free hit counter
জানা অজানা

ইবনে বতুতার ভ্রমণকাহিনী

নতুনকে জানার আগ্রহ মানুষের দীর্ঘদিনের। এই আগ্রহ নিয়েই সুদূর মরক্কোর তানজিয়ের থেকে পৃথিবী দেখার নেশায় ঘর ছেড়েছিলেন ২১ বছর বয়সের এক মুসলিম যুবক। তিনি ইবনে বতুতা। মধ্যপ্রাচ্যের ইরাক, ইরান, বসরা, সিরিয়া, ফিলিস্তিন, পাকিস্তান, ভারত, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ঘুরে এসেছিলেন আমাদের বাংলায়ও। জীবনের ৩০ বছরে তিনি ভ্রমণ করেছেন ৭৫ হাজার মাইল বা ১ লাখ ২০ হাজার কিলোমিটার পথ।

কখনও আড়ালে, কখনও প্রকাশ্যে, ধীরে ধীরে গড়েছেন পর্যটন জীবনের প্রতিটি স্তম্ভ। ১৩০৪ খ্রিস্টাব্দের ২৪ ফেব্রুয়ারি মরক্কোর তাঞ্জিয়েরে জন্ম নেওয়া ইবনে বতুতা প্রথম যেদিন ঘর ছাড়েন ক্যালেন্ডারে সেদিন ১৪ জুন, ১৩২৫। বয়স ২১ বছর তিন মাস। পরিবার পরিজন ছেড়ে রওনা হন। সর্বপ্রথম হজ্জ্ব পালন করেন। তা শেষে বের হন পৃথিবী দেখার নেশায়।

ইবনে বতুতার মনের ক্যানভাসে ভাসতো গোটা দুনিয়া। ধীরে ধীরে সেটি রূপ নেয় তীব্র আকাঙ্খায়। আফ্রিকার সমুদ্রবর্তী তীর ঘেঁষে হাফসিদ সাম্রাজ্য, আব্দাল ওয়াদিদ, তিমসান, তিউনিস, বিজাইরা, কায়রো হয়ে মক্কায় পৌঁছেন। তিউনিসে প্রায় দুই মাসের যাত্রা বিরতির পর সুফি সাধক শেখ আবুল হাসান সাদিদির সাথে দেখা হয়। মদিনাগামী এক কাফেলায় যোগ দিয়ে মোহাম্মদ (স) এর রওজা জিয়ারত ও হজ্জ্ব পালন শেষে যাত্রা শুরু করেন মধ্য এশিয়ার দিকে। ১৯২৬ সালের ১৭ নভেম্বর আরব সাগর হয়ে ইরাকের উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

তিনি যখন যেখানে গেছেন, রাষ্ট্রীয় অতিথির সম্মান পেয়েছেন। জীবনের লম্বা সময় ইবনে বতুতা কাজীর দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দায়িত্ব পান। কখনও রাষ্ট্রদূত, কখনও সেনা কমান্ডার। কাজের প্রয়োজনে বেশ কয়েকবার বদলেছেন পরিচয়, ছদ্মবেশে ছিলেন কয়েকটি দেশে। চীনের মানুষ ইবনে বতুতাকে শামসুদ্দিন নামে চিনতো, ভারতে চিনতো মাওলানা বদরউদ্দিন নামে। মুসলিম বিশ্ব ঘুরে ঘুরে শাসন, শোষণ প্রত্যক্ষ করেছেন। ‘রেহলা’ নামে রচিত ভ্রমণ গ্রন্থে উল্লেখ করেন অত্যাচারী শাসকের বর্বরতার ইতিহাস ও ভ্রমণের নানাবিধ অভিজ্ঞতা।

তিন দশকে চল্লিশটির বেশি দেশ ভ্রমণ করা ইবনে বতুতা বাংলাদেশে আসেন ১৩৪৬ সালের ৯ জুন। হযরত শাহজালাল (র) এর সাথে সাক্ষাৎ ছিল এদেশে আসার প্রধান কারণ। মজার ব্যাপার হলো, তিনি আসবেন এই কথা কাউকে না জানালেও হযরত শাহজালাল ঠিকই জেনে যান এবং ইবনে বতুতাকে নিয়ে আসতে দুইজন শিষ্যকে পাঠান। হযরত শাহজালাল তাঁকে ছাগলের পশমের কোট উপহার দেন। প্রথমে চট্টগ্রাম, পরে পার্বত্য চট্টগ্রাম হয়ে সোনারগাঁও যান। প্রকৃতির প্রেমে মুগ্ধ হন তিনি। টানা পনেরো দিন পাল তোলা নৌকায় করে গ্রাম আর সবুজের সুধা পান করতে নদীতে ঘোরেন ইবনে বতুতা।

ইবনে বতুতার পুরো নাম আবু আবদুল্লাহ মোহাম্মদ। সেখান থেকে ইবনে বতুতা হবার রাস্তাটা সুপ্রশস্থ, এক লক্ষ বিশ হাজার কিলোমিটার প্রায়! মোটেই নিষ্কন্টক নয় সেই পথ! কাঁটা সরিয়ে উন্মুক্ত করেছেন জগৎ সংসারের রূপ, গরিমা, ঐশ্বর্য, ধনভাণ্ডার, সংস্কৃতিকে! ত্রিশ বছরের মহাযাত্রায় চল্লিশ দেশ, পঁচাত্তর হাজার মাইলের ম্যারাথনের ইতি টানেন নিগ্রোল্যান্ড গিয়ে। দেশে দেশে ইবনে বতুতা আতিথ্য পেয়েছেন চাওয়ার চেয়ে বেশি। নানান দেশের রাজা বাদশাহরা জাহাজ ভর্তি উপহার, ঘোড়া, উট, দাস-দাসী দিতেন উপঢৌকন হিসেবে। সুদীর্ঘ ভ্রমণ জীবনে হেঁটেছেন মরুভূমির উত্তপ্ত বালিতে। পড়েছেন সমুদ্রে জাহাজডুবীতে, জলদস্যুর হামলার শিকার হয়ে মৃত্যুকে চোখের সামনে দেখেছেন। ভিনদেশী সৈন্যের আক্রমণে কয়েকবার সফরে তৈরি হয় স্থবিরতা। তবু তিনি থেমে যাননি।

১৩৬৯ খ্রিস্টাব্দে ৬৫ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করা ইবনে বতুতার ঐতিহাসিক রেহলা গ্রন্থে বৈশ্বিক রাজনীতি, সমাজব্যবস্থা, পরিবেশ, আচার সবকিছু সুন্দর ও সাবলীলভাবে লিপিবদ্ধ করা হয়। রেহলা শব্দের বাংলা তর্জমা করলে মোটামুটি এমন দাঁড়ায়- ‘মুসলিম সাম্রাজ্যের শৌর্য, শহরের গৌরব-গরিমা এবং ভ্রমণপিপাসুদের পাথেয়।’ রেহলা গ্রন্থটি একইসঙ্গে ইবনে বতুতার দূরদর্শী ভাবনার সঙ্গে পরিচয় করাবে এবং ব্যক্তি ইবনে বতুতার সৃজনশীলতার বহিঃপ্রকাশ ঘটাবে। অনুরূপভাবে মানবসভ্যতার এক সম্পদ, দলিল হিসেবে গ্রন্থটি অধিষ্ঠিত হয়েছে আপন মর্যাদায়। যেভাবে আপন মর্যাদায় নিজেকে বিশ্ব ভ্রমণের মহাপুরুষ হিসেবে অদ্বিতীয় করে তুলেছেন ইবনে বতুতা।