্স গ্রেনারের তৎপরতায় ও পবিত্র ক্রুশ সন্ন্যাস সংঘের সিদ্ধান্ত অনুসারে রোমান ক্যাথলিক পাদ্রি সম্প্রদায় কর্তৃক ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের ৩ নভেম্বর ঢাকার লক্ষ্মীবাজারে সেন্ট গ্রেগরিজ উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিবর্ধিত রূপ হিসাবে সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৫৪ খ্রিষ্টাব্দে কলেজটিকে কমলাপুর রেলস্টেশনের নিকটবর্তী মতিঝিল থানার অন্তর্গত আরামবাগে স্থানান্তরিত করা হয় এবং যিশু খ্রিষ্টের মাতা মেরির নামে কলেজটি উৎসর্গ করে নটর ডেম কলেজ নাম রাখা হয়। ফরাসি শব্দগুচ্ছ “নোত্‌র দাম”-এর অর্থ আমাদের মহীয়সী নারী হলেও নটর ডেম কলেজ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে পূর্ণাঙ্গরূপে বালকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

নটরডেম-কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৪৯ সালের ৩ নভেম্বর
ঠিকানা- টয়েনবি সার্কুলার রোড, ঢাকা ১০০০।
প্রাক্তন নাম – সেন্ট গ্রেগরিজ কলেজ |
নীতিবাক্য – জ্ঞানের আলোকে ভালোবাসো |
ধরন- বেসরকারি উচ্চ মাধ্যমিক ও ডিগ্রি কলেজ
অধ্যক্ষ – হেমন্ত পিউস রোজারিও |
ওয়েবসাইট- www.notredame.ac.bd
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার-
02-7192325,হেল্প লাইন নাম্বার: 01933322530-32, 01967607777 (সকাল ৮টা-বিকাল ৫ টা)
কারা পড়তে পারবে- শুধু ছেলেরা।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এটি একটি বেসরকারি উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ ও ডিগ্রি কলেজ। এখানে, বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক ৩ বিষয়েই পড়া যায়।

ভর্তির যোগ্যতা- বিজ্ঞান বিভাগে উচ্চতর গণিত সহ জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৩ থাকতে হবে।

৩. রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ বাংলাদেশের ঢাকা শহরের উত্তরা এলাকায় অবস্থিত একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ১৯৯৪ সালে স্থাপিত এই বিদ্যালয়টি এরই মধ্যে বাংলাদেশের অন্যতম সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিণত হয়েছে।

রাজউক উত্তরা মডেল কলেজ

 

প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৯৪ সাল
ঠিকানা- রোড#৩, সেক্টর#৬, উত্তরা, ঢাকা
নীতিবাক্য- মানুষ হওয়ার জন্য শিক্ষা
প্রতিষ্ঠাতা – বাংলাদেশ সরকার
চেয়ারপারসন- মো. মাহবুব হোসাইন
অধ্যক্ষ- ব্রিগেডিয়ার জেনারেল তায়েফ উল হক
ওয়েবসাইট- www.rajukcollege.net
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 02-8918196,8954676,8912780-115
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- উচ্চমাধ্যমিক পর্যায় সব বিষয় পড়ানো হয়।

ভর্তির যোগ্যতা- বিজ্ঞান বিভাগে উচ্চতর গণিত সহ জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪.৫০ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৪.০০ থাকতে হবে।

৪. ভিকারুননিসা নুন কলেজ

ভিকারুননিসা নুন স্কুল ঢাকার বেইলি রোডে অবস্থিত বাংলাদেশে মেয়েদের একটি স্বনামধন্য স্কুল। ১৯৫২ সালে তৎকালীন পাকিস্থানের পূর্ব পাকিস্তান প্রদেশের (বর্তমানে স্বাধীন বাংলাদেশ) গভর্নর ফিরোজ খান নুনের সহধর্মিনী ভিকার উন নিসা নূন ঢাকায় মেয়েদের একটি আধুনিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শুরু করার লক্ষ্যে স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন ও তার নামানুসারেই স্কুলটির নামকরণ করা হয়েছে। ভিকারুননিসা স্কুলের সাথে ক্ষেত্রবিশেষে উপমহাদেশের ইতিহাসের সংযোগ রয়েছে। এটি এখন বাংলাদেশের নামকরা স্কুলগুলোর মধ্যে প্রথম স্থানে রয়েছে।

ভিকারুননিসা নুন কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৫২
ধরন- বেসরকারী
অধ্যক্ষ – কামরুন নাহার
লিঙ্গ- বালিকা
ঠিকানা- ১/এ, বেইলি রোড, ঢাকা- ১০০০।
ওয়েবসাইট- www.vnscbd.edu.bd
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 88-8350500, 9348266
কারা পড়তে পারবে- শুধু মেয়েরা

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক শাখায় ছাত্রী ভর্তি করানো হয়। এটাতে স্কুলও রয়েছে।

ভর্তির যোগ্যতা- বিজ্ঞান বিভাগে উচ্চতর গণিত সহ জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪.৫০ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে।

৫. ঢাকা সিটি কলেজ

ঢাকা সিটি কলেজ ঢাকা শহরের ধানমন্ডির কুদরত-ই-খুদা সড়কে অবস্থিত বাংলাদেশের অন্যতম স্বনামধন্য ও শীর্ষস্থানীয় কলেজগুলোর মধ্যে একটি। প্রতি বছর উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফলের ভিত্তিতে ঢাকা বোর্ডের সেরা দশ কলেজের মধ্যে ঢাকা সিটি কলেজ অন্যতম হিসেবে বিবেচিত হয়। উচ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা প্রসারে ঢাকার প্রাণকেন্দ্রে প্রতিষ্ঠিত এই কলেজটি অর্জন করেছে আলোকসম্ভব কৃতিত্ব এবং নিজেকে নিয়ে গেছে অনন্য উচ্চতায়। এখানে এইচএসসি, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রির জন্য পড়া যায়। কলেজটি বাংলাদেশের জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত।

ঢাকা সিটি কলেজ
অন্যান্য নাম – সিটি কলেজ
প্রাক্তন নামসমূহ – ঢাকা নাইট কলেজ
নীতিবাক্য- জাতি নির্মাণ
ধরন- বেসরকারি
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৫৭ সাল।
চেয়ারম্যান- সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী
অধ্যক্ষ- বেদার উদ্দিন আহমেদ
ঠিকানা- রোড নং ২, ধানমন্ডি আর/এ, ঢাকা-১২০৫।
ওয়েবসাইট-
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 88-02-9675529
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই।

 

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক শাখায় পাঠদান করা হয়। এছাড়া বিবিএ, বিএসসি,অনার্স, সিএসই কোর্স করানো হয়ে থাকে।

ভর্তির যোগ্যতা- উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তির জন্য বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪.০০ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে।

৬. আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের ঢাকা সেনানিবাস এলাকায় অবস্থিত একটি স্বনামধন্য উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত। ইংল্যান্ডের আদি পাবলিক স্কুল ‘ইটন’ ও ‘হ্যারো’ এর আদর্শে এটি ১৯৬০ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। কলেজটি মূলত সামরিক বাহিনীর সদস্যদের সন্তানদের জন্য হলেও বেসামরিক ব্যক্তিবর্গের সন্তানরাও এতে পড়াশোনা করতে পারে।

আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৬০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি
নীতিবাক্য – শিক্ষা, শৃঙ্খলা, নৈতিকতা
কর্তৃপক্ষ – বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
প্রতিষ্ঠাতা- গুল মোহাম্মদ আদমজী
ঠিকানা- ঢাকা সেনানিবাস, ঢাকা-১২০৬
চেয়ারম্যান-
বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মুশফিকুর রহমান, পিএসসি
অধ্যক্ষ-
বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. মাহ্‌বুব-উল আলম, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি
ওয়েবসাইট- www.acc.edu.bd
ইমেইল-
ফোন নাম্বার- 02-8872446 , 88-02-9834876
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- উচ্চ মাধ্যমিক শাখায় বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগে শিক্ষা কার্যক্রম চালু আছে। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ইংরেজি, অর্থনীতি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স, মাস্টার্স ও বিবিএ কোর্স রয়েছে।

ভর্তির যোগ্যতা- উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তির জন্য বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪.৫০ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৩.৭২ থাকতে হবে। সেনা সদস্যদের ছেলে মেয়ে ভর্তির জন্য এখানে আলাদা কোটা রয়েছে।

৭. ঢাকা কমার্স কলেজ

ঢাকা কমার্স কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরের মিরপুরে অবস্থিত একটি উচ্চ মাধ্যমিক ও স্নাতকোত্তর কলেজ। ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত এটি ঢাকা মহানগরীর প্রথম কলেজ যা বাণিজ্য বিশেষত। শিক্ষার্থীরা বাংলা ও ইংরেজি উভয় মাধ্যমেই শিক্ষা গ্রহণ করে। এই কলেজের মূল প্রতিষ্ঠাতা হলেন অধ্যাপক কাজী নুরুল ইসলাম ফারুকী। এই কলেজটি “ডিসিসি” নামেও পরিচিত। ২০১২ সালে ঢাকা কমার্স কলেজকে বাংলাদেশের সেরা বেসরকারী কলেজ হিসাবে ভূষিত করা হয়েছিল। ২০১৯–২০২০ সেশনে বিজ্ঞানের জন্যও উচ্চমাধ্যমিক কোর্স শুরু করা হয়েছে।

প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৮৯ ‍সাল।
নীতিবাক্য-
রাজনীতি ও ধূমপানমুক্ত পরিবেশ এবং স্ব-অর্থায়ন
ধরন- বেসরকারি কলেজ
চেয়ারম্যান – প্রফেসর শফিক আহমেদ সিদ্দিকী
অধ্যক্ষ- প্রফেসর মো. আবু সাইদ
ঠিকানা- সেকশন#২, মিরপুর, ঢাকা-১২১৬।
ওয়েবসাইট- www.dcc.edu.bd
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 48033903, 48036942, 48037357
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে উচ্চ মাধ্যমিক বিষয় পড়ানো হয়। এছাড়াও বিবিএ,এমবিএ, বিএসসি, এম এস এস কোর্সসমূহ পড়ানো হয়।

ভর্তির যোগ্যতা- উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তি হওয়ার জন্য মাধ্যমিকে জিপিএ ৪ থাকতে হবে এবং অনার্সে ভর্তি হওয়ার জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক উভয় পরীক্ষায় জিপিএ গড়ে ৪ থাকতে হবে।

৮. সরকারি বিজ্ঞান কলেজ

সরকারি বিজ্ঞান কলেজ বাংলাদেশের ঢাকার ফার্মগেট এলাকায় অবস্থিত। প্রথমে ইন্টারমেডিয়েট টেকনিক্যাল কলেজ নাম ছিল। ০৯ একর ভূমির উপর স্থাপিত এই কলেজ।এই কলেজে শুধুমাত্র মাধ্যমিক (এইচএসসি) অধ্যয়নের সুযোগ আছে।

সরকারি বিজ্ঞান কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১৯৮৬ সাল।
ধরন- সরকারি
অধ্যক্ষ- আইয়ুব আলী ভূঁইয়া
ঠিকানা-
৩৪/বি, ফার্মগেট। তেজতুরি বাজার রোড, ঢাকা-১২১৫।
ওয়েবসাইট-
ইমেইল- gsc [email protected]
ফোন নাম্বার- 02-9113962, 8122817
কারা পড়তে পারবে- শুধু ছেলে।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে উচ্চ মাধ্যমিক শাখায় কোর্সে শিক্ষাদান করা হয়। এটাতে শুধু বিজ্ঞান বিভাগ পড়ানো হয়। একসময় বানিজ্য শাখা থাকলেও। বর্তমানে শুধু বিজ্ঞান বিভাগ রয়েছে।

ভর্তির যোগ্যতা- বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫.০০ থাকলে ভর্তি হতে পারবেন।

৯. ন্যাশনাল আইডিয়াল কলেজ

ন্যাশনাল আইডিয়াল কলেজ খিলগাঁও থানায় অবস্থিত একটি উচ্চ মাধ্যমিক প্রতিষ্ঠান। এটি ২০০১ সালে আইডিয়াল ফাউন্ডেশন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়।এই কলেজ বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগ রয়েছে। এখানে ছেলে এবং মেয়ে উভয় শিক্ষা লাভ করতে পারে। ক্লাস আবাসিক ভবনের মধ্যে নেয়া হয়। খিলগাঁও-এ কলেজের বিভিন্ন ভবন রয়েছে। কলেজটি ২০০৩ সাল থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছে।

ন্যাশনাল আইডিয়াল কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ২০০১
ঠিকানা- খিলগাও, ঢাকা।
ধরন- বেসরকারি |
নীতিবাক্য- পড়! তোমার রবের নামে |
অধ্যক্ষ- মাকসুদ উদ্দিন |
ক্যাম্পাসের ধরন- অ্যাপার্টমেন্ট ভবন
ওয়েবসাইট-
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 02-55120299
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে বিজ্ঞান, বাণিজ্য ও মানবিক বিভাগে পাঠদান করা হয়ে থাকে।

ভর্তির যোগ্যতা- উচ্চ মাধ্যমিকে ভর্তির জন্য বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫, বাণিজ্য বিভাগে ৪.৫০ এবং মানবিক বিভাগে জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে।

১০. বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ রাইফেলস পাবলিক কলেজ

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ (সাবেক: বাংলাদেশ রাইফেলস স্কুল অ্যান্ড কলেজ) পিলখানার বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর সদর দপ্তরে অবস্থিত একটি বাংলাদেশি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ। মূলত বিজিবির সদস্যদের সন্তানদের শিক্ষা নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে স্থাপিত হলেও সকলেই এখানে পড়াশোনা করতে পারে। এই কলেজটি বাংলাদেশের অন্যতম স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিত।

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ রাইফেলস পাবলিক কলেজ
প্রতিষ্ঠাকাল- ১ জানুয়ারি, ১৯৮৪ সাল।
ধরন- বেসরকারি
নীতিবাক্য- জ্ঞানই শক্তি, কর্মে মুক্তি
ক্যাম্পাস- পিলখানা
ঠিকানা- পিলখানা রোড। বিজিবি হেড কোয়ার্টার।
ওয়েবসাইট-
ইমেইল- [email protected]
ফোন নাম্বার- 02-58616448
কারা পড়তে পারবে- ছেলে ও মেয়ে উভয়ই।

কোন কোন বিষয় পড়ানো হয়- এখানে উচ্চ মাধ্যমিক শাখায় পাঠদান করা হয়। এছাড়া এখানে ডিগ্রি কোর্স ও চালু আছে।

ভর্তির যোগ্যতা- বিজ্ঞান বিভাগে ভর্তির জন্য জিপিএ ৫ থাকতে হবে। বাণিজ্য বিভাগের জন্য ৩.১৭ ও মানবিক বিভাগে ২.৭৮ থাকতে হবে। এখানে বিজিবি সদস্যদের ছেলে মেয়ের জন্য বিজ্ঞান বিভাগে ৪.৮০, বাণিজ্য বিভাগে ৩ এবং মানবিক বিভাগে ২.৫০ থাকতে হবে।

 

 

Bednet steunen 2023